মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১১ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

খালেদার বাসায় সালাহউদ্দিনের স্ত্রী-শিমুল হটটক

প্রকাশিত : ১৩ মে ২০১৫

স্টাফ রিপোর্টার ॥ সিলেট অঞ্চল দিয়ে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে ভারত হয়ে নেপালে পালিয়ে যেতে চেয়েছিলেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সালাহউদ্দিন আহমেদ। কিন্তু নেপালে ভূমিকম্প হওয়ায় আর নেপাল যাওয়া হয়নি তার। এদিকে সালাহউদ্দিনের সন্ধান পাওয়ার পর স্ত্রী হাসিনা আহমেদ মঙ্গলবার দুপুরে খালেদা জিয়ার বাসায় গিয়ে তার বিশেষ সহকারী এ্যাডভোকেট শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাসের সঙ্গে ‘হটটকে’ লিপ্ত হন। শিমুল বিশ্বাস হাসিনা আহমেদকে ক্ষুব্ধ কণ্ঠে বলেন, আপনার স্বামী ভারতে পালিয়ে গেছে আপনি তা জেনেও আমাদের জানাননি কেন? এর জবাবে ক্ষিপ্ত হয়ে হাসিনা বলেন, সালাহউদ্দিনকে ভারত পাঠিয়েছেন আপনারা। তাই এখন আপনারাই জানেন, আমি জানি না।

সূত্রমতে, সালাহউদ্দিন আহমেদের নামে বেশ ক’টি মামলা বিচারাধীন। এর মধ্যে টানা অবরোধ চলাকালেই একটি মামলায় তার বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়। এ পরিস্থিতিতে টানা এক মাস অজ্ঞাত স্থানে থেকে বিএনপির পক্ষে গণমাধ্যমে বিবৃতি পাঠানোর পর গ্রেফতার এড়াতে ১০ মার্চ রাতে উত্তরার একটি বাসা থেকে স্বেচ্ছায় উধাও হন তিনি। আর তার এ উধাও হওয়ার বিষয়টি জানতেন বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া ও সালাহউদ্দিনের স্ত্রী হাসিনা আহমেদ। কিন্তু এটাকে নিয়ে রাজনীতি করে সরকারকে বেকায়দায় ফেলতে চেয়েছিলেন তারা। তাই ধারাবাহিকভাবে মিথ্যাচার করছিলেন। কিন্তু বিধি বাম হওয়ায় অবশেষে ধরা পড়ে গেলেন সালাহউদ্দিন। সেই সঙ্গে জারিজুরি ফাঁস হয়ে গেল বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার।

উত্তরার একটি বাসা থেকে উধাও হওয়ার পর সিলেট সীমান্ত দিয়ে সালাউদ্দিন আহমেদ ভারত পাড়ি জমান। প্রথমে অসম ও পরে মেঘালয় রাজ্যে যান তিনি। সেখান থেকে নেপালে পালিয়ে যাওয়ার সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছিলেন সালাউদ্দিন। কিন্তু ২৫ এপ্রিল নেপালে ভূমিকম্প হওয়ায় নেপাল যেতে পারেননি তিনি।

সূত্রমতে, মঙ্গলবার দুপুরে স্বামী সালাহউদ্দিনের সঙ্গে ফোনালাপ শেষে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার গুলশানের বাসায় যান হাসিনা আহমেদ। এ সময় হাসিনা আহমেদকে দেখেই উত্তেজিত কণ্ঠে খালেদা জিয়ার বিশেষ সহকারী শিমুল বিশ্বাস বলতে থাকেন আপনার স্বামী ভারতে পালিয়ে গেছে আপনি তা জেনেও আমাদের জানাননি কেন? এর জবাবে ক্ষিপ্ত হয়ে হাসিনা বলেন, সালাহউদ্দিনকে ভারত পাঠিয়েছেন আপনারা। তাই এখন আপনারাই জানেন, আমি জানি না। একপর্যায়ে খালেদা জিয়ার হস্তক্ষেপে হটটকের অবসান হয়। তবে এ হটটকের বিষয়টি খালেদা জিয়ার বাসা ও হাসিনা আহমেদের পক্ষ থেকে গোপন রাখার চেষ্টা করা হয়। এদিকে অনেক জল্পনা-কল্পনার পর সালাহউদ্দিন নাটকের অবসানের বিষয়টি নিয়ে মঙ্গলবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক সমালোচনা হয়েছে। মাহফুজ রহমান নামের একজন লিখেছেন, নাটকীয়তার পর আসল কথা হলো সালাহউদ্দিনকে গ্রেফতার করেছে মেঘালয় পুলিশ। এরপর তাকে গতকাল বিকেলেই মিমহ্যাঞ্জ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। প্রশ্ন হলো এতদিন কেন তিনি ভারতে পালিয়ে ছিলেন। অনিমেষ রহমান নামে একজন লিখেছেন, এবারের অস্কার পুরস্কারের জন্য বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিনের স্ত্রী হাসিনা আহমেদের নাম প্রস্তাব করছি।

এফএম শাহিন লিখেছেন, ‘গুম-নাটক!!! বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিনের গুম-নাটক চলল কিছুদিন; কিছু মিডিয়া আর সুশীল কত্তো বাক-বাকুম করল। কী হলো? সালাহউদ্দিন তাঁর স্ত্রীকে ফোন করে বলল, আমি আছি। স্ত্রী : কোথায়? সালাহউদ্দিন : মেঘালয়, অসম, শিলং।’ সুলতান মির্জা লিখেছেন, সালাহউদ্দিনের বউ আর বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়াকে জিজ্ঞাসাবাদ করে আসলে কি কারণে সালাহউদ্দিনকে নিখোঁজ থাকতে হয়েছিল সেই রহস্যের জট খোলা প্রয়োজন। পলাশ নামের একজন লিখেছেন, যদি অভিনয় শিখতে চাও, সালাহউদ্দিনের বউয়ের কাছে যাও! অতি সত্বর বেগম জিয়ার প্রযোজনায় বড় পর্দায় আসতে যাচ্ছে ছিঃনেমা ‘সালাহউদ্দিন এখন মেন্টাল।’

প্রকাশিত : ১৩ মে ২০১৫

১৩/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: