মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

রুশ দোরগোড়ায় সবচেয়ে বড় সামরিক মহড়া ব্রিটেন ও ন্যাটোর

প্রকাশিত : ৭ মে ২০১৫
  • যোগ দিয়েছে ১৮ জাহাজ ও সাবমেরিন

রুশ প্রেসিডেন্ট ভøাদিমির পুতিনের সামরিক আগ্রাসনের ফলে সৃষ্ট ক্রমবর্ধমান উত্তেজনার মধ্যে রাশিয়ার দোরগোড়ায় বড় ধরনের সামরিক মহড়া করছে ব্রিটেন ও ন্যাটো। পুতিনের পরবর্তী দৃষ্টি বাল্টিক দেশগুলোর দিকে হতে পারে, এমন আশঙ্কায় নরওয়ের উপকূলে সর্ববৃহৎ সাবমেরিন বিধ্বংসী মহড়া এবং এস্তোনিয়ায় সবচেয়ে বড় স্থল মহড়া চলছে। খবর টেলিগ্রাফের।

নরওয়ের উপকূলের অদূরে ব্রিটেনের রয়াল নেভির অংশগ্রহণসহ ন্যাটোর সবচেয়ে বড় সাবমেরিন বিধ্বংসী মহড়া চলছে। এর কয়েক সপ্তাহ আগে রাশিয়ার সাবমেরিনের বিদেশী জলসীমায় অনুপ্রবেশের খবর বের হয়। একই সময়ে এস্তোনিয়ায় সবচেয়ে বড় সামরিক মহড়ায় ব্রিটিশ সেনারা যোগ দিয়েছে। দুই দশকেরও বেশি সময় বাল্টিক দেশগুলো স্বাধীনতা অর্জনের পর এটি সবচেয়ে বড় মহড়া। ইউক্রেন সংকট নিয়ে রাশিয়ার সঙ্গে উত্তেজনা বাড়ার পর এ মহড়া অনুষ্ঠান করা হচ্ছে এবং আশঙ্কা করা হচ্ছে প্রেসিডেন্ট পুতিনের পরবর্তী দৃষ্টি বাল্টিক দেশগুলোর দিকে হতে পারে। ন্যাটোর রণকৌশল বিষয়ক কামান্ডার বলেছেন, রুশ সামরিক বাহিনীর সাম্প্রতিক কর্মকা- উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে এবং এজন্য এই মহড়া প্রাসঙ্গিক। ‘অপারেশন ডায়নামিক মঙ্গুজ’ নামের এই মহড়ায় অন্তত ১৮টি জাহাজ ও সাবমেরিন অংশ নিয়েছে এবং ন্যাটোর ১০ সদস্য দেশ ও সুইডেন এতে যোগ দিয়েছে। গত মাসে লাটভিয়া জানিয়েছে, তারা তাদের জলসীমায় একটি রুশ সাবমেরিন শনাক্ত করেছিল। এদিকে ফিনল্যান্ড জানিয়েছে, গত সপ্তাহে তারা তাদের উপকূল বরাবর অজ্ঞাত এক সাবমেরিনের দিকে ব্যাপক গোলাবর্ষণ করেছে। সাম্প্রতিক মাসগুলোতে নরডিক ও বাল্টিক দেশগুলোর আকাশসীমা বার বার লঙ্ঘন করেছে রুশ বিমান।

মহড়ার কমান্ডার মার্কিন রিয়ার এ্যাডমিরাল ব্র্যান্ড ইউলিয়ামসন বলেছেন, সমুদ্রে রাশিয়ার যেমন অধিকার আছে, তেমনি আমাদেরও আছে। কিন্তু আমরা যেসব ঘটনা দেখেছি তা আন্তর্জাতিক নিয়মকানুনের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়। এটি আমাদের উদ্বেগের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই মহড়া ঘটনাগুলোই জবাব নয়, কিন্তু এদের সঙ্গে প্রাসঙ্গিক। গত মাসে নরডিক দেশগুলোর পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা কঠোর ভাষায় রাশিয়ার নিন্দা করে বলেছে, মস্কো আমাদের নিরাপত্তার জন্য সবচেয়ে বড় হুমকি। এর প্রতিক্রিয়ায় রাশিয়া বলেছে, ন্যাটোর সঙ্গে ফিনল্যান্ড ও সুইডেনের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক বিশেষ উদ্বেগ হয়ে দাঁড়িয়েছে। জার্মানির ইউ৩৩ সাবমেরিনের কমান্ডার কাই নিকেলসডর্ফ বলেছেন, রাশিয়া তাদের কর্মকা- অনেক বাড়িয়েছে এবং আমরাও তা-ই করছি। এই মহড়ায় সাবমেরিনটি শত্রুর ভূমিকা পালন করছে। এই মহড়ায় অংশ নেয়া ব্রিটেনের সবচেয়ে সিনিয়র কর্মকর্তা ক্যাপ্টেন ইয়ান ব্রেকেনরিজ বলেছেন, আমাদের সবচেয়ে সক্ষম সাবমেরিনের বিরুদ্ধে স্থল ও বিমানবাহিনীর দক্ষতা, সরঞ্জাম ও কৌশলী পদ্ধতি পরীক্ষা করার বড় সুযোগ দিয়েছে এই মহড়া।

১৯৯১ সালে সোভিয়েত ইউনিয়নের কাছ থেকে স্বাধীন হওয়ার পর এস্তোনিয়ায় অনুষ্ঠিত দেশটির সবচেয়ে বড় এই মহড়ায় স্থানীয় সাত হাজার রিজার্ভ বাহিনীর সঙ্গে ব্রিটিশ সৈন্যরা যোগ দিয়েছে। ব্রিটেন ও তার ন্যাটো মিত্র দেশগুলো বাল্টিক দেশগুলোকে আশ্বস্ত করার চেষ্টা করছে যে, রাশিয়ার যে কোন আগ্রাসন থেকে তাদের রক্ষা করবে তারা।

প্রকাশিত : ৭ মে ২০১৫

০৭/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: