কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

রাশিয়ার সামরিক মহড়া

প্রকাশিত : ১৩ মে ২০১৫

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে জার্মান নাজি বাহিনীকে পরাস্ত করার ৭০তম বর্ষ উদযাপন করেছে রাশিয়া। রাজধানী মস্কোর রেড স্কোয়ারে অনুষ্ঠিত উদযাপন অনুষ্ঠানে ১৬ হাজার সৈন্য, ২০০টি যুদ্ধযান, এস-৪০০ নতুন ক্ষেপণাস্ত্র ও আরমাটা ট্যাঙ্কের নয়া সংস্করণ প্রদর্শন করা হয়। বার্লিন দখলের এ উদযাপনে বন্ধু রাষ্ট্র চীনের প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং, ভারতের প্রেসিডেন্ট প্রণব মুখার্জী, ভেনিজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরো এবং জাতিসংঘ প্রধান বা কি মুন উপস্থিত ছিলেন। ইউক্রেন সঙ্কটের কারণে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের প্রধান তিন মিত্র রাষ্ট্র ফ্রান্স, ব্রিটেন ও যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপ্রধানরা উপস্থিত ছিলেন না। যদিও প্রেসিডেন্ট পুতিন বক্তব্যের শুরুতেই নাজি বাহিনীকে পরাজিত করার জন্য মিত্র রাষ্ট্রগুলোকে ধন্যবাদ জানান এবং অতীতের মতোই আন্তর্জাতিক অঙ্গনে সহায়তা বৃদ্ধির আহ্বান জানান।

রাশিয়া ও চীনের দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের নমুনা হিসেবে চীনের সেনাবাহিনীর একটি দল এ প্যারেডে অংশ নেয়। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তী সময়ের সবচেয়ে বড় এই প্যারেড এমন এক সময়ে অনুষ্ঠিত হলো, যখন ইউক্রেন ইস্যুতে পশ্চিমাদের সঙ্গে দেশটির চরম সঙ্কট ও দ্বন্দ্ব চলছে। তাই এ প্যারেডকে অনেকেই রাশিয়ার সামরিক শক্তির প্রদর্শন ও শত্রু রাষ্ট্রের প্রতি হুঁশিয়ারি হিসেবেও গণ্য করছে।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকে রাশিয়ার জনগণ ‘গ্রেট প্যাট্রিয়াটিক ওয়ার’ কিংবা ‘মহান দেশপ্রেমমূলক যুদ্ধ’ হিসেবে গণ্য করে। তৎকালীন সোভিয়েত ইউনিয়নের সঙ্গে জার্মানির ১৯৩৯ সালের অনাক্রমণ চুক্তি থাকা সত্ত্বেও হিটলার ১৯৪১ সালের ২২ জুন সোভিয়েত ইউনিয়ন আক্রমণ করেন। ১৯৪২-৪৩ সালে জার্মান নাজি বাহিনী স্তালিনগ্রাদের দিকে অগ্রসর হলে দুই পক্ষের সংঘাতে প্রচুর বেসামরিক রাশিয়ান মৃত্যুবরণ করে। অবশেষে প্রচ- শীত ও দেশপ্রেমিক সোভিয়েত বাহিনীর কাছে পরাস্ত জার্মানরা পিছু হটতে বাধ্য হয়। রাশিয়া ১৯৪৪ সালের দিকেই পূর্ব ইউরোপের দেশগুলো মুক্ত করে ১৯৪৫ সালে জার্মান আক্রমণ করে। ১৯৪৫ সালের ২১ এপ্রিল রাশিয়ান সেনাবাহিনী বার্লিনে প্রবেশ করে। অবস্থা বেগতিক দেখে হিটলার ১৯৪৫ সালের ৩০ এপ্রিল আত্মহত্যা করেন এবং নাজি বাহিনী সোভিয়েত ইউনিয়নের কাছে আত্মসমর্পণ করে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে মোট ৬ কোটি মানুষ মৃত্যুবরণ করে, যার মধ্যে ২ কোটি ৬০ লাখ কেবল রাশিয়ার নাগরিক।

চলমান ডেস্ক

চীন নিয়ে পেন্টাগনের হুঁশিয়ারি

মার্কিন প্রতিরক্ষা সদর দফতর পেন্টাগন সম্প্রতি এক রিপোর্টে দাবি করে চীন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের যে কোন স্থানে পরমাণু হামলা চালাতে সক্ষম। সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্রটির কাছে বর্তমানে ডজনেরও বেশি পরমাণু বোমা বহন করতে পারে এমন মিসাইল রয়েছে। এ ধরনের মিসাইল বিশ্বের যে কোন প্রান্তরে আঘাত হানতে পারে। চীনের অত্যাধুনিক সিএসএস-৪ মিসাইল যুক্তরাষ্ট্রের ফ্লোরিডা শহর ছাড়া সব ক’টি শহরে আঘাত হানার ক্ষমতা রাখে। চীনের আন্তঃমহাদেশীয় ক্ষেপণান্ত্রের মধ্যে সিএসএস-৪ হলো সর্বাধুনিক সংযোজন। এছাড়া চীন স্থল ও সমুদ্রে গোয়েন্দা নজরদারি করতে সম্প্রতি ৪২০০টি ড্রোন তৈরি করেছে।

প্রকাশিত : ১৩ মে ২০১৫

১৩/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: