আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৭ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

গোপালগঞ্জে সরকারী খাল ভরাট বন্ধের দাবি

প্রকাশিত : ১৭ মে ২০১৫

নিজস্ব সংবাদদাতা, গোপালগঞ্জ, ১৬ মে ॥ গোপালগঞ্জের মুকসুদপুরে সরকারী খাল ভরাট করে বাড়িঘর নির্মাণ বন্ধের দাবি জানিয়েছে তিন গ্রামের অধিবাসী। মুকসুদপুর উপজেলার পাইকদিয়া, বাওনিয়া ও বাঘাদিয়া গ্রামের পক্ষে ৫২ চাষী এ ব্যাপারে ইউএনও বরাবরে লিখিত অভিযোগ করেছেন। অভিযোগপত্রে তারা জানিয়েছেন, মোচনা ইউনিয়নের পাইকদিয়া, বাওনিয়া এবং দিগনগর ইউনিয়নের বাঘাদিয়া গ্রামের মানুষের জোরালো দাবির মুখে দু’বছর আগে সরকার ১৮ লাখ টাকা ব্যয়ে বৃহত্তর ফরিদপুর সেচ উন্নয়ন প্রকল্পে জমির ফসল, উৎপাদন, পরিবহন, পাট জাগ, ফসল বিক্রি এবং জলাবদ্ধতা নিরসনের জন্য নওহাটা-ধোপাদী-পাইকদিয়া খালটি খনন করে; যার সুফল ইতোমধ্যে এলাকাবাসী পেতে শুরু করেছে। কিন্তু সম্প্রতি আইকদিয়া মৌজার সৈয়দ আলী মাওলানার বাড়ির সামনে ওই গ্রামের ভূমিদস্যু খ্যাত মৃত রশিদ সরদারের ছেলে আমির আলী সরদার বাড়িঘর নির্মাণের জন্য ড্রেজার মেশিন বসিয়ে সরকারী খালটি ভরাট করে। এতে ওই খালে পানি চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। তাই তাদের নিত্যব্যবহার্য ওই খালটি অবৈধ দখলদারদের হাত থেকে রক্ষার জন্য তারা পুলিশ ও প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন। এ ব্যাপারে মুকসুদপুর ইউএনও খায়রুজ্জমান সাংবাদিকদের জানিয়েছেন, চাষীদের কাছ থেকে অভিযোগ পেয়ে তিনি ইউনিয়ন তহশিলদার ও থানার ওসি’কে বিষয়টি তদন্তের ভার দিয়েছিলেন এবং তারাও ঘটনার সত্যতা পেয়েছেন। তিনি আরও জানান, সরকারী এ খালটি পুনরুদ্ধার করা হবে এবং দোষীর বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

দামুড়হুদায় শিক্ষকদের অনীহায় পড়ে আছে শিক্ষা উপকরণ

সংবাদদাতা, দামুড়হুদা, চুয়াডাঙ্গা, ১৬ মে ॥ চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলার শিক্ষকদের অনীহার কারণে প্রাথমিক পর্যায়ে মাল্টি মিডিয়া প্রজেক্টের মাধ্যমে পাঠদানদানের কার্যক্রম মুখ থুবড়ে পড়েছে। এ পদ্ধতি শিক্ষার্থীদের মাঝে ব্যাপক সাড়া জাগালেও নানা কারণে আজ হুমকির মুখে।

ফলে সরকারের দেয়া ল্যাপটপ ও মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টরসহ লাখ লাখ টাকার যন্ত্রপাতি অব্যবহৃত হয়ে পড়ে আছে। জানা গেছে, চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদা উপজেলায় এ পর্যন্ত ১১টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ল্যাপটপ ও তিনটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রজেক্টর পেয়েছে।

যশোরে আসামি ধরতে গিয়ে হামলায় ৪ পুলিশ আহত

স্টাফ রিপোর্টার, যশোর অফিস ॥ যশোর মণিরামপুরে নাশকতা মামলার আসামি ধরতে গিয়ে বিএনপি-জামায়াতের কর্মীদের হামলার শিকার হয়েছে পুলিশ। এ সময় হামলকারীরা পুলিশের এক এএসআই ও ৩ কনস্টেবলসহ ৫ জনকে আহত করে এক আসামিকে ছিনিয়ে নিয়েছে। শুক্রবার রাত ৯টার দিকে উপজেলার কোনাকোলা বাজারে এ ঘটনা ঘটে। আহতরা হলেন, পুলিশের এএসআই তৌহিদুর রহমান, কনস্টেবল আব্দুল মান্নান, নজরুল ইসলাম ও ইদ্রিস আলী এবং মোটরসাইকেল চালক ইসলাম। পরে এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে ৫৩ জনকে আসামি করে একটি মামলা দায়ের এবং ২ জনকে আটক করেছে। মণিরামপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোল্যা খবির আহম্মেদ জানান, পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় এসআই শেখ তাসনিম আলম বাদী হয়ে একটি মামলা করেছেন। মামলায় ৫৩ জনকে আসামি করা হয়েছে। এদের মধ্যে খালেক ও গফুর নামে দু’জনকে আটক করা হয়েছে।

প্রকাশিত : ১৭ মে ২০১৫

১৭/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

দেশের খবর



ব্রেকিং নিউজ: