কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

ফিফটি শেডস অফ গ্রে

প্রকাশিত : ২১ মে ২০১৫
  • নিবিড় লতিফুল বারী

পরিচালক স্যাম টেলর জনসন। তবে মূল উৎস কিন্তু একই শিরোনামে ই এল জেমস-এর বেস্ট সেলিং উপন্যাস। এ সিনেমাটিকে ঘিরে দর্শকদের আগ্রহ ছিল চরম। কারণ প্রথমত, মুক্তির তারিখ ছিল ভ্যালেন্টাইন ডে। ট্রেলারের সুবাদে সবাই জানতো রোমান্টিক ফিল্ম। তবে সেখানে এতো বেশি যৌনতার দেখা মিলেছে যে, দর্শকদের আর তর সইছিলো না। ফলাফল সিনেমা হলে হুমড়ি খেয়ে পড়া এবং রেকর্ড পরিমাণ আয়। হ্যাঁ, ২০১৫ সালে হলিউডের পর্দা কাঁপানো ফিফটি শেডস অফ গ্রে ফিল্মের কথাই হচ্ছিলো। এ ছবির মূল দুটি চরিত্রে অভিনয় করেছে জেমি ডোরনান ও ডাকোটা জনসন। মূলত একজন ধনাঢ্য ব্যক্তি গ্রের কাছে ইন্টারভিউ দিতে যাওয়া সুন্দরী তরুণী অ্যানাস্তাসিয়া স্টিলের সঙ্গে গড়ে ওঠা মন দেয়া-নেয়ার সম্পর্ককে ঘিরেই আবর্তিত হয়েছে পুরো সিনেমা।

ক্রিশ্চিয়ান গ্রের ভূমিকায় প্রথমে অভিনয় করার কথা ছিল ‘টোয়াইলাইট’ সিনেমার রবার্ট প্যাটিনসনের। কিন্তু প্রযোজক দল সে চিন্তা বাদ দেন কারন উপন্যাসের চরিত্রের সঙ্গে পুরোপুরি মিলছিলো না বলে। পরবর্তীতে আরও বেশকিছু অভিনেতার খোঁজ করা হলো। কিন্তু শিডিউল ঝামেলায় আটকে যায় সবই। শেষ পর্যন্ত জেমি ডোরনান; এ এসে সমাধান। সঙ্গে থাকলেন সোশ্যাল নেটওয়ার্ক, ফক্স, নিড ফর স্পিড প্রভৃতি ছবিতে অভিনয় করা ডাকোটা জনসন।

আর এমন সাহসী দৃশ্যে অভিনয়ের ব্যাপারে সাহস পেয়েছেন কিভাবে ডাকোটা জনসন? শোনা যাক তার মুখেই। ‘এক্ষেত্রে পারিবারিক প্রভাব কাজ করেছে খানিকটা। আমার নানা ছিলেন খ্যাতিমান শিশুশিল্পী পিটার গ্রিফিথ এবং নানী ছিলেন গোল্ডেন গোব জয়ী অভিনেত্রী টিপ্পি হেড্রেন যিনি কিনা আবার হিচককের তুমুল ভক্ত। এছাড়া বাবা মা অভিনয় জগতের মানুষ হওয়ায় আমার যে কোন চরিত্রে নিজেকে মানিয়ে নিতে বেগ পেতে হয় না’। উল্লেখ্য ডাকোটার বাবা গুণী অভিনেতা ডন জনসন এবং মা অভিনেত্রী ম্যালেনি গ্রিফিথ। এছাড়া আরেকটি বিষয় রয়ে যায় আর তা হলো অভিনেতা অ্যান্টনিও ব্যান্ডেরাস ডাকোটার স্টেপ ফাদার। সুতরাং ‘আমি নগ্নতা নিয়ে ভীত নই কারণ নারী মাত্রই সৌন্দর্য, আর অভিনয়ের সময় সেটে এক গাদা লোকের সামনে শরীর থেকে কাপড় খুলে ফেলা খুব একটা কঠিন কিছু নয়, যখন সবাই এটাকে সহজভাবে নিচ্ছে’ এমন উক্তি করতেই পারেন ডাকোটা জনসন।

উপযুক্ত দৃশ্যায়নে সেট ডিজাইন একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আর দায়িত্বে যারা ছিলেন তারা কিন্তু মোটেও অনভিজ্ঞ কেউ ছিলেন না। ‘পাল্প ফিকশন’ ছবির সেট ডিজাইন এদের হাতেই গড়া। তারা হলেন ডেভিড এবং স্যান্ডি দ¤পতি। তাদের মনোরম সেট ছিল বলেই কিনা দৃশ্যগুলো মাথায় আটকে গেছে দর্শকদের আর কলাকুশলীরাও কাজ করেছেন স্বাচ্ছন্দ্যে।

তবে এ ছবির বিশ্বব্যাপী ৫২৮ মিলিয়ন ডলার আয় করার পর এ জুটি এখন দাবি করতেই পারেন আগামী সিরিজগুলোতে পারিশ্রমিক বাড়িয়ে দেয়ার। কারণ তাদের ইরোটিক অভিনয় এবং দর্শকদের হলে ধরে রাখা। অবশ্য ইতোমধ্যে তা করেছেনও। হ্যাঁ, ফিফটি শেডস অফ ডার্কার এবং ফিফটি শেডস অফ ফ্রিড নির্মাণের ঘোষণা দিয়ে ফেলেছেন প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান যেখানে, এ দুজনেরই কেন্দ্রীয় চরিত্রে থাকার কথা।

প্রকাশিত : ২১ মে ২০১৫

২১/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: