রৌদ্রজ্জ্বল, তাপমাত্রা ২৩.৯ °C
 
৮ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বৃহস্পতিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

মুক্তির আন্দোলন

প্রকাশিত : ২৪ মে ২০১৫

ছিটমহল বিনিময়ের প্রথম দাবি তোলেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কোচবিহার জেলার দিনহাটার সাবেক বিধায়ক প্রয়াত দীপক সেনগুপ্ত। তিনি ৭৪-এর ইন্দিরা-মুজিব চুক্তির আলোকে ভারত-বাংলাদেশের অভ্যন্তরে অবস্থিত ১৬২টি ছিটমহল বিনিময় চুক্তির বাস্তবায়ন এবং দু’দেশের ছিটমহলের নাগরিকদের মুক্তির দাবিতে আন্দোলনের জনক। তিনি ১৯৯৩ সালে প্রতিষ্ঠা করেন ভারত-বাংলাদেশ ছিটমহল বিনিময় সমন্বয় কমিটি। ২০০০ সাল থেকে এই দাবির সমর্থনে গড়ে তোলেন তীব্র আন্দোলন। দীপক সেনগুপ্তের মৃত্যুর পর প্রয়াত বাবার স্বপ্ন পুরণে নাগরিকত্বহীন এসব ছিটমহলবাসীদের পাশে এসে দাঁড়ান তারই ছোট ছেলে দীপ্তিমান সেনগুপ্ত। তিনি এখন ভারত-বাংলাদেশ ছিটমহল বিনিময় সমন্বয় কমিটির যুগ্ম সম্পাদক (ভারত অংশের)। এক দশকের বেশি সময় ধরে দীপ্তিমান সেনগুপ্ত ছিটমহলের মানুষদের জন্য লড়াই চালিয়ে আসছেন। গঠন করেন ভারত-বাংলাদেশ ছিটমহল বিনিময় সমন্বয় কমিটি। এই কমিটির ব্যানারে কার্যত একাই তিনি ছিটমহলের আন্দোলনকে চাঙ্গা করে ভারতের পশ্চিমবঙ্গ ও কেন্দ্রীয় সরকারের টনক নড়িয়েছেন। ছিটমহল বিনিময় আন্দোলনের ফরোয়ার্ড ব্লকের আরেক নেতা ছিলেন কমল গুহ। তিনি পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভার দিনহাটা কেন্দ্রের বিধায়ক হয়েছেন ফরোয়ার্ড ব্লকের প্রার্থী হিসেবে। বাংলাদেশ অংশে ভারত-বাংলাদেশ ছিটমহল বিনিময় সমন্বয় কমিটিরও একটি কমিটি গঠিত হয়ে এই আন্দোলনে যোগ দেয়। বাংলাদেশ অংশে ভারত-বাংলাদেশ ছিটমহল বিনিময় সমন্বয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা। এর পর দু’দেশের নেতারা একত্রে ছিটমহল বিনিময় আন্দোলন জোরদার করেন।

প্রকাশিত : ২৪ মে ২০১৫

২৪/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: