মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

বাগেরহাটে হাতির আক্রমণে দুই নারীসহ হত ৩ ॥ ঘরবাড়ি ভাংচুর

প্রকাশিত : ২৪ মে ২০১৫

স্টাফ রিপোর্টার, বাগেরহাট ॥ মোল্লাহাটে হাতির আক্রমণে দুই নারীসহ তিনজন নিহত হয়েছেন। শনিবার সকালে গোপালগঞ্জের ঘোনাপাড়া থেকে শিকল ছিঁড়ে হাতিটি সীমান্তবর্তী মধুমতি নদী সাঁতরে মোল্লাহাট উপজেলায় ঢুকে তা-ব চালায়। হাতিটি তিন গ্রামের অন্তত সাত বাড়িতে আক্রমণ করে ঘরবাড়ি ভাংচুর করে। হাতির আক্রমণে নিহতরা হলেন, সদর উপজেলার যাত্রাপুর এলাকার ইয়াছিন আলীর স্ত্রী মনোয়ার বেগম, মোল্লাহাটের আটজুড়ি ই্উনিয়নের বাসাবাটি গ্রামের ফুল মিয়ার ছেলে মিজানুর রহমান ও উদয়পুর ইউনিয়নের গাড়ফা গ্রামের যতীন্দ্রনাথ বিশ্বসের স্ত্রী কুসুম বিশ্বাস। মনোয়ারা বেগম আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে গিয়েছিলেন। গুরুতর আহতাবস্থায় খুমেক হাসপাতালে নেয়ার পথে তিনি মারা যান।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, পাশের এলাকা ঘোনাপাড়া থেকে হাতিটি আসার পর প্রথমে উদয়পুর ইউনিয়নের গাড়ফা গ্রামে ঢোকে। সেখানে সাতটি ঘর ভাংচুর ও মনোয়ারাকে শূঁড়ে তুলে আছাড় দেয়। এরপর উন্মত্ত হাতিটি শূঁড় তুলে ডাকতে ডাকতে কাহালপুর গ্রামে পথচারী কুসুম বিশ্বাস এবং বাসাবাটি গ্রামে মিজান ফকিরকে হত্যা করে। সকাল সাড়ে সাতটার দিকে হাতিটি যখন ডাকতে ডাকতে দৌড়ে আসছিল, তখন মিজান টিউবওয়েল থেকে পানি নিচ্ছিলেন। হাতিটি পেছন থেকে মিজানকে শূঁড় দিয়ে তুলে আছাড় দেয় এবং পেটে পাড়া দিয়ে নাড়িভুঁড়ি বের করে দেয়। আড়াই/তিন ঘণ্টা ধরে হাতিটি তা-ব চালায়। এ সময় এলাকায় তীব্র আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে।

মোল্লাহাট থানার ওসি আ ন ম খায়রুল আনাম জানান, শনিবার সকালে গোপালগঞ্জের ঘোনাপাড়ায় বেঁধে রাখা পুরুষ হাতিটি শিকল ছিঁড়ে নদী পার হয়ে মোল্লাহাট উপজেলায় ঢুকে পড়ে। হাতির আক্রমণে তিনজন নিহত হওয়ার কথা স্বীকার করে তিনি বলেন, উন্মত্ত এ হাতিটি সার্কাস মালিক আবুল কামাল মোল্লার। আবুল কালাম মোল্লা বলেন, হাতিটি তিনি ভাড়ায় এনে সার্কাস খেলা দেখাচ্ছিলেন।

হাতির মাহুত মোঃ ফারুক জানান, হাতিটির মালিক সিলেটের শ্রীমঙ্গল এলাকার মতিয়ার রহমান। তার আরও একটি পোষা স্ত্রী হাতি আছে। তিনি হাতি দুটি সার্কাস দলের কাছে ভাড়া দেন।

শনিবার বিকেলে এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত হাতিটি মোল্লাহাটের বাসাবাটি গ্রামের আবুল হোসেনের বাঁশবাগানে অবস্থান করছিল। হাতিটি এখন অনেকটাই স্বাভাবিক দাবি করে মাহুত ফারুক বলেন, ‘ওকে শান্ত করে এখান থেকে নিয়ে যেতে সঙ্গী স্ত্রী হাতিটিকে ঘটনাস্থলে আনা হচ্ছে।’ হাতির মালিক হাতিটি সরিয়ে নিতে না পারলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান মোল্লাহাট থানার ওসি খায়রুল আনাম।

প্রকাশিত : ২৪ মে ২০১৫

২৪/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: