আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৭ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বুধবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

স্বাস্থ্য কণিকা

প্রকাশিত : ৫ মে ২০১৫
  • মলদ্বারে ক্যান্সার

কারণ

মলদ্বারের পলিপই মূল কারণ

পলিপ আবার বেশি হয় খাদ্যে চর্বির পরিমাণ বেশি হলে এবং আঁশের পরিমাণ কম হলে

ঝুঁকি

* মলদ্বারে যদি পলিপ থাকে

* ব্যক্তিগত ও পারিবারিক ইতিহাস থাকে মলদ্বার ক্যান্সারের

লক্ষণ

* মলমূত্র ত্যাগের প্রথায় পরিবর্তন আসা

* নাক দিয়ে রক্তক্ষরণ

* অযথা ওজন কমে যাওয়া

* রক্তশূন্যতা প্রকট হওয়া

* মলে যদি রক্ত যায়

নিরাপদ গর্ভকালীন স্বাস্থ্য

পুষ্টি

* পুষ্টিকর খাদ্য গ্রহণ করা

ওজন

* প্রথম ৩ মাসে ১ থেকে ২১/২ কেজি ওজন বাড়তে এবং শেষ মাসগুলোতে প্রতি সপ্তাহে ৩০০ গ্রাম থেকে ৭০০ গ্রাম ওজন বাড়তে প্রতিবন্ধকতা না করা।

সম্পূরক :

* প্রতিদিন ভিটামিন ও খনিজ পদার্থ গ্রহণ করা। প্রয়োজনীয় ভিটামিন ও খনিজ পদার্থের ১০০ থেকে ২০০%।

নিরাপত্তা :

* গর্ভকালীন সময়ে এ্যালকোহল ও ধূমপান থেকে বিরত থাকা।

* বিরত থাকা ডাক্তারের অনুমোদন ছাড়া ওষুধ গ্রহণ থেকে।

ব্যায়াম :

* ডাক্তারের পরামর্শ সাপেক্ষে ব্যায়াম করা।

চেকআপ :

ক্স ডাক্তারের কাছে নিয়মিত পরীক্ষার জন্য যাওয়া। ওজন, গর্ভধারণের উন্নতি এবং যদি কোন পরীক্ষা লাগে, সেগুলো ঠিকমতো করতে প্রতি মাসে, প্রতি সপ্তাহে চেক।

কুসুম গরম লেবুর শরবত

০ শরীরের এ্যাসিড ক্ষারের ব্যালান্সকে সুসম রাখে

০ রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থাকে সুসংহত করে

০ পরিপাক ক্রিয়াকে সাহায্য করে

০ প্রাকৃতিক প্রস্রাববর্ধক হিসেবে কাজ করে

০ নাসিকাতন্ত্রকে উজ্জীবিত করে

০ ওজন কমাতে সাহায্য করে

০ লিভারকে ময়লামুক্ত ও উজ্জীবিত করে

মেদ ও ভুঁড়ি

লক্ষণ

০ অতিরিক্ত ওজন বৃদ্ধি

০ শরীরে অতিরিক্ত ফ্যাটের উপস্থিতি

০ ফ্যাটের নির্দিষ্ট স্থানগুলো লক্ষণীয়

০ দেহের বিশালত্ব ধারণ

০ দৈনিক কার্যাবলী করতে অনাগ্রহ

০ নির্জীবতা

০ শ্বাস-প্রশ্বাসের কষ্ট

০ স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি কোমরের ব্যাস এবং বডিমাস সূচক।

প্রতিরোধ ও চিকিৎসা

০ অতি ক্যালরি সমৃদ্ধ খাদ্য গ্রহণ থেকে বিরত থাকা

০ চিনি গ্রহণ সীমিত করা

০ অধিক পরিমাণ ফল, সবজি, ডাল, আঁশযুক্ত খাদ্য, বাদাম খাওয়া

০ প্রতিদিন শারীরিক ব্যায়াম ও কাজকর্ম অব্যাহত রাখা

০ এনার্জির ব্যালান্স অর্জন করা

০ স্বাস্থ্যকর ওজন বজায় রাখা।

ক্যাপসিকামের উপকারিতা

০১। চোখের জন্য ভাল

০২। ক্যালরি পোড়ায়

০৩। এন্টি ক্যান্সার

০৪। স্বাস্থ্যবান হার্ট বজায় রাখে

০৫। রক্তশূন্যতা সারায়

০৬। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়

০৭। খারাপ কোলস্টেরল কমায়

০৮। ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণ করে

০৯। উচ্চ রক্তচাপ প্রতিরোধ করে

১০। প্রদাহরোধী উপাদানে সমৃদ্ধ।

প্রকাশিত : ৫ মে ২০১৫

০৫/০৫/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: