হালকা কুয়াশা, তাপমাত্রা ১৮.৯ °C
 
৮ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বৃহস্পতিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

কর্মক্ষেত্রে পাঁচটি ভুল

প্রকাশিত : ১১ মে ২০১৫
  • নজরুল হোসেন

কর্মক্ষেত্রে আমরা সবাই কমবেশি ভুল করে থাকি। এসব ভুলের অনেক হতে পারে নিজের অনিচ্ছাতেই। কখনো অসাবধানতাতেও ভুল হয়ে যেতে পারে। এসব ভুল আমাদের কর্মজীবনে নেতিবাচক প্রভাব ফেলতে পারে। পাশাপাশি অফিসে নিজের মূল্যায়নেও বিরূপ প্রভাব রাখতে পারে এসব ভুল। অনেক সময় প্রতিষ্ঠানও ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে এসব ভুলের কারণে। আমাদের মানসিক অবস্থা বা আত্মবিশ্বাসও কমিয়ে দিতে পারে এসব ভুল।

বাস্তব অভিজ্ঞতা থেকে এ ধরনের পাঁচটি ভুল এখানে আলোচনা করা হলো, যেসব এড়িয়ে চলা সম্ভব।

তথ্য ব্যবহার

দৈনন্দিন সব কাজই হয়ে থাকে তথ্যনির্ভর। অফিসে প্রতিষ্ঠানের গ্রাহকের তথ্য বা অন্য কোনো গুরুত্বপূর্ণ তথ্য কিন্তু সাবধানেই ব্যবহার করতে হয়। অনেক সময় আমরা প্রতিষ্ঠানের গ্রাহকের তথ্য উš§ুক্ত করে ফেলতে পারি খেয়াল না করেই। সেক্ষেত্রে কিন্তু ওই গ্রাহকটিকে সেই তথ্য ব্যবহার করে অন্য কেউ হয়রানি করতে পারে। আর এর দায় কিন্তু নিতে হবে যার কাছ থেকে তথ্যটি বাইরে গেছে, তাকেই। অনেক সময় এসব তথ্যের অপব্যবহার ধরা পড়লে প্রতিষ্ঠান থেকে বহিষ্কৃতও হয়ে যেতে পারেন। কাজেই প্রতিষ্ঠানের গ্রাহকদের সকল তথ্যের গোপনীয়তা রক্ষা করা একটি অবশ্য কর্তব্য।

একই সঙ্গে গ্রাহক বা ক্রেতার তথ্য সংরক্ষণ ও তার গোপনীয়তা রক্ষা করা একটি দায়বদ্ধতাও বটে, যা সংরক্ষণের দায়িত্ব বর্তেছে প্রতিষ্ঠানের এবং সব কর্মীর ওপর। আর যাঁরা এই দায়িত্ব পালনে ব্যর্থ, তাঁদের প্রতি প্রতিষ্ঠানের সদয় হওয়া বা ক্ষমা করার কোন কারণ নেই। গ্রাহকের তথ্য ছাড়াও যে কোন ধরনের পরিকল্পনা, বিক্রয়, আয়, ব্যয়, মুনাফা, মানবসম্পদ কিংবা প্রযুক্তি সংক্রান্ত তথ্যের শুধু সঙ্গত ও প্রয়োজনমাফিক ব্যবহার হতে হবে। প্রতিটি তথ্য ব্যবহারের যথাযথ পদ্ধতি মেনে সংশ্লিষ্ট ও দায়িত্বপ্রাপ্ত ব্যক্তির মাধ্যমেই যে কোন তথ্যের প্রচার ও ব্যবহার হওয়া উচিত।

আবেগ দমন করুন

স্বাভাবিকভাবেই মানুষ আবেগ দ্বারা তাড়িত হয়ে থাকে। এটা মানুষের একটি স্বাভাবিক প্রবৃত্তি। তবে কর্মক্ষেত্রে আবেগকে প্রশ্রয় দেয়া কখনই কাজের কথা নয়। পেশাগত জীবনে যথাসম্ভব আবেগকে পরিহার করে চলাই উচিত। রাগ, ক্ষোভ কিংবা রোমান্সের অতি প্রকাশ একজন ব্যক্তির ভাবমূর্তিকে ক্ষতিগ্রস্ত করতে পারে। তার অর্থ এই নয় যে সবাইকে পুরোপুরি আবেগহীন হয়ে যেতে হবে। পরিমিত আবেগের প্রকাশ অনেক ক্ষেত্রেই কিন্তু জরুরী। পরিস্থিতি ও ব্যক্তিত্ব অনুযায়ী এই পরিমিত আবেগের সংজ্ঞা ও সীমানা আপনাকেই তৈরি করতে হবে।

বিতর্কিত ব্যক্তি এড়িয়ে চলুন

আপনি নিজে শুধু একটি ভাল প্রতিষ্ঠানে চাকরি করলেই হবে না, আপনার পরিপার্শ্বের ব্যক্তিত্বের প্রভাবও পড়তে পারে আপনার ওপর। অফিসে আপনি যেমনই হোন না কেন, আপনার পারিবারিকভাবে যাদের সঙ্গে উঠাবসা, তাদের পরিচয়টিও গুরুত্বপূর্ণ। আপনার ওঠাবসা যদি এমন কোন মানুষদের সঙ্গে থাকে যারা অপরাধ সংক্রান্ত বিষয়ে জড়িত, তবে তা আপনার জন্য ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াতেই পারে। তাদের কাজের জন্য অনেক সময় আপনি ঝুঁকিতে পড়ে যেতে পারেন। একই সঙ্গে আপনার পরিবারের জন্যও তা বিপজ্জনক। কাজেই যাদের সঙ্গে ওঠাবসা করছেন, তাদের যাচাই করে নিন সঠিকভাবে।

অনিয়মে জড়াবেন না

অনেক কাজেই কাজের ক্ষেত্রে অনিয়ম বা নানান রকম প্রলোভন জড়িত থাকতে পারে। তবে সেসব অনিয়ম বা প্রলোভনের ফাঁদ এড়িয়ে চলাই বুদ্ধিমানের কাজ। কারণ এটা তো চির সত্য যে, অনিয়ম বা লোভের বশবর্থী হয়ে কাজ করলে তার সাময়িক সুফল পাওয়া গেলেও তা শেষ পর্যন্ত ভাল কোন ফল বয়ে আনে না। অনেক সময় সাময়িক এই লোভের কারণে ভবিষ্যতের বড় কোন সুযোগও হাতছাড়া হয়ে যেতে পারে। আর সত্যটা সবসময়ই প্রকাশিত হয়ে পড়ে। সেক্ষেত্রে তখন আপনার ভোগ করা সুবিধাটা উল্টো গলার কাঁটা হয়ে দেখা দেবেই। তাই সময় থাকতে সাবধান।

অস্বচ্ছতা পরিহার করুন

মানুষ মাত্রই ভুল করতে পারে। অনেক সময় অনাকাক্সিক্ষত কোন কারণেও আপনার পরিকল্পিত উপায়ে কাজটি হয়ত করতে পারবেন না। হঠাৎ করেই নানান রকম বাধা এসে দাঁড়াতে পারে সামনে। এসব ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সময় মতো অবহিত করাটা জরুরী। শুরুতেই যদি বিষয়টি সম্পর্কে সকলকে অবহিত করে রাখা যায়, তবে ঝামেলার কারণে কাজটি ক্ষতিগ্রস্ত হলেও আপনাকে অযথা কেউ অকারণ দোষী করতে পারবেন না। অন্যথায় তা আপনার জন্য সমস্যা তৈরি করতেই পারে।

ছবি : সামির রহমান

মডেল : দীপ

প্রকাশিত : ১১ মে ২০১৫

১১/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: