কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

নজরুলজয়ন্তী উপলক্ষে চারদিনের অনুষ্ঠান শুরু কাল

প্রকাশিত : ২১ মে ২০১৫
  • সংস্কৃতি সংবাদ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১১৬তম জন্মবার্ষিকী উদ্যাপন উপলক্ষে চার দিনব্যাপী এক বর্ণাঢ্য আয়োজন করেছে নজরুল একাডেমি। একইসঙ্গে স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের ৪৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীও মর্যাদার সঙ্গে পালন করবে সংগঠনটি। শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় সঙ্গীত ও নৃত্যকলা কেন্দ্র মিলনায়তনে আগামীকাল শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৫টায় অনুষ্ঠানমালার উদ্বোধন করবেন কবি পুত্রবধূ বেগম উমা কাজী। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি থাকবেন সঙ্গীতশিল্পী সুজিত মোস্তফা, অধ্যাপক ড. নাশিদ কামাল, ইয়াকুব আলী খান ও কবি নাতনি বেগম খিলখিল কাজী। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন সংগঠনের সহ-সভাপতি আব্দুল মান্নান। এ উপলক্ষে জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে বুধবার দুপুরে এক সংবাদ সম্মেলন হয়। এতে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সহ-সভাপতি সৈয়দ আখতার ইউসুফ ও আব্দুল মান্নান, সাধারণ সম্পাদক মিন্টু রহমান এবং প্রচার সম্পাদক রেজা মতিন। সংগঠনের সাধারণ সম্পাদকের লিখিত বক্তব্য পাঠের মধ্যদিয়ে শুরু হয় সংবাদ সম্মেলন। এতে জানানো হয়, আমাদের জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বাঙালী জাতির বিবেক। প্রতি বছরের ন্যায় এবারও আমরা বর্ণাঢ্য আয়োজনে তাঁর জন্মদিনকে পালন করতে যাচ্ছি। যে সকল শিল্পী নজরুলের গানকে বাঁচিয়ে রাখার ক্ষেত্রে বিশেষ অবদান রেখেছেন এ অনুষ্ঠানের মধ্যদিয়ে আমরা বিশেষভাবে তাঁদেরও স্মরণ করতে চাই। ধারাবাহিকতায় নজরুল সঙ্গীতের স্বর্ণযুগ সৃষ্টিকারী শিল্পীরা হলেনÑ আলাউদ্দীন আহমদ, আঙ্গুরবালা দেবী, কমল দাশগুপ্ত, ফিরোজা বেগম ও মানবেন্দ্র মুখোপাধ্যায়। চার দিনব্যাপী এ আয়োজনে থাকবে ধারাবাহিকতার স্বর্ণযুগের নজরুল সঙ্গীত শিল্পীদের স্মরণ, গবেষণাধর্মী নজরুল একাডেমি পত্রিকার ৪৬ বর্ষের ৪২তম সংখ্যা প্রকাশ, অধ্যাপক মুহম্মদ মতিউর রহমান প্রণীত গবেষণাধর্মী ‘গদ্যশিল্পী নজরুল’ গন্থের মোড়ক উন্মোচন, নজরুল সঙ্গীত, নৃত্য ও আবৃত্তি পরিবেশন। উদ্বোধনী দিনে ‘নজরুল সঙ্গীত’ শীর্ষক প্রবন্ধ পাঠ করবেন মিন্টু রহমান। প্রতিদিন সান্ধ্য অধিবেশনে থাকবে নজরুল সঙ্গীত, আবৃত্তি ও নৃত্য। অনুষ্ঠানমালার দ্বিতীয় দিন বিকেল সাড়ে ৫টা থেকে শুরু হবে মান উন্নয়নমূলক অনুষ্ঠান এবং দেশের বিভিন্ন জেলা ও ঢাকার শিল্পীদের পরিবেশনায় সঙ্গীতানুষ্ঠান। তৃতীয় দিন সন্ধ্যায় নজরুলের কবিতা আবৃত্তির পাশাপাশি থাকবে ‘বাদল বরিষণে’ শীর্ষক নৃত্যনাট্য। শেষ দিনে সন্ধ্যায় স্বাধীনবাংলা বেতার কেন্দ্রের ৪৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ৫ জন কৃতি শব্দসৈনিকদের সম্মাননা প্রদান করা হবে।

প্রতীক থিয়েটারের আয়োজনে র‌্যালি, আলোচনা ও নাটক মঞ্চস্থ ॥ চা বাগানের বসবাসরত লছমীদের ভাগ্যাকাশে আজ দুর্যোগের ঘনঘটা। ক্ষুধা দারিদ্রের নিষ্ঠুর কষাঘাতে জর্জারিত এ শ্রমিক সমাজ। তাদের দুঃখ-কষ্ট, বঞ্চনা, কৃষ্টি-সংস্কৃতিকে ২৯ বছর যাবত নাটকের মাধ্যমে মঞ্চের আলোয় প্রদর্শন করে আসছে প্রতীক থিয়েটার। ১৯২১ সালের ২০ মে চা শ্রমিকদের ওপর ইংরেজদের বর্বরোচিত অত্যাচারকে স্মরণ করে র‌্যালি, আলোচনা ও নাটক মঞ্চস্থ হয় মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরে বুধবার বিকেলে। প্রতীক থিয়েটার আয়োজিত এ আলোচনানুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি ছিলেন মানবাধিকার কর্মী এ্যাডভোকেট সুলতানা কামাল, প্রধান অতিথি ছিলেন সংসদ সদস্য এ্যাডভোকেট মাহবুব আলী, বিশেষ অতিথি ছিলেন মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্রাস্টি ডাঃ সারওয়ার আলী, বাংলাদেশ গ্রুপ থিয়েটার ফেডারেশনের সভাপতিম-লীর সদস্য ঝুনা চৌধুরী ও সেক্রেটারি জেনারেল আকতারুজ্জামান, বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলনের যুগ্ম-সম্পাদক শরীফ জামিল ও সাধারণ সম্পাদক তোফাজ্জল সোহেল। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি অবিরত বাকতী। শুরুতে ১৯২১ সালে নিহত চা শ্রমিকদের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। পরে স্বাগত বক্তব্য রাখেন প্রতীক থিয়েটারের কর্ণধার সুনীল বিশ্বাস। বক্তারা বলেন, অবিভক্ত ভারতের বিভিন্ন প্রদেশ থেকে জীবিকার সন্ধানে আসা চা শ্রমিকরা সিলেট ও চট্টগ্রাম অঞ্চলে বংশপরম্পরায় বসবাস করে আসছে। তাদেরও স্বপ্ন ছিল ডাল ভাত খেয়ে বেঁচে থাকার। সেই স্বপ্নকে লালন করে জঙ্গল, পাহাড়-পর্বত কেটে চা বাগান গড়ে তোলে। তৎকালীন ইংরেজ শাসকরা তাদের ওপর চালায় শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন। সুন্দরী মেয়েরাও রেহাই পায়নি তাদের হাত থেকে। বুটের লাথি, চাবুকের আঘাত ছিল তাদের নিত্য দিনের পাওনা। এক সময় অসহায় হয়ে ১৯২১ সালের ২০ মে এ দেশ ছেড়ে নিজেদের জন্মস্থান মুল্লুকে যাওয়ার জন্য সিলেট রেল স্টেশনে জমায়েত হয়। তাদের রেলগাড়িতে উঠতে দেয়া হয়নি। অসহায় হয়ে চা শ্রমিকরা রেললাইন ধরে হাঁটতে থাকে। অনাহারে অনেকে পথিমধ্যে মারা যায়। জাহাজে ওঠার জন্য বর্তমান চাঁদপুরের গোমতী নদীর তীরে সমবেত হয়। তখন তাদের ওপর গুর্খা বাহিনী লেলিয়ে দেয়া হয়। নির্বিচারে হত্যা করা হয় তাদের। ২০ মে সেই শোকাবহ দিনটিকে কালো দিবস হিসেবে স্মরণ করছে প্রতীক থিয়েটার। আলোচনা শেষে ১৯২১ সালের ২০ মে চা শ্রমিকদের মুল্লুকে চল ঘটনা অবলম্বনে সুনীল বিশ্বাসের রচনা, প্রতীক থিয়েটারের প্রযোজনায় মঞ্চস্থ হয় নাটক ‘নিজভূমে পরবাসী’।

আলোচনা ও গানে স্বাধীনতা সংসদের ২৪তম বর্ষপূর্তি পালন ॥ আলোচনা ও গানে ২৪তম বর্ষপূর্তি পালন করলো সাংস্কৃতিক সংগঠন ‘স্বাধীনতা সংসদ’। বুধবার বিকেলে শাহবাগের জাতীয় জাদুঘরের কবি সুফিয়া কামাল মিলনায়তনে এ আয়োজন অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন সমাজকল্যাণ প্রতিমন্ত্রী এ্যাডভোকেট প্রমোদ মানকিন। অনুষ্ঠানে প্রধান আলোচক ছিলেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সদস্য সংসদ সদস্য এ্যাডভোকেট হোসনেয়ারা বাবলী। এছাড়াও এ সময় এ আয়োজনে সংগঠনের ভাইস চেয়ারম্যান সাহাবুদ্দিন আহমেদ সাবুর সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথি ছিলেন- মেঘনা ব্যাংক লিমিটেডের ভাইস-চেয়ারম্যান আব্দুল আলিম খান সেলিম, মাই টিভির হেড অব নিউজ মাহমুদ আল ফয়সাল, নাটক নির্মাতা মঞ্জুশ্রী বিশ্বাস, আমেরিকা-অস্ট্রেলিয়া-বাংলাদেশ ফ্রেন্ডশীপ হাসপাতালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ জাহাঙ্গীর সেলিম। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন সংগঠনের মহাসচিব- সাহেদ আহাম্মদ।

প্রকাশিত : ২১ মে ২০১৫

২১/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: