মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
৯ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের প্রস্তুতি শুরু

প্রকাশিত : ২২ মে ২০১৫
  • মেয়াদ শেষ হচ্ছে জানুয়ারি ও জুলাইয়ে

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ঢাকা ও চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের পর এবার নির্বাচন কমিশন পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের দিকে নজর দিচ্ছে। এসব নির্বাচনের লক্ষ্যে প্রাথমিক প্রস্তুতির কাজ শুরু করতে আলাপ আলোচনা চলছে বলে জানা গেছে। কমিশন জানিয়েছে দেশের বেশিরভাগ পৌরসভার মেয়াদ আগামী জানুয়ারি মাসের মধ্যে শেষ হচ্ছে। আর দেশের বেশিরভাগ ইউনিয়ন পরিষদের মেয়াদ মার্চ থেকে জুলাইয়ের মধ্যে শেষ হয়ে যাবে। তবে আইন অনুযায়ী মেয়াদ পূর্তির ৬ মাসের মধ্যে ইউনিয়ন পরিষদ ও ৩ মাসের মধ্যেই পৌরসভার নির্বাচন সম্পন্ন করার বিধান রয়েছে। তাই কমিশনের পক্ষ থেকে এখন থেকেই ইউনিয়ন পরিষদ ও পৌরসভার নির্বাচনের প্রাথমিক প্রস্তুতির কাজ শুরু হয়েছে। চলতি বছরের শেষে অথবা আগামী বছরের শুরু থেকে নির্বাচনে কাজ শুরু হবে। এসব নির্বাচনের কাজ শুরু করতে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের সম্মতির অপেক্ষায় রয়েছে কমিশন।

জানা গেছে, বর্তমান কমিশনের সামনে পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদ ছাড়া আর কোন বড় নির্বাচন পরিচালনার বাকি নেই। ইতোমধ্যে দেশের প্রধান প্রধান সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। শেষপর্যায়ে এসে গত ২৮ এপ্রিল ঢাকার উত্তর ও দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনও সম্পন্ন হয়েছে। এর মধ্যে ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর বর্তমান কমিশনের উদ্যোগে তা সম্পন্ন হয়েছে। এর আগে বর্তমান কমিশন দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও এরপরই সারাদেশের উপজেলা পরিষদ নির্বাচন সম্পন্ন করেছে। ফলে এখন তারা পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন করে বিদায় নিতে চায়। প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিবউদ্দীনও সম্প্রতি এক অনুষ্ঠানে বলেন দ্রুতই ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের প্রস্তুতি গ্রহণ করবে নির্বাচন কমিশন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দেশে প্রায় ২৬৯টি পৌরসভার মেয়াদ শেষ হচ্ছে আগামী জানুয়ারির মধ্যেই। পৌরসভা নির্বাচন আইন অনুুযায়ী মেয়াদ শেষ হওয়ার আগের ৯০ দিনের মধ্যেই এসব পৌরসভার নির্বাচন সম্পন্ন করতে হবে। ফলে আইন অনুযায়ী আগামী নবেম্বর ডিসেম্বর মাসেই এসব পৌরসভার নির্বাচন সম্পন্ন করতে হবে। দেশের ৩১৯টি পৌরসভার মধ্যে ২০১১ সালের ১২ জানুয়ারি থেকে ১৮ জানুয়ারি পর্যন্ত চার ধাপে ২৬৯টি পৌরসভার নির্বাচন সম্পন্ন করা হয়। বাকি পৌরসভায় পর্যায়ক্রমে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

এছাড়াও ওই বছরের ২৯ মার্চ থেকে জুলাই পর্যন্ত বিভিন্ন ধাপে সারাদেশে সাড়ে চার হাজারের বেশি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন বিধিমালা অনুযায়ী এসব পরিষদের মেয়াদ শেষের ৬ মাসের মধ্যেই নির্বাচন সম্পন্ন করার বাধ্যবাধকতা রয়েছে। ফলে সরাদেশের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন ও পৌরসভার নির্বাচন পাশাপাশি সময়ের মধ্যেই সম্পন্ন করতে হবে। তবে জানা গেছে, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন আগে হবে না পৌরসভার নির্বাচন আগে হবে, তা কমিশন বসে সিদ্ধান্ত নেবে। পাশাপাশি দুটি পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য কমিশন এখন থেকেই প্রাথমিক প্রস্তুতি শুরু করেছে। আগামী অক্টোবর থেকেই এসব নির্বাচনের কার্যক্রম হাতে নেয়া হতে পারে। পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনও পর্যায়ক্রমে সম্পন্ন করা হবে।

কমিশন সূত্রে জানা গেছে, নতুন অর্থবছরের বাজেটে পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচনের জন্য বাজেটে বরাদ্দ রাখতে অর্থ মন্ত্রণালয়ের কাছে প্রস্তাব পাঠাতে যাচ্ছে ইসি। এর আগে মেয়াদোত্তীর্ণ পৌর ও ইউনিয়ন পরিষদের তালিকা পাঠাতে মাঠপর্যায়ের কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। নির্বাচন কমিশনার মোঃ শাহ নেওয়াজ সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, মেয়াদ উত্তীর্ণ ইউনিয়ন পৌরসভা ও ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন কার্যক্রম আগে শুরু করার উদ্যোগ নেয়া হবে। ইউনিয়ন পরিষদ ও পৌরসভা নির্বাচন আইন অনুযায়ী এ বছরের অক্টোবরের মাঝামাঝি থেকে শুরু করে আগামী বছরের জুন-জুলাইয়ের মধ্যেই এসব নির্বাচন সম্পন্ন করতে হবে।

জানা গেছে, বর্তমান কমিশনের সামনে আর কোন বড় নির্বাচন বাকি নেই। কাজী রকিবউদ্দীন আহমদের নেতৃত্বাধীন বর্তমান কমিশনের মেয়াদও শেষ হবে আগামী ২০১৭ সালের প্রথম দিকে। তবে এ কমিশনের মেয়াদ শেষের আগেই নারায়ণগঞ্জ ও কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে। তবে ওই দুটি সিটি নির্বাচন বর্তমান কমিশনের অধীনে হবে না পরবর্তী কমিশনের অধীনে হবে, তা এখনও নিশ্চিত নয়।

কমিশন জানিয়েছে, বর্তমানে দেশে ৪ হাজার ৫৭১টি ইউনিয়ন পরিষদ ও ৩১৯টি পৌরসভা রয়েছে। সর্বশেষ ২০১১ সালে এটিএম শামসুল হুদার নির্বাচন কমিশন ইউনিয়ন পরিষদ ও পৌরসভা নির্বাচন সম্পন্ন করে। ওই বছরের ১২ থেকে ১৮ জানুয়ারির মধ্যে ২৬৯টি পৌর নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। এছাড়া একই বছরের ২৯ মার্চ থেকে ৩ এপ্রিল উপকূলীয় ২৪ উপজেলার প্রায় ৬শ’ ইউনিয়ন পরিষদে এবং ৩১ মে থেকে ৫ জুলাই দেশের বাকি ইউনিয়ন পরিষদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। স্থানীয় সরকারের এসব পরিষদের মেয়াদ ৫ বছর। ইউনিয়ন পরিষদ ও পৌরসভা আইন অনুযায়ী ৫ বছরের মেয়াদ শেষ হওয়ার আগের ছয় মাসের মধ্যে ইউনিয়ন পরিষদ এবং মেয়াদ শেষ হওয়ার আগের ৩ মাসের মধ্যে পৌরসভায় নির্বাচন আয়োজনের বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

প্রকাশিত : ২২ মে ২০১৫

২২/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: