কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

চরাঞ্চলের ৫ লাখ মানুষের ঈদের দিন, উৎসবের দিন

প্রকাশিত : ১৭ মে ২০১৫

বিশেষ প্রতিনিধি, চাঁপাইনবাবগঞ্জ থেকে ॥ “স্বাধীনতার ৪৪ বছর ধরেই ছিটমহলের মতোই আমরা ছিলাম নিজ দেশে বিচ্ছিন্ন। নয়টি ইউনিয়নের ৫ লাখ মানুষকে জেলা সদরে আসতে কী ভীষণ কষ্ট-দুর্দশা পোহাতে হয়েছে তা ভাষায় বলার নয়। কোমরপানি ডিঙ্গিয়ে, কাদা-মাটির দীর্ঘ পথ পেরিয়ে শহরের আসতে হয়েছে। দক্ষিণাঞ্চল মানুষের স্বপ্ন যেমন ‘পদ্মা সেতু’, ঠিক তেমনি আমাদের নয়টি ইউনিয়নের মানুষের কাছে স্বপ্ন ছিল মহানন্দা দ্বিতীয় সেতু। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমাদের সেই স্বপ্নের সেতু উদ্বোধন করে জেলা শহরের সঙ্গে সেতুবন্ধনে আবদ্ধ করলেন। এ অঞ্চলের লাখো মানুষের কাছে সত্যিই আজ ঈদের আনন্দের দিন, উৎসবের দিন।”

শনিবার দুপুরে দেশের সীমান্ত জেলা চাঁপাইনবাবগঞ্জের দ্বিতীয় মহানন্দা নদীর সাহেবের ঘাটের কাছে ৪৯ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত ৫৪৬ মিটার দীর্ঘ সেতুটির উদ্বোধনের সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে এই ৪৪ বছরের দুঃখ-দুদর্শার বর্ণনা করতে গিয়ে এসব কথা বলেন এ অঞ্চলের বাসিন্দা আইএমইডির পরিচালক তাসকেরা খাতুন।

শুধু তাসকেরা খাতুনই নন, এ অঞ্চলের লাখ লাখ মানুষের মুখেই ছিল স্বস্তি-প্রশান্তির হাসি। দীর্ঘ এ পথে অবহেলিত-বঞ্চিত সীমান্ত ঘেঁষা চরাঞ্চলের মানুষ তপ্ত রৌদ্রের মধ্যে দাঁড়িয়ে হাত নেড়ে, স্লোগান দিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করতে এতটুকুও ভুলে যাননি। কৃতজ্ঞতার বহির্প্রকাশ ঘটে সেতুটির নামকরণের ক্ষেত্রেও। এ অঞ্চলের লাখো মানুষের প্রচ- দাবির প্রেক্ষিতে এলজিআরডি মন্ত্রণালয় সেতুটির নাম ‘শেখ হাসিনা সেতু’ নামকরণে বাধ্য হয়। চরাঞ্চলের এ নয়টি ইউনিয়নের ৮০ ভাগই হচ্ছে আমবাগান। সেতুটি নির্মাণের ফলে আমচাষীদের বৈপ্লবিক উন্নয়নের মহাসড়কে উন্নীত হলো।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা সদরের নামোশঙ্করবাটী জিসি-ধূলাউড়া জিসি সড়কে মহানন্দা নদীর ওপর নবনির্মিত এ সেতু উদ্বোধনের মাধ্যমে অবহেলিত চরাঞ্চলের মানুষের স্বপ্নের দ্বার খুলে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ সেতু নির্মাণের পুরো টাকারই যোগান দিয়েছে সরকার। সত্যিকার অর্থেই চরাঞ্চলের সঙ্গে জেলা সদরের সেতু বন্ধনের সৃষ্টি করেছে নবনির্মিত এ সেতু। সেতুটি উদ্বোধনের মাধ্যমে চরাঞ্চলের এ নয়টি ইউনিয়নের মানুষের ভাগ্যে আমূল পরিবর্তন ঘটছে।

শনিবার ঢাকা থেকে হেলিকপ্টারযোগে চাঁপাইনবাবগঞ্জ হেলিপ্যাডে নামার পর সাড়ে ১২টার দিকে মহানন্দা সেতুর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। উদ্বোধনের পর নবনির্মিত সেতুর ওপর দিয়ে গাড়ি বহর নিয়ে সেতুর ওপারে যান। সেতুর মাঝখানে গাড়ি থেকে নেমে প্রধানমন্ত্রী নদীর দু’ধারে দাঁড়িয়ে থাকা উৎসুক্য জনতার উদ্দেশে হাত নেড়ে শুভেচ্ছা জানান। উদ্বোধনের পর শনিবার থেকেই সেতুটি সর্বসাধারণের চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করে দেয়া হয়।

সেতুটি উদ্বোধনের সময় প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা ড. তৌফিক-ই-এলাহী, ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী বীরেন শিকদার, পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম, তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলক, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন এমপি, এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন, স্থানীয় সংসদ সদস্য আবদুল ওদুদ, গোলাম রব্বানী এমপি, আয়েন উদ্দিন এমপি, গোলাম মোস্তফা বিশ্বাস এমপি, ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব) এনামুল হক, ওমর ফারুক, জিয়াউর রহমান, আখতার জাহান, প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব একেএম শামীম চৌধুরী, একান্ত সহকারী সচিব এ্যাডভোকেট সাইফুজ্জামান শিখর, ডেপুটি প্রেস সেক্রেটারি মামুন-অর-রশিদ, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের ভারপ্রাপ্ত সচিব আবদুল মালেকসহ বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

সচিব আবদুল মালেক সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে জানান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা সদরের সরাসরি সাতটি ইউনিয়ন এবং পার্শ্ববর্তী শিবগঞ্জ ও গোদাগাড়ির একটি অংশের দুটি ইউনিয়ন মিলিয়ে মোট নয়টি ইউনিয়নের লাখ লাখ মানুষ এ সেতুর অভাবে কার্যত বিচ্ছিন্ন অবস্থায় ছিলেন। শিক্ষা, চিকিৎসা, যাতায়াতসহ সবদিক থেকে চরম দুর্দশা পোহাতে হয়েছে এ এলাকার মানুষকে। সেতুটি উদ্বোধনের পর এ এলাকায় মানুষের মধ্যে ঈদের আনন্দ বইছে। সেতুটি নির্মাণের ফলে ইতোমধ্যে চরাঞ্চলের এ নয়টি ইউনিয়নের জমি-জায়গার দাম কয়েকগুণ বেড়ে গেছে। আগে এক বিঘা জমির দাম যা ছিল, এখন এক শতক জমির দাম তাই। বড় বড় আম ব্যবসায়ীরা এই অবহেলিত চরাঞ্চলে আমের বাগান করার জন্য হুমড়ি খেয়ে পড়েছে। এক কথায় প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে এ সেতুটি নির্মাণের ফলে অবহেলিত চরাঞ্চলের এ পুরো এলাকার চেহারাই পাল্টে গেছে।

এলাকার বেশ কয়েকজন মানুষের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, প্রতিদিন মহানন্দা নদী পার হয়ে কমপক্ষে ১৫-২০ হাজার লোককে যাতায়াত করতে হয়। ইউনিয়নগুলোর মোট কৃষি জমির প্রায় শতকরা ৮০ ভাগই আমবাগান। এ চরাঞ্চলের মানুষদের প্রতিকূল যাতায়াত ব্যবস্থার কারণে প্রধান ফসল আম ও অন্য পণ্য বাজারে সময়মতো পরিবহন করা সম্ভব হয়নি। এতে করে গত ৪৪ বছর ধরেই এ চরাঞ্চলের মানুষকে মারাত্মক অর্থনৈতিক ক্ষতির সন্মুখীন হতে হয়েছে। এতোদিন শহরে আসতে প্রায় ৪-৫ ঘণ্টা সময় লাগত। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মহানন্দা সেতুটি উদ্বোধনের পর এখন এক ঘণ্টার মধ্যেই জেলা শহরে যাওয়া সম্ভব হবে; যা পশ্চাৎপদ এ এলাকার আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে বলিষ্ঠ ভূমিকা রাখবে।

প্রকাশিত : ১৭ মে ২০১৫

১৭/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: