রৌদ্রজ্জ্বল, তাপমাত্রা ২৩.৯ °C
 
৯ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

আফগানিস্তানে স্থানীয় মিলিশিয়া বাহিনী গঠিত হচ্ছে

প্রকাশিত : ২৬ মে ২০১৫
  • তালেবান মোকাবেলায় কাবুল সরকারের নয়া পদক্ষেপ

আফগানিস্তানের উত্তরাঞ্চলের বিস্তীর্ণ ভূখ-জুড়ে তালেবানের তীব্র হামলার মুখোমুখি হয়ে কাবুল সরকার নতুন এক কৌশল গ্রহণ করতে যাচ্ছে যা ঝুঁকিপূর্ণ। আফগান ও পশ্চিমী কর্মকর্তারা জানান, কাবুলের প্রশাসন এখন স্থানীয়ভাবে মিলিশিয়া গঠন করছে এবং সামরিক সাহায্যের জন্য প্রবীণ যুদ্ধবাজদের প্রতি আবেদন জানাচ্ছে। এই প্রচেষ্টায় যেসব এলাকা থেকে আফগান সামরিক ও পুলিশ বাহিনী পশ্চাদপসরণ করছে কিংবা তাদের স্বল্প উপস্থিতি রয়েছে তালেবানের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে উত্তরাঞ্চলের কয়েক হাজার আফগানকে সেখানে এক সময় সমবেত করা সম্ভব হবে। নিরাপত্তা বাহিনী তালেবানের মোকাবেলায় যথেষ্ট শক্তিশালী বলে কর্মকর্তারা এতদিন যে আশ্বাস দিয়ে আসছিল এই পদক্ষেপ তাকে সরাসরি দুর্বল করে দেবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। খবর নিউইয়র্ক টাইমসের।

তাছাড়া অনিয়মিত বাহিনীর দ্বারস্থ হওয়ার পরিকল্পনা দেশটিতে উপদলীয় প্রতিদ্বন্দ্বিতা ও গোষ্ঠীগত সংঘাতের আশঙ্কার ইন্ধন জোগাচ্ছে, ৯০-এর দশকে যে দেশের গৃহযুদ্দের অপ্রীতিকর স্মৃতি এখনও জীবন্ত, যখন বিবদমান মিলিশিয়া কমান্ডাররা দেশটিকে ছিন্নভিন্ন করে ফেলেছিল।

এক প্রজন্ম আগে সেই খুনোখুনিতে লিপ্ত সেই কমান্ডারদের কেউ কেউ এখন সিনিয়র সরকারী পদে অধিষ্ঠিত এবং তারাই মিলিশিয়াদের সমাবেশ ঘটানো ও নতুন করে অস্ত্র সজ্জিত করতে উৎসাহ দিচ্ছে। সরকার যেসব স্থানে মিলিশিয়া বাহিনী গঠন করার পরিকল্পনা করছে তার মধ্যে একটি প্রদেশ বাদাখশান থেকে নির্বাচিত পার্লামেন্ট সদস্য ফওজিয়া কুফি বলেন, ‘আমরা আগেও মিলিশিয়া তৈরির এই ব্যর্থ পরীক্ষা-নিরীক্ষা দেখেছি। এতে গৃহ থেকে গৃহে যুদ্ধ ছড়িয়ে পড়বে, প্রতিদ্বন্দ্বিতা শুরু হয়ে যাবে, কারণ প্রত্যেকেই তাদের নিজস্ব গোষ্ঠীকে অস্ত্র সজ্জিত করতে উঠে পড়ে লাগবে।’ আফগান সামরিক ও পুলিশ বাহিনীর প্রতিষ্ঠা, গত বছরের শেষ দিকে যাদের সদস্য সংখ্যা ছিল ৩ লাখ ২০ হাজারেরও বেশি- তাদের দেশে যুক্তরাষ্ট্রের উপস্থিতির অন্যতম লক্ষণীয় সাফল্য হিসেবে তুলে ধরা হয়। বিভিন্ন সূত্রে জানা যায়, দুই বাহিনী দেশের বেশকিছু এলাকায় ফলপ্রসূভাবে লড়াই চালিয়ে গেছে- এমনকি যেসব স্থানে ও যেখানে যুক্তরাষ্ট্র বিগত বছরগুলোতে অনেক কর্ম বিমানবাহিনীর সমর্থন ও রসদ সরবরাহ সহায়তা জুগিয়েছে। তবে আফগানদের হতাহত হওয়ার সংখ্যা আশঙ্কাজনকহারে বাড়ছে।

২০১৫-এর প্রথম ৪ মাসে যুদ্ধে ১ হাজার ৮শ’রও বেশি সৈন্য ও পুলিশ কর্মকর্তা নিহত হয়েছে এবং আরও ৩ হাজার ৪শ’ আহত হয়েছে। আফগান সরকার সরকারীভাবে হতাহতের সংখ্যা প্রকাশ না করার শর্তে একজন পশ্চিমী সরকারি কর্মকর্তা এই সংখ্যা উল্লেখ করেন।

প্রকাশিত : ২৬ মে ২০১৫

২৬/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: