মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

ভারত-বাংলাদেশ একে অপরকে সহযোগিতা করে যাচ্ছে

প্রকাশিত : ১২ মে ২০১৫
  • রাবিতে পঙ্কজ শরন

রাবি সংবাদদাতা ॥ বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার পঙ্কজ শরন বলেছেন, ভারত-বাংলাদেশ একে অপরকে সহযোগিতা করে যাচ্ছে। শিক্ষা, সংস্কৃতি, রাজনীতি, অর্থনীতিসহ সব বিষয়ে এটা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। গত চল্লিশ বছরে দুই দেশের সম্পর্ক আশানুরূপ উন্নতি হয়নি। কিন্তু আমরা ইতিহাস থেকে শিক্ষা নিয়েছি। আমরা এখন ভবিষ্যতের রোডম্যাপ তৈরি করছি।

সোমবার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) আমন্ত্রণে বিশ্ববিদ্যালয় পরিদর্শনে গিয়ে এক সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন। রাবির সিনেট ভবনে সকাল সাড়ে ১০টায় এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

পঙ্কজ শরন বলেন, দু’জন ব্যক্তি হোক আর দুটি দেশ হোক, যেকোন সম্পর্ক সফল হয় যখন দুজনই ভাবে তারা লাভবান হবে। ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে এখন সে সম্পর্ক বিদ্যমান রয়েছে। তিনি বলেন, গত ৪৪ বছরে বাংলাদেশ পুরো বদলে গেছে। ভারতও পরিবর্তন হয়েছে। আমরা এখন সবক্ষত্রে সমান দেশ। তাই এখন আমাদের নতুনভাবে পার্টনারশিপ গড়তে হবে। এজন্য উভয় দেশে বিদ্যমান বিভিন্ন বাধা পেরিয়ে যেতে হবে। এখন ব্যবসা, সংস্কৃতি ও শিক্ষাসহ সকল ক্ষেত্রে ভারত-বাংলাদেশ যৌথভাবে কাজ করতে পারবে।

পঙ্কজ শরন বলেন, শিক্ষার ক্ষেত্রেও ভারত-বাংলাদেশকে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। এটা শুধু বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায় নয়, অন্যান্য পর্যায়েও। কারণ দুই দেশেরই শিক্ষিত করার মতো বিশাল তরুণ জনগোষ্ঠী রয়েছে। তিনি আরও বলেন, শিক্ষাকে কতটা গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে তার ওপর নির্ভর করে বিশ্বের যেকোন সমাজের সুস্থতা। এজন্য শিক্ষার উন্নয়ন খুব দরকার। আমরা ভারতেও শিক্ষকতাকে আরও আকর্ষণীয় ও চাহিদাসম্পন্ন পেশা হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করার চেষ্টা করছি। পাশাপাশি শিক্ষা ব্যবস্থাকে তরুণদের জন্য মানানসই করারও চেষ্টা করছি।

মুক্তিযুদ্ধে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের অবদানের কথা স্মরণ করে তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়টি গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছে। বর্তমানে দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম সুন্দর এই বিশ্ববিদ্যালয় জাতি গঠনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে যাচ্ছে।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মুহম্মদ মিজানউদ্দিন বলেন, বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষা ও গবেষণা কার্যক্রম পরিচালনায় ভারতীয় হাইকমিশন বিভিন্নভাবে সহযোগিতা করে যাচ্ছে। আগামী দিনে দুই পক্ষের মধ্যে পারস্পরিক সহযোগিতা আরও বৃদ্ধি পাবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি। ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার মু. এন্তাজুল হকের সঞ্চালনায় স্বাগত বক্তব্য দেন উপ-উপাচার্য প্রফেসর চৌধুরী সারওয়ার জাহান। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, রাজশাহীতে নিযুক্ত ভারতীয় সহকারী হাইকমিশনার সন্দিপ মিত্র, রাবি কোষাধ্যক্ষ সায়েন উদ্দিন, প্রক্টর ড. তারিকুল হাসান, জনসংযোগ দফতরের প্রশাসক প্রফেসর ইলিয়াছ হোসেন প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে পঙ্কজ শরনকে বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষে শুভেচ্ছা স্মারক উপহার দেন উপাচার্য অধ্যাপক মুহ্ম্মদ মিজানউদ্দিন।

অনুষ্ঠানের শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে ভারতীয় হাই কমিশনার পঙ্কজ শরন বলেন, ‘বাংলাদেশÑভারত স্থল সীমান্ত চুক্তির চূড়ান্ত অনুমোদনপত্র দ্রুত বাংলাদেশকে পাঠানো হবে। সীমান্ত চুক্তি বিল অনুমোদিত হওয়ার মধ্য দিয়ে ভারত-বাংলাদেশ মৈত্রীতে যে নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হয়েছে তা এই দুই দেশের বন্ধনকে আরও দৃঢ় করবে।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ফারাক্কা ও তিস্তা চুক্তিও অতি সত্বরই বাস্তবায়িত হবে বলে আশা করছি।

এর আগে সোমবার সকাল ১০টায় ভারতীয় হাইকমিশনার বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ স্মৃতি সংগ্রশালা পরিদর্শন করেন।

প্রকাশিত : ১২ মে ২০১৫

১২/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: