আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

ল্যাপটপ কিনতে স্বল্প সুদে ঋণ পাচ্ছে শিক্ষার্থীরা

প্রকাশিত : ৯ মে ২০১৫
  • কেন্দ্রীয় ব্যাংক পুনঃঅর্থায়ন স্কিম চালু করবে

কাওসার রহমান ॥ অত্যন্ত স্বল্প সুদে ও সহজ শর্তে বাংলাদেশ ব্যাংক কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের ল্যাপটপ কেনার জন্য ঋণ দেবে। এজন্য কেন্দ্রীয় ব্যাংক চার শতাংশ সুদে ল্যাপটপ ঋণ প্রদানের জন্য একটি পুনর্অর্থায়ন স্কিম চালু করবে। এক্ষেত্রে মসলা জাতীয় ঋণের মতো অবশিষ্ট ছয় শতাংশ সুদ সরকারের কাছে ভর্তুকি হিসাবে চেয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি (আইসিটি) বিভাগে আয়োজিত এক বৈঠকে একথা জানিয়েছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের গবর্নর ড. আতিউর রহমান। বৈঠকে তিনি বলেছেন, ‘আমরা যদি চার শতাংশ সুদে কৃষকদের ঋণ দিতে পারি, তাহলে ছাত্রদের কেন ল্যাপটপ কেনার জন্য ঋণ দিতে পারব না।’

তিনি বলেন, ‘চার শতাংশ সুদের ল্যাপটপ কেনার ঋণ চালু করতে হলে সরকারকে অবশিষ্ট ছয় শতাংশ সুদ ভর্তুকি হিসাবে দিতে হবে। ওই ভর্তুকির সিদ্ধান্ত পেলেই আমরা ল্যাপটপ কেনার জন্য পুনর্অর্থায়ন স্কিম চালু করব।’ আইসিটি বিভাগ সূত্র জানায়, গত ৩ মে আইসিটি বিভাগে এই বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। আইসিটি প্রতিমন্ত্রী জুনায়েদ আহমেদ পলকের সভাপতিত্বে ওই বৈঠকে আরও উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সবিজ ওয়াজেদ জয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. এ এ এম এস আরেফিন সিদ্দিকী, আইসিটি সচিব শ্যাম সুন্দর সিকদার প্রমুখ।

বৈঠকে গবর্নর জানান, ১০ শতাংশ সুদে ছাত্রছাত্রীদের ল্যাপটপ কেনার ঋণ দেয়ার জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক ইতোমধ্যে ট্রাস্ট ব্যাংককে অনুমতি দিয়েছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক এখন চাচ্ছে, পুনর্অর্থায়ন স্কিমের আওতায় চার শতাংশ সুদে ছাত্রছাত্রীদের ঋণ প্রদানের কর্মসূচী চালু করতে। প্রধানমন্ত্রীর তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সবিজ ওয়াজেদ জয় গবর্নরের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানান। তিনি বলেন, কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এই উদ্যোগ সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার পরিকল্পনা বাস্তবায়নে অত্যন্ত সহায়ক হবে। জানা যায়, ওই বৈঠকের ফলোআপ হিসাবে আইসিটি বিভাগ ছাত্রছাত্রীদের জন্য ল্যাপটপ কেনার ঋণ চালু করার জন্য ছয় শতাংশ ভর্তুকি চেয়ে অর্থ মন্ত্রণালয়ের কাছে চিঠি দিয়েছে। যাতে বাংলাদেশ ব্যাংক ল্যাপটপ কেনার জন্য চার শতাংশ সুদে ব্যাংকগুলোর ঋণ প্রদানের জন্য পুনর্অর্থায়ন স্কিম চালু করতে পারে। চিঠিতে বলা হয়েছে, উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার পর প্রতিবছর প্রায় ছয় লাখ ছাত্র-ছাত্রী উচ্চ শিক্ষার জন্য কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়। চার শতাংশ সুদে এই ল্যাপটপ কেনার ঋণ চালু করা হলে এই বিপলু সংখ্যক ছাত্রছাত্রী উচ্চ শিক্ষার পাশাপাশি তথ্য প্রযুক্তি বিষয়েও জ্ঞান অর্জন করতে পারবে। ফলে উচ্চ শিক্ষা শেষে তারা সহজেই কর্মক্ষেত্রে প্রবেশ করতে পারবে। এতে প্রধানমন্ত্রীর ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার কার্যক্রমও ত্বরান্বিত হবে। উল্লেখ্য, সরকার মসলাজাতীয় পণ্যের আমদানি কমিয়ে দেশেই এর উৎপাদন বাড়াতে ২০০৯-১০ অর্থবছর থেকে সুদ ভর্তুকির আওতায় কম সুদের এ ঋণ চালু করা হয়। বর্তমানে আদা, রসুন, পেঁয়াজ, মরিচ, হলুদ, জিরা, সব ধরনের ডাল, তেলবীজ ও ভুট্টা চাষে এ ধরনের ঋণ দেয়া হয়ে থাকে। এ ঋণ নিতে কোন জামানতেরও প্রয়োজন হয় না। শুরুতে রাষ্ট্রীয় খাতের ব্যাংকগুলোয় এ ধরনের ঋণ বিতরণ ও প্রচার চালানোর নির্দেশ দেয় বাংলাদেশ ব্যাংক। পরবর্তী সময় বেসরকারী ও বিদেশী ব্যাংকগুলোর জন্যও এ নির্দেশনা দেয়া হয়। প্রথম দুই শতাংশ সুদে এ ঋণ চালু হলেও এখন চার শতাংশ সুদে এ ঋণ দেয়া হয়। এ ঋণের সুদের হার ১০ শতাংশ ধরে অবশিষ্ট ছয় শতাংশ সুদ সরকার ভর্তুকি হিসাবে প্রদান করে।

যাতে এ সুদে ঋণ দিয়ে ব্যাংকগুলো ক্ষতিগ্রস্ত না হয়। ট্রাস্ট ব্যাংক দশ শতাংশ সুদে ছাত্র-ছাত্রীদের ল্যাপটপ কেনার ঋণ চালু করলেও বেসরকারী এক্সিম ব্যাংক তাদের সিএসআর তহবিল থেকে অর্থায়নের মাধ্যমে ঢাকা বিশ্ব বিদ্যালয়, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ব বিদ্যালয়ের (বুয়েট) গরিব মেধাবী ছাত্রছাত্রীদের বিনামূল্যে ৫০০ ল্যাপটপ দিয়েছে। এই ব্যাংক তাদের সিএসআর কর্মসূচীর আওতায় আরও দুই হাজার ল্যাপটপ প্রদানের অঙ্গীকার করেছে। কেন্দ্রীয় ব্যাংক গবর্নর অবশ্য সকল ব্যাংককে এক্সিম ব্যাংকের মতো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের গরিব মেধাবী ছাত্রছাত্রীদের সিএসআর কর্মকা-ের আওতায় বিনামূল্যে ল্যাপটপ প্রদানে এগিয়ে আসার আহ্বান জানিয়েছেন।

প্রকাশিত : ৯ মে ২০১৫

০৯/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: