কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৩ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

মহেশখালীর ৫ জনের চারজনকে জেলে প্রেরণ

প্রকাশিত : ২৫ মে ২০১৫
  • যুদ্ধাপরাধী বিচার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ একাত্তরে মুক্তিযুদ্ধের সময় মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে মহেশখালীর গ্রেফতারকৃত পাঁচজনের মধ্যে চারজনকে কারাগারে পাঠিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। রবিবার একই মামলার জিন্নাত আলী, মৌলভী ওসমান গণি, নুরুল ইসলাম ও বাদশা মিয়াকে ট্রাইব্যুনালে হাজির করা হয়। শুনানি শেষে তাদেরকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয়া হয়। অন্যদিকে, গ্রেফতার করে কেন ডা-াবেড়ি পরানো হলো তা জানতে চেয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। গ্রেফতারের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আসামিকে ট্রাইব্যুনালে হাজির করার বিধান, কিন্তু আদালতে আনার আগে তাদেরকে (ডা-াবেড়ি) পরিয়েছে পুলিশ। তারা সাজা প্রাপ্ত না হওয়ার পরেও তাদের কেন ডা-াবেড়ি পরানো হলো তা আইজি প্রিজনের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছে। এদিকে আদালত অবমাননার অভিযোগে ছাত্রশিবিরের সভাপতি আব্দুল জব্বার ও সাধারণ সম্পাদক আতিকুর রহমানের বিরুদ্ধে জারি করা রুলের জবাব দাখিলের দিন পিছিয়ে ১৪ জুন পুনর্র্নির্ধারণ করা হয়েছে। রবিবার আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ ও ২ এ সব আদেশ প্রদান করেছেন।

এদিকে মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে পলাতকদের গ্রেফতারে বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সমন্বয়ে একটি মনিটরিং সেল গঠন করেছে সরকার। রবিবার আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের রেজিস্ট্রার এ কথা বলেন। তিনি বলেন, মানবতাবিরোধী অপরাধীদের গ্রেফতারে র‌্যাব, পুলিশ, গোয়েন্দা পুলিশ, বিজিবি ও এসবির সমন্বয়ে একটি মনিটরিং সেল গঠন করছে সরকার।

মহেশখালীর ৪ রাজাকারকে রবিবার ট্রাইব্যুনাল হাজির করা হয়। শুনানি শেষে তাদেরকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয়া হয়েছে। চেয়ারম্যান বিচারপতি ওবায়দুল হাসান শাহীনের নেতৃত্বে তিন সদস্যবিশিষ্ট আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২ এ আদেশ প্রদান করেছেন। ট্রাইব্যুনালে অন্য দুই সদস্য ছিলেন বিচারপতি মোঃ মুজিবুর রহমান মিয়া ও বিচারপতি মোঃ শাহিনুর ইসলাম। একই মামলায় আরেক আসামি শামসুদ্দোহাকে শনিবার গভীর রাতে গ্রেফতার করেছে জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশ। তাকে পরবর্তীতে ট্রাইব্যুনালে সোপর্দ করা হবে বলে জানা গেছে। এ পাঁচজন ও এর আগে গ্রেফতারকৃত দু’জন এবং এখনও পলাতক ১২ জনসহ কক্সবাজারের মহেশখালীর মোট ১৯ জন এ মামলার আসামি। সবার বিরুদ্ধে ট্রাইব্যুনাল-২ গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করলেও গ্রেফতার হয়েছেন সাত জন। তাদের মধ্যে বাকি দু’জন হচ্ছেনÑ এলডিপির নেতা কক্সবাজার চেম্বারের সাবেক সভাপতি সালামত খান উল্লাহ খান ওরফে আঞ্জুবর ওরফে ‘পঁচাইয়া রাজাকার’ এবং বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য মোহাম্মদ রশিদ মিয়া। পলাতক আছেন ১২ জনের মধ্যে মৌলভী জাকারিয়া সিকদার ছাড়া আর কারও নাম প্রকাশ করা হয়নি পালিয়ে যাওয়ার আশঙ্কায়। ১৬ জুলাইয়ের মধ্যে এ ১৯ জনের মামলার তদন্ত শেষ করার নির্দেশ দিয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। এ সময় প্রসিকিউটর রানা দাশ গুপ্ত ট্রাইব্যুনালে উপস্থিত ছিলেন।

কেন ডা-াবেড়ি পরানো হলো ॥ একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত মহেশখালীর চারজনকে গ্রেফতার করে কেন ডা-াবেড়ি পরানো হলো তা জানতে চেয়েছেন ট্রাইব্যুনাল। গ্রেফতারের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে আসামিকে আদালতে হাজির করার বিধান, কিন্তু আদালতে আনার আগে তাদেরকে (ডা-াবেড়ি) পরিয়েছে পুলিশ।

আদালত অবমাননা ॥ আদালত অবমাননার অভিযোগে ছাত্রশিবিরের সভাপতি আব্দুল জব্বার ও সাধারণ সম্পাদক মোঃ আতিকুর রহমানের বিরুদ্ধে জারি করা রুলের জবাব দাখিলের দিন পিছিয়ে ১৪ জুন পুনর্র্নির্ধারণ করেছেন। চেয়ারম্যান বিচারপতি এম ইনায়েতুর রহিমের নেতৃত্বে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১ রবিবার এ আদেশ প্রদান করেছেন। ট্রাইব্যুনালের অন্য দুই সদস্য ছিলেন বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন সেলিম ও বিচারপতি আনোয়ারুল হক।

রবিবার শিবিরের দুই নেতার এ রুলের জবাব দাখিলের দিন ধার্য ছিল। তবে তাদের আইনজীবী শিশির মোঃ মনির জবাব দাখিলের জন্য চার সপ্তাহের সময়ের আবেদন জানান।

কক্সবাজারে আরেক যুদ্ধাপরাধী গ্রেফতার ॥ স্টাফ রিপোর্টার জানান, মহেশখালীতে অভিযান চালিয়ে পুলিশ তালিকাভুক্ত আরও একজন যুদ্ধাপরাধীকে গ্রেফতার করেছে। রবিবার ভোরে বড় মহেশখালীর বড় ডেইল এলাকা থেকে রাজাকার সামসুদ্দোহাকে (৭০) গ্রেফতার করা হয়। তিনি স্থানীয় মৃত রওশন আলীর পুত্র।

প্রকাশিত : ২৫ মে ২০১৫

২৫/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: