মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

স্থল সীমান্ত চুক্তির মাধ্যমে ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্ক আরও সুদৃঢ় হবে- পঙ্কজ শরণ

প্রকাশিত : ১০ মে ২০১৫, ০৪:১৭ পি. এম.

স্টাফ রির্পোটার, কুড়িগ্রাম ॥ বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতের হাই কমিশনার পঙ্কজ শরণ বলেছেন, ছিটমহলবাসীদের মানবিক বিপর্যয়ের কথা চিন্তা করেই ভারতের পার্লামেন্টে কোন বিরোধীতা ছাড়াই স্থল সীমান্ত চুক্তি বিলটি পাশ করেছে। এখন দু’দেশের সরকারি পর্যায়ে আলাপ আলোচনার মাধ্যমে দ্রুত এই চুক্তি বাস্তবায়নের পদক্ষেপ নেয়া হবে। এ ব্যাপারে ভারতের সরকার খুবই আন্তরিক। স্থলসীমান্ত চুক্তিসংক্রান্ত ভারতের সংবিধান সংশোধনী বিলের খসড়ায় ক্রটি ধরা পড়ায় তা সংশোধনে সোমবার পার্লামেন্টে এ বিলটি পুনরায় উত্থাপন করা হবে। আশা করি কোন বাধা থাকবে না। তিনি রোববার কুড়িগ্রাম জেলার ফুলবাড়ী উপজেলার ভেতরে অবস্থিত ভারতীয় ছিটমহল দাসিয়ার ছড়ায় এবং ভুরুঙ্গামারী উপজেলার সাহেবগঞ্জ ছিটমহলে পরিদর্শন ও মতবিনিময় সভায় এসব কথা বলেন।

দাসিয়ার ছড়া ছিটমহলের কালিরহাট বাজারে মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন ছিটমহল বিনিময় সমন্বয় কমিটির বাংলাদেশ ইউনিটের সভাপতি মইনুল হক। অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন, ভারতের ডেপুটি হাই কমিশনার সন্দীপ মিত্র, ফুলবাড়ী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাসির উদ্দিন মাহমুদ, ছিটমহল বিনিময় সমন্বয় কমিটির আইন উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট এস.এম আব্রাহাম লিংকন, ছিটমহল বিনিময় সমন্বয় কমিটি’র বাংলাদেশ ইউনিটের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মোস্তফা, দাসিয়ার ছড়া ছিটমহল সমন্বয় কমিটির সভাপতি আলতাফ হোসেন প্রমুখ। এছাড়া উপস্থিত ছিলেন ভুরুঙ্গামারী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নুরন্নবী চৌধুরী, ইউইনও এরশাদ আহসান হাবিব, সহকারী পুলিশ সুপার মাসুদ আলম।

বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাই কমিশনার পঙ্কজ শরণ বলেন, ছিটমহলবাসীর সহযোগিতার উপর এই চুক্তির দ্রুত বাস্তবায়ন নির্ভর করছে। শান্তিপূর্ণ ও শৃংখলার সাথে এই চুক্তির বাস্তবায়ন হবে বলে তিনি আশা ব্যক্ত করেন।

তিনি বলেন, এই চুক্তির মাধ্যমে ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক আরো সুদৃঢ় হবে এবং সীমান্ত ব্যবস্থাপনার ক্ষেত্রে সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। আপনারা শান্তি প্রিয় মাানুষ, আপনারা সবাই আইন মেনে চলুন, আপনাদের এই চুক্তিটি বাস্তবায়নে আপনাদের সহযোগিতা অনেকাংশে নির্ভর করবে। ১৯৭৪ সালে যে চুক্তিটির কথা বলা হয়েছে এটা এখন নির্ভর করবে ভারত সরকার বাংলাদেশ সরকার ও আপনাদের উপর।

তিনি আরো বলেন, আপনাদের আনন্দের ভাগিদার হতে আমি এখানে এসেছি। আমার বিশ^াস দীর্ঘদিনের একটি মানবিক সমস্যা দ্রুততম সময়ে সমাধান হতে যাচ্ছে। এজন্য সবাইকে ধর্য্য ধরে অপেক্ষা করতে হবে।

রোববার সকাল ১০টার দিকে পঙ্কজ শরণ ভারতীয় ছিটমহলে পৌছলে ছিটমহলের মানুষ ফুল ও শ্লোগান দিয়ে তাকে স্বাগত জানান। ছিটমহলবাসীরা তাদের বিভিন্ন সমস্যা সমাধানের জন্য হাইকমিশনারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন এবং ভারত সরকারের কাছে পূণর্বাসনের জন্য অর্থ বরাদ্দের দাবী জানান। পরে তিনি দুপুর দেড়টায় ভুরুঙ্গামারী উপজেলার সাহেবগঞ্জ ছিটমহল পরির্দশন করেন ও ছিটমহলবাসীর বিভিন্ন সমস্যার কথা শোনেন। ছিটমহলবাসীদের মঙ্গলে ভারতের পক্ষ থেকে সব ধরনের উদ্যোগ নেয়া হবে বলে তিনি জানান।

প্রকাশিত : ১০ মে ২০১৫, ০৪:১৭ পি. এম.

১০/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: