মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

‘সুতপার ঠিকানা’ এবং অপর্ণার গল্প

প্রকাশিত : ৭ মে ২০১৫

মাত্র কয়েকটি চলচ্চিত্রে কাজ করেছেন অপর্ণা। এরই মধ্যে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন তিনি।

মা দিবস উপলক্ষে মুক্তি পেতে যাচ্ছে অপর্ণা অভিনীত ‘সুতপার ঠিকানা’ চলচ্চিত্রটি। এতে নামভূমিকায়

অভিনয় করেছেন তিনি। বিস্তারিত

লিখেছেন মিলান আফ্রিদী

অপর্ণার ছোটবেলার এক ঘনিষ্ঠ বান্ধবীর বাবা মারা গেছেন চলতি সপ্তাহে। যে কারণে তার অভিনীত ‘সুতপার ঠিকানা’র প্রমোশনের সপ্তাহে রাজধানীতে থাকা হয়নি অপর্ণার। তাই চলতি সপ্তাহে কোন টিভি চ্যানেল বা পত্রিকাকে বিশেষভাবে সময় দেয়া হয়ে উঠেনি অপর্ণার। জনকণ্ঠের সঙ্গে মুঠোফোনে কথা হয় অপর্ণার। অপর্ণা শুধু এতটুকু বললেন, ‘সুতপার ঠিকানা’ আমার স্বপ্নের একটি চলচ্চিত্র। ‘সুতপার ঠিকানা’ আমাদের নারী জীবনের প্রতিচ্ছবি। আশা করি যারা একবার হলে যাবেন তাঁরা চলচ্চিত্রটি শেষ না করে হল থেকে বের হবেন না। আমি কৃতজ্ঞ পরিচালক প্রসূণ রহমানের কাছে যে, তিনি আমার ওপর নির্ভর করেছেন সুতপা চরিত্রটির ,জন্য। আমার নিজেরও মনে মনে একধরনের চ্যালেঞ্জ ছিল, যেভাবেই হোক চরিত্রটি ফুটিয়ে তুলব। কতটুকু পেরেছি জানি না, তবে আশাকরি দর্শক হতাশ হবেন না।’ অপর্ণাও ছেলের চরিত্রে অভিনয় করেছেন কুমার বিশ্বজিতের ছেলে নিবিড়। স্বামীর চরিত্রে অভিনয় করেছেন শাহাদাৎ। ‘সুতপার ঠিকানা’ চলচ্চিত্রটির কাহিনী, সংলাপ, চিত্রনাট্য ও পরিচালনা করেছেন প্রসূণ রহমান। সরকারী অনুদানের এই চলচ্চিত্রটি নিয়ে দর্শকের মাঝে একধরনের আগ্রহ লক্ষ্য করা যাচ্ছে। আবার অনেকেই বলছেন গল্প, নির্মাণশৈলী, গান সবমিলিয়ে দর্শকের ভাললাগার মতো একটি চলচ্চিত্র হয়েছে ‘সুতপার ঠিকানা’। এদিকে রাষ্ট্রীয় পর্যায় থেকে দাওয়াত আসবে অপর্ণার ঠিকানায়। এটা যে শিল্পী হিসেবে কত বড় প্রাপ্তি অপর্ণা নিজেও তা বুঝতে পারেননি। জাতীয়ভাবে যারা পুরস্কৃত হন জাতির বিশেষ বিশেষ দিনে এবং বিভিন্ন উৎসবে রাষ্ট্রপতি এবং প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে শুভেচ্ছা সাক্ষাৎ করতে নিমন্ত্রণ জানানো হয়। এখন থেকে অপর্ণাও অনেকের সঙ্গে একই কাতারে থাকবেন। খুব অল্প সময়ে এসে ভাল শিল্পীর তালিকায় নিজের নাম লিখিয়েছিলেন অপর্ণা। আর এখন তার তালিকা জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারপ্রাপ্ত শিল্পীদের তালিকায়। গাজী রাকায়েত পরিচালিত ‘মৃত্তিকা মায়া’ চলচ্চিত্রে পার্শ্ব চরিত্রে অভিনয়ের জন্য অপর্ণা প্রথমবারের মতো জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান। অপর্ণার আগে মিডিয়াতে এসেছেন এমন অনেকেই আছেন যাঁরা চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন কিন্তু ভাগ্যে জুটেনি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার। কিন্তু অপর্ণা তাঁর মেধা দিয়ে প্রমাণ করেছেন তিনি অন্য অনেকের চেয়ে শিল্পী হিসেবে একটু আলাদা, অন্যরকম। মোস্তফা সরয়ার ফারুকীর ‘থার্ড পারসন সিঙ্গুলার নাম্বার’ চলচ্চিত্রে ছোট্ট একটি চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন। এরপর তিনি বেশকিছু দিন বিরতি নিয়ে অভিনয় করেন জাহিদুর রহিম অঞ্জন পরিচালিত ‘মেঘমল্লার’ চলচ্চিত্রে। এই চলচ্চিত্রেও অপর্ণা অনবদ্য অভিনয় করেছেন। হয়ত পুরস্কারের প্রাপ্তি ঘটে যেতে পারে এই চলচ্চিত্রেও। তবে প্রসূন রহমান পরিচালিত নারীদের জীবন নিয়ে নির্মিত ‘সুতপার ঠিকানা’তে সুতপা চরিত্রে সেই হিসেবে আরও বদলে দিতে পারে বলে আশা করছেন চলচ্চিত্রসংশ্লিষ্ট প্রত্যেকেই। কারণ হিসেবে দুটো দিক উল্লেখ করেছেন সবাই। এক. সুতপার বিভিন্ন বয়সের চরিত্রে অপর্ণার অনবদ্য অভিনয়। দুই. চলচ্চিত্রের বিষয়বস্তু নারী জীবনকে নিয়ে। অপর্ণা আরও বলেন, ‘আমার স্বপ্নের একটি চলচ্চিত্র ‘সুতপার ঠিকানা’। এতে অভিনয় করতে গিয়ে নারী জীবনকে খুব কাছে থেকে উপলব্ধি করেছি। সাধারণ নারীর জীবন কতটা ত্যাগের হতে পারে, কতটা কষ্টের হতে পারে তা বুঝলাম। সত্যিই নারী হিসেবে আমরা এখনও অনেক ক্ষেত্রে অসহায়। এই অসহায়ত্ব কাটিয়ে উঠতে পারবে কিনা নারীরা, জানি না।’ অপর্ণা অভিনীত প্রথম নাটক ছিল ‘তবুও ভালবাসি’। চট্টগ্রামের মেয়ে অপর্ণা ইফতেখার আহমেদ ফাহমি ও রেদওয়ান রনি পরিচালিত ‘হাউজফুল’ নাটকে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে আলোচনায় আসেন। এই মুহূর্তে অপর্ণা অভিনয় করছেন গৌতম কৈরীর ‘অপূর্বা’, গোলাম সোহরাব দোদুলের ‘পাল্টা হাওয়া’ এবং হাসান মোরশেদের ‘আদর্শলিপি’ ধারাবাহিক নাটকে। পাশাপাশি ঈদের নাটক ও টেলিফিল্ম নিয়েও বেশ ব্যস্ত সময় পার করছেন তিনি। টিভি নাটক এবং চলচ্চিত্রে অভিনয়ের পাশাপাশি বিজ্ঞাপনেও অর্পণার উপস্থিতি চোখে পড়ার মতো। কলকাতার নির্মাতা অমিত সেনের নির্দেশনায় তিনি প্রথম বিজ্ঞাপনে মডেল হন ‘বসুন্ধরা’ গ্রুপের একটি পণ্যের। এরপর তিনি অমিতাভ রেজার নির্দেশনায় এসিআই এ্যারোসোল’র বিজ্ঞাপনে মডেল হবার পাশাপাশি আরও বেশকিছু বিজ্ঞাপনে কাজ করেন। তবে এখন অপর্ণা বিজ্ঞাপনে খুব কমই কাজ করছেন। কারণ হিসেবে তিনি বলেন,‘ সত্যি বলতে কী আগে বেশ ভাল পারিশ্রমিক পাওয়া যেত। আর এখন নামেমাত্র পারিশ্রমিক দিয়ে সবাই বিজ্ঞাপন নির্মাণ করতে চান। যে কারণে বিজ্ঞাপনে কাজ করার আগ্রহ হারিয়ে ফেলেছি। তবে যদি ভাল প্রোডাক্ট হয় এবং ভাল পারিশ্রমিক পাওয়া যায়, তবে অবশ্যই নতুন বিজ্ঞাপনে কাজ করব। আমি সবার কাছে সবসময়ই দোয়া চাই যেন ভাল ভাল কাজ করতে পারি।’ অলক ঘোষ ও ঝর্ণা ঘোষ দম্পতির বড় মেয়ে অপর্ণা। ছোট মেয়ে মৃত্তিকা ঘোষ।

প্রকাশিত : ৭ মে ২০১৫

০৭/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: