মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

শিগগির পুঁজিবাজার চাঙ্গা হবে ॥ জয়

প্রকাশিত : ৮ মে ২০১৫

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ খুব শিগগির দেশের পুঁজিবাজার চাঙ্গা হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। আর বাজার চাঙ্গা করার জন্য বিদেশী আইটি কোম্পানিগুলোকে তালিকাভুক্ত করার প্রক্রিয়া চলছে। আগামী জুন মাসের মধ্যে এর একটি সফলতা আসবে বলে জানান তিনি। বৃহস্পতিবার রাজধানীর হোটেল র?্যাডিসন ব্লুতে ডিজিটাল ইনভেস্টমেন্ট সামিটের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এ সব কথা বলেন তিনি।

সজীব ওয়াজেদ বলেন, আইটি কোম্পানিগুলো ফরেন মিউচুয়াল ফান্ডের মাধ্যমে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) তালিকাভুক্ত করা হবে। বিদেশী কোম্পানিগুলো তালিকাভুক্ত হলে বিদেশী বিনিয়োগকারী ও বাংলাদেশ উভয় লাভবান হবে। একই সঙ্গে দেশের পুঁজিবাজার আরও চাঙ্গা হবে।

সজীব ওয়াজেদ আরও বলেন, জিডিপির আকার হিসেবে বাংলাদেশ বিশ্বের ৪৫তম দেশ। এ দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য কাজ করে যাচ্ছি। বাংলাদেশকে গ্লোবাল আইটি ইন্ডাস্ট্রি হিসেবে গড়ে তুলতে চাই। এ জন্য বর্তমান টেলিযোগাযোগ নীতিমালাও সংশোধন করা হবে।

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হেনরি কিসিঞ্জারের বাংলাদেশকে ‘তলাবিহীন ঝুড়ি’ আখ্যায়িত করার কথা মনে করিয়ে দিয়ে তিনি বলেন, সেই পরিস্থিতি কাটিয়ে বাংলাদেশ বর্তমান উদীয়মান অর্থনীতি হিসেবে বিবেচিত হচ্ছে।

‘গত ছয় বছর ধরে ৬ শতাংশের বেশি জিডিপি প্রবৃদ্ধি হচ্ছে। জিডিপির আকারে বাংলাদেশ বিশ্বের ৪৫তম দেশ। তিনি বলেন, ২০০৮ সালে বাংলাদেশে দারিদ্র্যের হার ছিল ৪০ শতাংশ, যা ২০১৪ সালে ২৫ শতাংশে নেমে এসেছে। সাক্ষরতার হার ৪৯ শতাংশ থেকে বেড়ে হয়েছে ৬৫ শতাংশ।

বাংলাদেশ দ্বিতীয় প্রজন্মের ইন্টারনেট সেবা থেকে তৃতীয় প্রজন্মে এসেছে, চতুর্থ প্রজন্মের সেবা আসছে। বিদ্যুত সুবিধা প্রাপ্তদের হার ২৭ শতাংশ থেকে বেড়ে হয়েছে ৬২ শতাংশ। ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা শূন্য দশমিক ৪ শতাংশ থেকে বেড়ে ২৯ শতাংশ হয়েছে। জয় বলেন, দেশে বর্তমানে এক কোটি ২০ লাখ মানুষ সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইট ব্যবহার করছে।

ইউনিয়ন তথ্যসেবা কেন্দ্র গড়ে তোলার কথা উল্লেখ করে জয় বলেন, আমাদের ডিজিটালাইজেশনের হলমার্ক হলো দরিদ্র ও গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর কাছে সেবা পৌঁছে দেয়া। আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন গত মহাজোট সরকারের সময় প্রতিষ্ঠিত ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার থেকে ১ কোটি ১৫ লাখ নাগরিককে সেবা দেয়া এবং সেখানে কাজ করে গ্রামীণ স্থানীয় উদ্যোক্তাদের অর্থ আয়ের বিষয়টিও তুলে ধরেন সজীব ওয়াজেদ। এসব কেন্দ্র থেকে জন্ম-মৃত্যু নিবন্ধন, ভূমি রেকর্ড, পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশ, সরকারী ফরম পূরণ, মোবাইল ইন্টারনেট, মোবাইল ব্যাংকিং, অনলাইনে বিভিন্ন বিল পরিশোধ, স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞের সেবাসহ জনগণের নানা ধরনের সেবা পাওয়ার তথ্য তুলে ধরেন তিনি।

অন্যদের মধ্যে তথ্য-প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, টেলিনর গ্রুপের প্রেসিডেন্ট ও সিইও জন ফ্রেডরিক বাকসাস ও বাংলাদেশ এ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার এ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেসের (বেসিস) সভাপতি শামীম আহসান সম্মেলনে বক্তব্য দেন।

প্রকাশিত : ৮ মে ২০১৫

০৮/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: