আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৭ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

ভৈরবে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের ভূমি দখলের অভিযোগ

প্রকাশিত : ২৪ মে ২০১৫

নিজস্ব সংবাদদাতা, ভৈরব, ২৩ মে ॥ ভৈরব পৌর এলাকার জগন্নাথপুর গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সম্পত্তি একই এলাকার সাখাওয়াত হোসেন সুজন ও তার ভাই সাজ্জাত হোসেন মামুন কয়েকটি ভুয়া দলিলের মাধ্যমে ক্রয় করে দখল করে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। শনিবার দুপুরে মরহুম মুক্তিযোদ্ধা মতিউর রহমান মাস্টারের কন্যা শাহানা বেগম মিতা ভৈরব প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন করে এ অভিযোগ করেন। এ সময় এলাকার হাজী আব্দুল মান্নান, হাজী মাহাবুব ভূঁইয়া, গোলাম হাবীব, মোঃ কামাল মিয়া, মোঃ নূরুল ইসলাম, হাজী মোঃ ইসমাইল ভূঁইয়া প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

মুক্তিযোদ্ধার কন্যা শাহানা বেগম মিতা অভিযোগ করেন, জগন্নাথপুর এলাকার পাথর ও বালি ব্যবসায়ী সুজন ও মামুন মালামাল রাখার জন্য তার মায়ের কাছ থেকে ২০১০ সালে ৫ বছরের চুক্তিতে ২০ শতাংশ জমি ভাড়া নেয়। উক্ত ভাড়ার মেয়াদ শেষ হলে তাকে জমি খালি করে ভূমিটি তাদের বুঝিয়ে দিতে বলেন। ভূমিটি বুঝিয়ে না দিলে শাহানা বেগম এলাকায় সালিশ করলে আবারও ৪ মাস সময় বৃদ্ধি করে পুনরায় ভাড়া চুক্তি করে। গত ৪ মে এ চুক্তির মেয়াদ শেষ হলে এলাকার কাউন্সিলর আশরাফ আলী ও ভৈরব থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ বদরুল আলম তালুকদারের মাধ্যমে ভূমিটি খালি করতে মৌখিকভাবে ৭ দিনের সময় নেয়। এ সময় পেয়ে ভাড়াটিয়া সুজন শাহানা বেগমের চাচাত ভাই বোন ও মায়ের কাছ থেকে একটি ভুয়া দলিল সৃষ্টি করে কিশোরগঞ্জ আদালত থেকে ভূমিতে একটি নিষেধাজ্ঞা জারি করে।

গত ১২ মে সুজন এলাকার সন্ত্রাসীদের নিয়ে দেয়াল নির্মাণ শুরু করলে শাহানা বেগমের পরিবার বাধা দেয়। তারা বাধা না মানলে শাহান বেগম কিশোরগঞ্জ আদালত থেকে উক্ত ভূমিতে ১৪৪ ধারা জারি করে। ভৈরব উপজেলা নির্বাহী অফিসার জেসমিন আক্তারের হস্তক্ষেপে দেয়াল নির্মাণ স্থগিত করা হয়।

উখিয়ায় যৌতুকের বলি তিন সন্তানের জননী

স্টাফ রিপোর্টার, কক্সবাজার ॥ উখিয়ার ইনানী নুরার ডেইল গ্রামে কহিনুর আক্তার নামে ৩ সন্তানের জননীকে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করেছে শ্বশুরালয়ের লোকজন। পরে ওই হতভাগী কহিনুরের মুখে বিষ ঢেলে দিয়ে আত্ম্যহত্যা বলে চালিয়ে দিতে অপতৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে। শুক্রবার বিকেলে স্বামী আব্দুল গফুর ও শ্বশুর পক্ষের লোকজন তাকে মারধর করে মুখে বিষ ঢেলে দিয়ে হাসপাতালে ভর্তি করালে শনিবার সকালে মারা যায় ডেইলপাড়া গ্রামের ফরিদ আলমের মেয়ে কহিনুর (২৫)। তার পিতা জানান, কয়েক মাস ধরে কহিনুরের স্বামী, শ্বশুর আব্দুস ছবি এবং শাশুড়ি মাহমুদা খাতুন যৌতুকের জন্য তাকে নির্যাতন করে আসছিল। যৌতুক দিতে না পারায় স্বামী ও শ্বশুর পক্ষের লোকজন নির্মমভাবে পিটিয়ে পরবর্তীতে মুখে বিষ ঢেলে দিয়ে হত্যা করেছে।

প্রকাশিত : ২৪ মে ২০১৫

২৪/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

দেশের খবর



ব্রেকিং নিউজ: