কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৩ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

কলকাতা-আগরতলা ভায়া ঢাকা বাস সার্ভিস চালু হচ্ছে

প্রকাশিত : ২১ মে ২০১৫
  • ঢাকা-শিলং-গুয়াহাটি রুটে কাল থেকে পরীক্ষামূলক চলাচল শুরু

তৌহিদুর রহমান ॥ কলকাতা-আগরতলা সরাসরি বাস সার্ভিস চালু হচ্ছে। কলকাতা থেকে ঢাকা হয়ে আগরতলায় এই বাস চলাচল করবে। এ বিষয়ে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে একটি সমঝোতা চুক্তি হচ্ছে। এছাড়া আগামীকাল শুক্রবার থেকে পরীক্ষামূলকভাবে ঢাকা-শিলং-গুয়াহাটি বাস সেবা চালু হচ্ছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র এ তথ্য জানায়।

সূত্র জানায়, ঢাকা থেকে কলকাতা রুটে বাস সেবা চালু রয়েছে। ঢাকা থেকে আগরতলাও বাস চলে। তবে কলকাতা থেকে আগরতলায় সরাসরি কোন বাস সার্ভিস নেই। কলকাতা থেকে আগরতলায় যেতে হলে মাঝখানে ঢাকায় এসে বাস বদল করতে হয়। তবে এবার প্রথমবারের মতো কলকাতা-আগরতলা রুটে সরাসরি বাস সেবা চালু হচ্ছে।

কলকাতা থেকে ঢাকা হয়ে আগরতলায় সরাসরি এই বাস সেবা চালুর জন্য ইতোমধ্যেই দুই দেশ ঐকমত্যে পৌঁছেছে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আসন্ন ঢাকা সফরের সময় এ বিষয়ে বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে একটি সমঝোতা চুক্তির প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে।

কলকাতা-আগরতলা ভারতের অভ্যন্তরীণ রুটে বিমান ও রেলপথ চালু রয়েছে। বিমান পথ বাদ দিয়ে পশ্চিমবঙ্গ থেকে ত্রিপুরায় যাতায়াত করতে সময় লাগে প্রায় দু’দিন। কলকাতা থেকে গুয়াহাটি হয়ে ত্রিপুরার সড়ক পথের দৈর্ঘ্য এক হাজার ৬৮০ কিলোমিটার। আর ত্রিপুরা থেকে ঢাকা হয়ে কলকাতার দূরত্ব ৪৭০ কিলোমিটার। সে কারণে ত্রিপুরাবাসী অনেকদিন থেকেই বাংলাদেশের মধ্যে দিয়ে সরাসরি আগরতলা-কলকাতা রুটে বাস সার্ভিস চালুর জন্য অনুরোধ জানিয়ে আসছে। কলকাতা থেকে আগরতলায় সরাসরি যেতে ১৪ থেকে ১৫ ঘণ্টা সময় লাগবে। কোলকাতার সল্টলেক বাসস্ট্যান্ড থেকে আগরতলার উদ্দেশ এই বাস ছাড়বে। সপ্তাহে তিন দিন এই বাস চলাচল করবে। প্রাথমিকভাবে এই বাসের ভাড়া হবে প্রায় দুই হাজার টাকা। এই বাস সেবার মাধ্যমে পশ্চিমবঙ্গ ও ত্রিপুরার জনগণ বেশি লাভবান হবে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, কলকাতা-আগরতলায় বাস সেবা চালুর জন্য নতুন করে খুব বেশি কিছু করতে হবে না। কারণ ঢাকা থেকে কলকাতা ও ঢাকা থেকে আগরতলায় ইতোমধ্যেই বাস সেবা চালু রয়েছে। এসব বাসই সরাসরি ঢাকা-আগরতলা বাস সেবা চালু করতে পারবে। ফলে খুব সহজেই এই বাস সেবা চালু করা যাবে। এই বাস সার্ভিস চালু হলে ত্রিপুরা ও পশ্চিমবঙ্গের যাত্রীদের সময় ও অর্থ-দুটোই বাঁচবে।

এর আগে ১৯৯৯ সালের জুলাই মাসে ঢাকা-কলকাতা বাস সেবা চালু হয়। বর্তমানে ৪০ আসনের একটি বাস প্রতিদিন ঢাকা-কলকাতা চলাচল করে থাকে। এই বাসগুলো আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন ও প্রতি আসনের ভাড়া দেড় হাজার টাকা। এ ছাড়াও ২০০৩ সালে ঢাকা-আগরতলা বাস সেবা শুরু হয়েছে। এ রুটের বাস ভাড়া ৬০০ টাকা। সূত্র জানায়, যোগাযোগ মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বর্তমানে দিল্লীতে অবস্থান করছেন। ওবায়দুল কাদের সেখানে ভারতের কেন্দ্রীয় সড়ক পরিবহন মন্ত্রী নিতিন জয়রাম গড়কড়ির সঙ্গে বৈঠক করেছেন। বৈঠকে দুই দেশের মধ্যে সড়কপথে যোগাযোগ বাড়ানোর বিষয়ে তারা একমত হয়েছেন। দুই মন্ত্রীর মধ্যে বৈঠকে কলকাতা-ঢাকা আগরতলা ও ঢাকা-শিলং-গুয়াহাটি বাস সার্ভিস চালুর বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।

দুই দেশের মধ্যে বৈঠকে শিলং থেকে চট্টগ্রাম, কলকাতা থেকে চট্টগ্রাম, কলকাতা থেকে খুলনা, কলকাতা থেকে যশোর রুটে বাস সেবা চালুর জন্য প্রাথমিকভাবে আলোচনা হয়েছে। এছাড়া বৈঠকে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে ভারত থেকে ৫০০ ট্রাক ও ৪০০ ডাবলডেকার বাস কেনার প্রস্তাব দেয়া হয়েছে। ভারতের নতুন ক্রেডিট লাইনের আওতায় এসব ট্রাক ও বাস কিনতে চায় বাংলাদেশ। বৈঠকে বলা হয়, ২০১০ সালের ভারতের ক্রেডিট লাইনের আওতায় বাংলাদেশ ইতোমধ্যেই ভারত থেকে ৯৫৮ বাস ক্রয় করেছে।

জানা গেছে দুই প্রতিবেশী দেশের মধ্যে যোগাযোগ সুবিধা বাড়ানোর লক্ষ্যে আগামীকাল শুক্রবার থেকে ঢাকা-শিলং-গুয়াহাটি রুটে পরীক্ষামূলকভাবে বাস সেবা চালু হচ্ছে। এই বাস সেবা চালুর লক্ষ্যে ঢাকা-দিল্লীর দুটি কারিগরি বিশেষজ্ঞ কমিটি গত এক বছর ধরে কাজ করেছে। কারিগরি বিশেষজ্ঞ কমিটির ভারতীয় প্রতিনিধি দল বাংলাদেশে এসেছেন। পরে বাংলাদেশ প্রতিনিধি দল ভারতে যায়। সবদিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার মাধ্যমে দুই দেশ এখন এই বাস সেবা চূড়ান্ত করা হয়েছে।

২০০২ সালে ঢাকা-শিলং বাস সেবা চালু করার প্রস্তাব থাকলেও বারো বছর ধরে এর বাস্তবায়ন হয়নি। তবে এখন ঢাকা থেকে শিলং পর্যন্ত সরাসরি বাস চলবে। এর ফলে দুই দেশের মধ্যে পর্যটন ব্যাপক বৃদ্ধি পাবে। এর আগে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ গত বছর ২৫-২৭ জুন তিন দিনের ঢাকা সফর চলাকালে এই বাস সেবা শুরু করার প্রস্তাব দেন। ওই সময় দু’পক্ষই এ সেবা চালুর ব্যাপারে ঐকমত্যে পৌঁছায়। ঢাকা থেকে গুয়াহাটির দূরত্ব ৩০৯ কিলোমিটার। বাসের গতি ঘণ্টায় ৫০ কিলোমিটার হলেও ঢাকা থেকে গুয়াহাটি পৌঁছাতে সময় লাগবে ৬ ঘণ্টা ১৮ মিনিট। ঢাকা থেকে যাত্রা শুরু করে সিলেট হয়ে মেঘালয়ের শিলং দিয়ে আসামের গুয়াহাটি যাবে বাসটি।

মেঘালয়ের সঙ্গে আকাশপথে সরাসরি যোগাযোগ স্থাপন করা হয়েছে। ঢাকা ও গুয়াহাটির মধ্যে ইতোমধ্যেই বিমান চলাচল শুরু হয়েছে। ঢাকা-গুয়াহাটির মধ্যে গত বছর মার্চ থেকে প্রতি সপ্তাহে মঙ্গলবার ও শুক্রবার, এই দুদিন বিমান চলাচল করছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পশ্চিমবঙ্গ, অসম, ত্রিপুরা ও ঢাকার মধ্যে বাস ও বিমান পথে যোগাযোগ বাড়লে ব্যবসা-বাণিজ্য সম্প্রসারণের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে। দেশের আমদানি-রফতানি বাণিজ্য বাড়বে দ্বিগুণ। আর এখন ঢাকা-গুয়াহাটি ও কলকাতা-আগরতলার মধ্যে বাস চলাচল শুরু হলে দুই দেশের মানুষের সুবিধা হবে।

প্রকাশিত : ২১ মে ২০১৫

২১/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: