কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

শেখ হাসিনার গাড়ি বহরে হামলা মামলা ॥ ৫০ বিএনপি নেতাকর্মীর নামে চার্জশীট

প্রকাশিত : ৬ মে ২০১৫

স্টাফ রিপোর্টার, সাতক্ষীরা ॥ বর্তমান প্রধানমন্ত্রী ও সাবেক বিরোধীদলীয় নেত্রী শেখ হাসিনার গাড়িবহরে হামলা ও হত্যাচেষ্টা মামলায় সাতক্ষীরা জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক এমপি হাবিবুল ইসলাম হাবিবসহ ৫০ বিএনপি নেতাকর্মীর নামে আদালতে চার্জশীট দাখিল করা হয়েছে। দীর্ঘ ১২ বছর পর আদালতের নির্দেশে কলারোয়া থানায় মামলা রেকর্ডের সাত মাস পর এ চাঞ্চল্যকর মামলার চার্জশীট দেয়া হলো। কলারোয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সফিকুর রহমান এ চার্জশীট দাখিল করেছেন।

২০০২ সালের ৩০ আগস্ট সকাল ১০টায় তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা কলারোয়ার চন্দনপুর ইউনিয়নের হিজলী গ্রামে এক মুক্তিযোদ্ধার ধর্ষিতা স্ত্রীকে দেখতে সাতক্ষীরা সদর হাসপাতালে আসেন। সেখান থেকে যশোর ফেরার পথে বেলা ১১টা ৪০ মিনিটের দিকে কলারোয়া উপজেলা বিএনপি অফিসের সামনে রাস্তার ওপর জেলা বিএনপির সভাপতি ও তৎকালীন সাংসদ হাবিবুল ইসলাম হাবিব ও বিএনপি নেতা রঞ্জুর নির্দেশে নেতাকর্মীরা দলীয় অফিসের সামনে একটি যাত্রীবাহী বাস রাস্তার ওপরে আড়াআড়ি রেখে তাঁর গাড়িবহরে হামলা চালায়। হামলায় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি প্রকৌশলী শেখ মুজিবুর রহমান, সাংবাদিকসহ কমপক্ষে এক ডজন নেতাকর্মী আহত হন।

এ ঘটনায় থানা মামলা না নেয়ায় ২ সেপ্টেম্বর কলারোয়া মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার মোসলেমউদ্দিন বাদী হয়ে যুবদল নেতা আশরাফ হোসেন, আব্দুল কাদের বাচ্চুসহ ২৭ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত ৭০Ñ৭৫ জনকে আসামি করে সাতক্ষীরা নালিশি আদালত ‘ক’ অঞ্চলে একটি মামলা (সিআরপি-১১৭১/০২) দায়ের করেন। মামলায় ১৮ জনকে সাক্ষী করা হয়। বিচারক এমআই ছিদ্দিকী তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য কলারোয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এসএম গোলাম কিবরিয়াকে নির্দেশ দেন। ২০০৩ সালের ৩১ ডিসেম্বর ঘটনা মিথ্যা বলে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করা হলে বাদী মোসলেম উদ্দিন প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে আদালতে নারাজি আবেদন করেন।

এদিকে, বাদী মোসলেমউদ্দিন পুলিশ প্রতিবেদনের বিরুদ্ধে আদালতে ২০০৪ সালের ২২ জানুয়ারি আদালতে নারাজির আবেদন জানালে শুনানি শেষে তা খারিজ হয়ে যায়। এ খারিজ আবেদনের বিরুদ্ধে বাদী ২০০৪ সালের ১১ এপ্রিল জেলা ও দায়রা জজ আদালতে রিভিশন মামলা (১৭/০৪) দায়ের করেন। ২২ এপ্রিল শুনানি শেষে বিচারক এ রিভিশন আবেদন খারিজ করে দেন। পরবর্তীতে ২০০৪ সালের ৪ আগস্ট বাদী এ আদেশের বিরুদ্ধে সুপ্রীমকোর্টের হাইকোর্ট ডিভিশনে ক্রিমিনাল মিস কেস (৫৮৯৩/০৪) দাখিল করেন। দীর্ঘ শুনানি শেষে বিচারকদ্বয় ২০১৩ সালের ১৮ জুলাই আপীল মঞ্জুর করে নি¤œ আদালতের আদেশের ওপর স্থগিতাদেশ দেন। একই সঙ্গে নি¤œ আদালতে মামলার কার্যক্রম নতুন করে শুরু করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দিলেও এ নির্দেশের কপি দীর্ঘ এক বছরের বেশি সময় পর গত ১২ সেপ্টেম্বর সাতক্ষীরার মুখ্য বিচারিক হাকিম আদালতে এসে পৌঁছায়। মুখ্য বিচারিক হাকিম নিতাই চন্দ্র সাহা ১৫ অক্টোবর মামলার শুনানি শেষে কলারোয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে মামলাটি এজাহার হিসেবে গ্রহণ করে আসামিদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেন।

এদিকে আদালতের নির্দেশে নতুন করে মামলা রেকর্ডের পর দীর্ঘ সাত মাস পর সোমবার আদালতে চার্জশীট দাখিল করা হয়। জেলা বিএনপির সভাপতি হাবিবুল ইসলাম হাবিবসহ মামলায় চার্জশীটভুক্ত অন্য আসামিরা হলো কলারোয়া পৌর মেয়র আক্তারুল ইসলাম, উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক কয়লা ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুর রকিব, যুগিখালী ইউপি চেয়ারম্যান রবিউল ইসলাম, এ্যাডভোকেট আব্দুস সাত্তার, যুবদল নেতা আশরাফ হোসেন, আব্দুল কাদের বাচ্চু, তামিম আজাদ মেরিন, জাভিদ রায়হান লাকি, শহিদুল, মনিরুল ইসলাম, ইয়াছিন আলী, শেলি, নাজমুল হোসেন, আলতাফ হোসেন, নাজমুল হোসেন, আব্দুল মজুদ, টাইগার খোকন, কনক, ছামাদ, খালেকুজ্জামানসহ ৫০ জন।

কলারোয়া থানার ওসি জানান, আসামিদের বিরুদ্ধে প্রধানমন্ত্রীর গাড়িবহরে গুলি ও বোমা হামলা চালিয়ে হত্যা চেষ্টার অভিযোগে অস্ত্র ও বিস্ফোরক আইনসহ কয়েকটি ধারায় অভিযোগ আনা হয়েছে। মামলার তদন্তচলাকালীন চার আসামির মৃত্যু হয়েছে। মামলায় ৩০ জনকে সাক্ষী করা হয়েছে। গ্রেফতার করা হয়েছে চার্জশীটভুক্ত পাঁচ আসামি।

প্রকাশিত : ৬ মে ২০১৫

০৬/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

দেশের খবর



ব্রেকিং নিউজ: