আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৭ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

২৫ মার্চকে গণহত্যা দিবস ঘোষণা করতে হবে ॥ শাহরিয়ার কবির

প্রকাশিত : ১৯ মে ২০১৫

স্টাফ রিপোর্টার, খুলনা অফিস ॥ একাত্তরের ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির সভাপতি, লেখক-সাংবাদিক শাহরিয়ার কবির বলেন, বর্তমান সরকার গণহত্যাকারীদের বিচার করলেও আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপটে এর গুরুত্ব সম্পর্কে নীতি নির্ধারকদের ধারণা স্বচ্ছ নয়। এই বিচারের গুরুত্ব অনুধাবন করলে সরকারকে ‘২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস’ ঘোষণা করতে হবে এবং এই দিনটিকে আন্তর্জাতিক গণহত্যা দিবস হিসেবে জাতিসংঘের স্বীকৃতি অর্জনের জন্য যা কিছু করা দরকার তা করতে হবে। তিনি বলেন, গণহত্যার শিকার একটি দেশ ও জাতি যদি দৃঢপ্রতিজ্ঞ হয় তাহলে ঘটনার ৪০ বছর পরও এর বিচার হতে পারে এবং আন্তর্জাতিক আদালতে না গিয়েও কিংবা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে নিয়ে অত্যন্ত ব্যয়বহুল ও জটিল হাইব্রিড কোর্ট গঠন না করেও যে গণহত্যা, মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ, শান্তির বিরুদ্ধে অপরাধ, যুদ্ধাপরাধ; জেনেভা কনভেশন, ভিয়েনা কনভেনশনের মতো আন্তর্জাতিক বিধানের লঙ্ঘনকারীদের বিচার নিজস্ব আইনে নিজস্ব আদালতে করা সম্ভব। এই উদাহরণ সৃষ্টি করে আন্তর্জাতিক বিচার ব্যবস্থায় এক মাইলফলক স্থাপন করেছে বাংলাদেশ।

তিনি সোমবার বিকেলে খুলনা প্রেসক্লাব মিলনায়তনে ১৯৭১ : গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘর ট্রাস্টের প্রথম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত দু’দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের সমাপনীতে পুরস্কার বিতরণ শহীদ স্মারক বক্তৃতা অনুষ্ঠানে স্মারক বক্তার বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিশিষ্ট ইতিহাসবিদ, গবেষক ১৯৭১ : গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘর ট্রাস্টের সভাপতি প্রফেসর ড. মুনতাসীর মামুন। স্বাগত বক্তব্য রাখেন ট্রাস্টি সম্পাদক ডাঃ শেখ বাহারুল আলম। অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বরেণ্য চিত্রশিল্পী ১৯৭১ : গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘর ট্রাস্টের ট্রাস্টি হাশেম খান ও ট্রাস্টি খুলনা প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (কুয়েট) উপাচার্য প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আলমগীর।

অনুষ্ঠানে ১৯৭১ : গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘর ট্রাস্টের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে অনুষ্ঠিত রচনা ও চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগিতার বিজয়ী ৮ শিক্ষার্থীকে পুরস্কার তুলে দেন কুয়েটের উপাচার্য প্রফেসর ড. মুহাম্মদ আলমগীর। বাংলাদেশ ইতিহাস সম্মিলনীর সৌজন্যে এ পুরস্কার দেয়া হয়।

এর আগে বেলা ১১টায় খুলনা মহানগরীর খালিশপুর মুন্সীবাড়ির গণহত্যা স্মৃতিফলক পুনর্স্থাপন করেন বিশিষ্ট ইতিহাসবিদ, গবেষক ১৯৭১ : গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘর ট্রাস্টের সভাপতি প্রফেসর ড. মুনতাসীর মামুন। গত বছর ১৭ মে ১৯৭১ : গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘর ট্রাস্টের পক্ষ থেকে এই স্মৃতিফলকটি স্থাপন করা হয়।

প্রকাশিত : ১৯ মে ২০১৫

১৯/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: