কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

স্বাস্থ্যসেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে সবার সহযোগিতা চাই ॥ নাসিম

প্রকাশিত : ১১ মে ২০১৫

স্টাফ রিপোর্টার ॥ স্বাস্থ্যসেবায় কোন রাজনীতি নেই বলে জানালেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সভাপতিম-লীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম। তিনি বলেন, দলমত নির্বিশেষে সকল মানুষকেই স্বাস্থ্যসেক্টরের দ্বারস্থ হতে হয়। এ সেক্টরের সঙ্গে মানুষের জীবন মরণের বিষয়টি জড়িত রয়েছে। তাই স্বাস্থ্য খাতের উন্নয়নে দেশের প্রত্যেক নাগরিকের সাধ্যমতো অবদান রাখা উচিত। জনগণের দোরগোড়ায় স্বাস্থ্যসেবা পৌঁছে দিতে সকল শ্রেণী-পেশার মানুষের সহযোগিতা দরকার। আপনাদের আমি সহযোগিতা করতে চাই। শুধু স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিসেবে নয়, আপনাদের পরিবারের সদস্য হিসেবে পাশে থাকতে চাই। সবাই আমাকে সহযোগিতা করুন।

রবিবার রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে ইন্টারন্যাশনাল কনফারেন্স এ্যান্ড লাইভ সার্জারি-২০১৫’র উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্যমন্ত্রী এ আহ্বান জানান। এ্যাসোসিয়েশন অব সার্জেন্টস ফর সিøপ এ্যাপোনিয়া (এ্যাসাব) এই সেমিনারের আয়োজন করে। সংগঠনের সভাপতি অধ্যাপক ডাঃ এসএম খোরশেদ আলমের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী সেমিনারে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ মেডিক্যাল এ্যাসোসিয়েশন-বিএমএর মহাসচিব ডাঃ ইকবাল আর্সলান, হলিফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট মেডিক্যাল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডাঃ মনিরুজ্জামান ভূঁইয়া, অধ্যাপক ডাঃ মনিরা লাইচ লিটু প্রমুখ।

ডাক্তারদের উদ্দেশে মোহাম্মদ নাসিম বলেন, আপনাদের জন্য আমাদের যা করণীয় তা আমরা করব। আপনারা জনগণকে সেবা দেন। একসঙ্গে কাজ করলে স্বাস্থ্য ও চিকিৎসাসেবার উন্নয়ন কাজে আরও এগিয়ে যেতে পারব। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একা দেশ পরিচালনা করতে পারেন না। দেশের প্রত্যেকে সঠিকভাবে নিজ নিজ দায়িত্ব পালন করলেই দেশ এগিয়ে যাবে ও উন্নয়ন ত্বরান্বিত হবে। চিকিৎসকরা অনেক পরিশ্রম করেন এটা ঠিক। তারপরও ধৈর্যের সঙ্গে কাজ করে যেতে হবে।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরও বলেন, দেশের ইউনিয়ন, উপজেলা এবং জেলা পর্যায়ের হাসপাতালগুলোতে সরকারী উদ্যোগে তৃণমূল পর্যায়ের জনগণ বিনামূল্যে চিকিৎসা ও ওষুধ পাচ্ছে। উন্নত তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবহার করে গ্রামের রোগীদের জন্য রাজধানীর বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকদের পরামর্শ গ্রহণের সুযোগ করে দেয়া হয়েছে। তৃণমূল পর্যায়ে সরকারের উদ্যোগে স্বাস্থ্যসেবা বিস্তৃত হওয়ায় মা ও শিশুমৃত্যুর হার উল্লেখযোগ্যভাবে কমে গেছে। সহস্রাব্দ লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের পথে বাংলাদেশের অগ্রযাত্রা আজ বিশ্ব নেতৃবৃন্দের প্রশংসা কুড়াচ্ছে। কিন্তু ১৬ কোটি মানুষের সীমিত সম্পদের দেশে সকলের জন্য সমান স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে বেসরকারী উদ্যোক্তাদের এগিয়ে আসা দরকার। স্বাস্থ্যমন্ত্রী আরও বলেন, বিভাগীয় শহর ছাড়াও জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে বেসরকারী উদ্যোগে উন্নতমানের চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তুলতে হবে। ব্যবসার পাশাপাশি দরিদ্রদের বিনামূল্যে চিকিৎসা ও স্বাস্থ্যসেবার পরিধিও বাড়াতে হবে। জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে বেসরকারী উদ্যোগে উন্নত চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলা হলে গ্রামের লোকজনকে ধার-দেনা করে বিভাগীয় শহরে আসতে হবে না।

বাংলাদেশ তৃণমূল পর্যায়ে স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে। দেশে আজ আধুনিক মানের চিকিৎসা পদ্ধতি আবিষ্কার হয়েছে। টেলিমেডিসিনসহ আরও নতুন নতুন আবিষ্কারের মাধ্যমে চিকিৎসা বিদ্যায় এসেছে বৈপ্লবিক পরিবর্তন।

প্রকাশিত : ১১ মে ২০১৫

১১/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

অন্য খবর



ব্রেকিং নিউজ: