মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
৯ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

মাইম নিয়ে নিথর মাহবুব

প্রকাশিত : ৭ মে ২০১৫

মূকাভিনয় শিল্পী নিথর মাহবুব। শিল্পচর্চায় বহুমুখী প্রতিভার অধিকারী এই শিল্পী মাইমকে বেছে নিয়েছেন শিল্প প্রকাশের অন্যতম মাধ্যম হিসেবে। মঞ্চ, টিভি নাটক, মডেলিং কিংবা চলচ্চিত্রে তাঁর সরব উপস্থিতি থাকলেও মাইমকে ভিন্ন রূপ দান করেছেন ভালবাসার তাগিদে। যার কারণে তিনি হয়ে উঠেছেন জনপ্রিয় মাইমশিল্পী। তার নিরলস প্রচেষ্টায় বাংলাদেশে পরিচিতি লাভ করেছে এই শিল্প।

মূকাভিনয় শব্দটির উৎপত্তি মুক ও অভিনয় শব্দ দুটোকে কেন্দ্র করে, যাকে ইংরেজিতে বলা হয় মাইম। স্বাধীনতাপূর্ব সময়ে মাইম, প্যান্টোমাইম কিংবা মূকাভিনয় শব্দটির সঙ্গে এ দেশের সাধারণ দর্শকের পরিচিতি ছিল না বললেই চলে। মূকাভিনয় শিল্পকলার একটি পুরনো শাখা হলেও বাংলাদেশে এর আধুনিক পঠন, পাঠন ও চর্চা খুব বেশি দিনের নয়। অসাধারণ এবং অপূর্ব এই শিল্প মাধ্যমটি পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে তেমন বিকাশ লাভ করেনি, বরং অবহেলিতই হয়েছে বারংবার।

আজ থেকে ৫-৬ বছর পিছনে ফিরে তাকালে দেখা যাবে ঢাকায় মূকাভিনয় শিল্পের চর্চার শূন্যতা বিরাজ করছিল। এই ক্রান্তি লগ্নে ২০০৮ সালে মূকাভিনয় শিল্পী নিথর মাহবুব গড়ে তোলেন মূকাভিনয়ের দল ‘মাইম আর্ট’। মূকাভিনয়ের প্রচার ও প্রসারের লক্ষ্যে সারাদেশে শুরু থেকে তার দলটি অদ্যাবধি কাজ করে যাচ্ছে। দলটির উদ্দেশ্য সামগ্রিকভাবে দেশে শিল্পটির বিকাশ ঘটানো, তরুণ প্রজন্মকে মূকাভিনয় চর্চায় উদ্ভুদ্ধ করা, নতুন নতুন মূকাভিনয় শিল্পী ও সংগঠন তৈরি করা, প্রবাসে ও দেশের আনাচে কানাচে ছড়িয়ে থাকা মূকাভিনয় শিল্পীদের সঙ্গে যোগাযোগ স্থাপন করে দেশে শিল্পটিকে উজ্জীবিত করা।

নিথর মাহবুবকে খুব ছোট থেকেই শিল্প সংস্কৃতি আকৃষ্ট করত। ছড়া বলার পাশাপাশি ছবি আঁকার প্রতিও ছিল ঝোঁক। কলেজ জীবনে ঝুঁকে পড়েন সঙ্গীত চর্চা ও অভিনয়ে। মাইমের শিক্ষাটা কিভাবে অর্জন করলেন, জানতে চাইলে তিনি বলেন, অভিনয়ের অন্যান্য মাধ্যম নিয়ে আমাদের দেশে শিক্ষার সুযোগ থাকলেও। মাইম শেখার কোনো সুযোগ আগে ছিল না। অনেকটা নিজের চর্চায় এত দূর। তার পরও অনেকের অনুপ্রেরণা ও সহযোগিতা পেয়েছি। প্রথমেই বলতে হয় জাহিদ রিপন ভাইয়ের কথা। ওনার কাছেই আমি প্রথম মাইমের ধারণা পাই। অনুপ্রেরণা পেয়েছি মাইম শিল্পী জিল্লুর রহমান জনের কাছে। দেশের আরেক মাইম শিল্পী মশহুরুল হুদার সান্নিধ্য পেয়েছি। বিশ্বখ্যাত মাইম শিল্পী পার্থ প্রতিম মজুমদার আমাকে অনেক স্নেহ করেন। তাকে আমি গুরু বলে মানি। এভাবেই এই মাইমকে আয়ত্ত করার চেষ্টা আমার অব্যাহত। নিথর শিল্পকলা একাডেমি থেকে রূপসজ্জা, চলচ্চিত্র নির্মাণ, উপস্থাপনাশৈলী, অভিনয়বিষয়ক কর্মশালা সম্পন্ন করেন। স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে নিথর মাহবুব বলেন, ২০০৬ সালে শিল্পকলা একাডেমির আয়োজনে অভিনয়বিষয়ক কর্মশালা করতে গিয়ে পরিচয় হয় বাংলাদেশের সনামধন্য মূকাভিনয় শিল্পী জিল্লুর রহমান জনের সঙ্গে। তিনি একদিন হঠাৎ সকল প্রশিক্ষণার্থীদের মধ্য থেকে ডেকে নিলেন আমাকে। আমার পরিচয় জানলেন। এক পর্যায়ে তিনি আমাকে বুকে টেনে নিয়ে বললেন, আই এ্যাম প্রাউড অফ ইউ। সেদিন তাঁর সেই অনুপ্রেরণাই আমাকে অসীম সাহস যুগিয়ে ছিল। জোরেশোরে শুরু করলাম মাইমের চর্চা। নিথর মাহবুব ২০০৬ সালে জেনেসিস থিয়েটারের হয়ে শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় নাট্যশালায় প্রথম একক মূকাভিনয় পরিবেশন করেন। তখন এই দলের আয়োজনে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে তিনি মূকাভিনয় পরিবেশন করতেন। পাশাপাশি টিভিতেও বিভিন্ন অনুষ্ঠানে মূকাভিনয় পরিবেশন করতে থাকেন। ঢাকায় তখন মূকাভিনয়ের চর্চা একবারেই ছিল না। তাই ভাল কাজের সুবাধে নিথর মাহবুব মাত্র একবছরে নাট্যাঙ্গনে মাইম শিল্পী হিসেবে একটা বিশেষ পরিচিতি লাভ করেন। লান্স ফাউন্ডেশানের একটি প্রোগ্রামে অংশগ্রহণ করতে বাংলাদেশে এসেছিলেন পার্থপ্রতিম মজুমদার। ওই বছরই চিন মৈত্রী সম্মেলনে সুযোগ হলো এই গুণী শিল্পীর সঙ্গে কাজ করার। এই কাজের সুবাদে পার্থপ্রতিম মজুমদারের সঙ্গে একটা আন্তরিক সম্পর্ক গড়ে উঠল। একইভাবে ২০১০ ও ২০১১ সালে প্রবাসী বাংলাদেশের আরেক বিখ্যাত মাইম শিল্পী কাজী মশহুরুল হুদাকে সঙ্গে নিয়ে নিথর মাহবুব ঢাকা ও ঢাকার বাইরের নাটকের দলগুলোর সহায়তায় কয়েকটি মূকাভিনয় কর্মশালার আয়োজন করে। অন্যদিকে মূকাভিনয়ের জাগরণকে ধরে রাখতে নিথর মাহবুব ২০০৯ সালে ঢাকায় গড়ে তুললেন মূকাভিনয়ের দল ‘মাইম আর্ট’। শুরু থেকে মাইম আর্ট দেশে মূকাভিনয়ের প্রচার প্রসারে নানা ধরনের কর্মকা- চালিয়ে যাচ্ছে। প্রতি বছর এই দল থেকে একটি করে মূকাভিনয় কর্মশালা পরিচালনা করে আসছে মাইম আর্ট। মাইম আর্টের প্রযোজনায় নিথর মাহবুবের জীবনমুখী একক মূকাভিনয় ‘লাইফ ইজ বিউটিফুল’ মঞ্চে আসার পর ব্যাপক প্রশংসা অর্জন করে। এটির রচনাও নির্দেশনা তার নিজেরই। পরবর্তীতে মাইম আর্ট মঞ্চে নিথর মাহবুবের রচনা ও নির্দেশনায় মঞ্চে আনে ‘যেমন কর্ম তেমন ফল’। সমাজ সচেতনতামূলক এই কমেডি মূকাভিনয় প্রযোজনা মঞ্চে আসার পরও দর্শকদের ব্যাপক প্রশংসা অর্জন করে। সম্প্রতি রাজনৈতিক সহিংসতার প্রেক্ষাপটকে কেন্দ্র করে মাইম আর্ট মঞ্চে আনে ‘ইউটার্ন’ নামের নতুন প্রযোজনা। এটিও নিথর মাহবুবের রচনা ও নির্দেশনায় মঞ্চে আসে। এই প্রযোজনাগুলোর মাধ্যমে নাট্যকার ও নির্দেশক হিসেবেও মূকাভিনেতা নিথর মাহবুব মেধার স্বাক্ষর রাখেন।

প্রকাশিত : ৭ মে ২০১৫

০৭/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: