কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

হাইকোর্টের রুল আট সপ্তাহে নিষ্পত্তির নির্দেশ দিল আপীল বিভাগ

প্রকাশিত : ১৯ মে ২০১৫, ১২:৪১ এ. এম.
  • বিষয় যমুনা রিসোর্ট

স্টাফ রিপোর্টার ॥ যমুনা রিসোর্টের বিষয়ে হাইকোর্টের দেয়া রুল আট সপ্তাহের মধ্যে নিষ্পত্তি করতে নির্দেশ দিয়েছে আপীল বিভাগ। প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহার নেতৃত্বে আপীল বিভাগের চার সদস্যের বেঞ্চ সোমবার বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের লিভ টু আপীল নিষ্পত্তি করে এই আদেশ দেয়। সেইসঙ্গে যমুনা রিসোর্টে স্থিতাবস্থার আদেশও বহাল রেখেছে সর্বোচ্চ আদালত। এর ফলে যমুনা রিসোর্টের স্থাপনা ও অবস্থান সেতু কর্তৃপক্ষের তত্ত্বাবধানেই থাকছে বলে জানিয়েছেন তাদের আইনজীবী আবদুন নূর দুলাল।

আদেশের পর তিনি সাংবাদিকদের বলেন, আপীল বিভাগ আট সপ্তাহের মধ্যে হাইকোর্টে রুল নিষ্পত্তি করতে বলেছে। এই রুলের নিষ্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত স্থিতাবস্থা বহাল থাকবে। যমুনা রিসোর্টের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার রফিক-উল হক। তাকে সহায়তা করেন ব্যারিস্টার মারগুব কবির। আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন এ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম।

বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্ব তীরে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর ও কালিহাতী উপজেলায় অবকাশযাপন কেন্দ্র গড়ে তুলতে ১৯৯৯ সালের ২১ নবেম্বর বাংলাদেশ সেতু কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে ৩০ বছর মেয়াদে প্রায় ১৬২ হেক্টর জমি ইজারা নেয় যমুনা রিসোর্ট কর্তৃপক্ষ। কিন্তু চুক্তি অনুসারে পাওনা পরিশোধ ও সার্টিফিকেট অব স্যাটিসফেকশন (সিএস) স্বাক্ষর না করার কারণ দেখিয়ে জেআরএলের সঙ্গে ওই চুক্তি বাতিলের সিদ্ধান্ত নেয় সেতু কর্তৃপক্ষ। এর ধারাবাহিকতায় ১ এপ্রিল চুক্তি বাতিলের নোটিস দেয়া হলে জেআরএল কর্তৃপক্ষ ঢাকা জেলা জজ আদালতে সালিশী মামলা করে।

আদালত প্রাথমিক শুনানি নিয়ে ২ এপ্রিল ওই সিদ্ধান্তের ওপর স্থিতাবস্থা দেয়। আর শুনানি শেষে ২২ এপ্রিল আবেদনটি খারিজ করে দেয় আদালত। এর বিরুদ্ধে জেআরএল হাইকোর্টে গেলে বিচারপতি নজরুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি আমির হোসেনের বেঞ্চ গত ২৩ এপ্রিল নোটিস স্থগিতের পাশাপাশি রুল জারি করে। জেআরএলের মামলা খারিজের আদেশ কেন বাতিল ঘোষণা করা হবে না- রুলে তা সেতু কর্তৃপক্ষের কাছে জানতে চায় হাইকোর্ট। সেই সঙ্গে নোটিসের কার্যকারিতা তিন মাসের জন্য স্থগিত করে। ওই আদেশ স্থগিতের আবেদন নিয়ে রাষ্ট্রপক্ষ গত ২৬ এপ্রিল চেম্বার আদালতে গেলে বিচারক বিষয়টি শুনানির জন্য আপীল বিভাগের নিয়মিত বেঞ্চে পাঠিয়ে দেন। সেই সঙ্গে যমুনা রিসোর্টের ওপর স্থিতাবস্থা দেন বিচারক। পরে ৩০ এপ্রিল শুনানি করে আপীল বিভাগ নিয়মিত লিভ টু আপীল করতে বলে।

প্রকাশিত : ১৯ মে ২০১৫, ১২:৪১ এ. এম.

১৯/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: