কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৩ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

গাব্বার ইজ ব্যাক

প্রকাশিত : ৩০ এপ্রিল ২০১৫

পর্দায় অক্ষয় কুমার মানেই ধুন্দুমার এ্যাকশান অথবা দম ফাটানো হাসির সিনেমা। মজার ব্যাপার হচ্ছে দুই ধরনের সিনেমাতেই তিনি সমান স্বচ্ছন্দ। বলিউডে পার করে ফেলেছেন দুই দশকের বেশি সময়। ১ মে মুক্তি পাচ্ছে অক্ষয়ের নতুন সিনেমা ‘গাব্বার ইজ ব্যাক’। নতুন এই সিনেমা এবং অক্ষয়ের বর্তমান হাল-হকিকত নিয়ে লিখেছেন নিবিড় লতিফুল বারী

নিজস্ব এন্টি করাপশন ফোর্স দিয়ে সমাজ থেকে দুর্নীতি দূর করার মিশন। পথে হাজারো বাধা বিপত্তি, তবুও এগিয়ে যায় গাব্বার রূপী অক্ষয় কুমার। আর এভাবেই কাহিনীর গাঁথুনি তৈরি হয়েছে ‘গাব্বার ইজ ব্যাক’। অবশ্য এটি তামিল ছবি ‘রামানা’-এর রিমেক। কিন্তু বলিউডি স্টাইলে কেমন দাঁড়ায় তা দেখার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় রয়েছে বলিউডের কোটি দর্শক। ২০১৫-তে অক্ষয় কুমারের এটি দ্বিতীয়বারের মতো বড় পর্দায় উপস্থিতি। ২৬ এপ্রিল এ ছবির প্রচারণায় অংশ নিতে অক্ষয় হাজির হয়েছিলেন ‘কমেডি নাইটস উইথ কপিল’র এপিসোডে। সঙ্গে ছিলেন গুণী অভিনেতা কমল হাসানের মেয়ে শ্রুতি হাসান যিনি কিনা এ ছবিতে অক্ষয়ের সহ-অভিনেত্রী। আর বরাবরের মতোই চমক দিতে অক্ষয় প্রোগ্রামে হাজির হয়েছিলেন অটোরিকশায়। অবশ্য এমনটা তিনি আগেও করেছেন। মুম্বাইয়ের হাইওয়েতে তিনি ট্যাক্সি করেও প্রচারণা চালিয়েছেন এমন নজিরও রয়েছে।

গাব্বারের কথা এলেই প্রথমে মনে পরে বলিউডের অমর ছবি ‘শোলে’ এর কথা। যেখানে গাব্বারের ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন অভিনেতা আমজাদ খান। তবে বর্তমান গাব্বার একটু ভিন্ন ঘরানার। শোলের গাব্বার ভাল মানুষদের হত্যা করত। আর ২০১৫-তে গাব্বার ধাওয়া করবে সমাজের নষ্ট, পচে যাওয়া দুর্নীতিবাজদের। তবে এটি ‘শোলে ২’ নয়, এটা নিশ্চিত করেছেন অক্ষয়। পাঠক ভাবছেন তাহলে কেন ‘গাব্বার ইজ ব্যাক’ দেখার জন্য দর্শক হলে যাবে? প্রথমত; বলতেই হয় অক্ষয় কুমারের কথা।

যিনি ’৯০-এর দশক থেকে অত্যন্ত সফলতার সঙ্গে একজন এ্যাকশন হিরো হিসেবে নিজের ইমেজ গড়ে তুলেছেন এবং যার ছবি খোরাক যোগায় পরিপূর্ণ পারিবারিক বিনোদনের। ইতোমধ্যেই এই ছবির ট্রেলার দেখে সবাই অনুধাবন করতে পেরেছে যে, এ ছবি অসংখ্য এ্যাকশন দৃশ্যে পরিপূর্ণ এবং এগুলো করতে কোন স্টান্ট ব্যবহার করেননি অক্ষয়। তার সর্বশেষ ছবি ‘বেবি’তে তাকে দেখা গেছে সন্ত্রাসীদের পেছনে ধাওয়া করতে আর এবার দেখা যাবে দুর্নীতিবাজদের মূলোৎপাটন করতে।

এ ছবির গান আরেকটি আকর্ষণীর দিক। নির্মাতারা মাত্র দুটি গান রিলিজ করেছেন এখন পর্যন্ত। একটি ‘তেরি মেরি কাহানি’। যেখানে একটি বিশেষ দৃশ্যে অভিনয় করেছে কারিনা কাপুর এবং অপরটি টাইটেল সং ‘গাব্বার ইজ ব্যাক’। মুক্তি পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে গানগুলো স্থান করে নিয়েছে টপ চার্টে, এমনকি সিনেমার প্রমোশনাল প্রোগ্রামে গেলেও অক্ষয়কে অনুরোধ শুনতে হচ্ছে গানটা গেয়ে শোনানোর।

এ ছবিতে অক্ষয় কুমারকে দেখা যাবে ভিন্ন লুকে, পুরো মুখ ভর্তি দাড়ি। শুধু তাই নয়, তাকে এ ছবির জন্য ১৫ কেজি ওজন বাড়াতে হয়েছে। কারণ একটাই। মূল ছবির গাব্বারের সাঙ্গে লুকের মিল রাখার জন্য। অবশ্য অক্ষয় বেশ টেনশনে ছিলেন স্ত্রী টুইংকেল কিভাবে নেয় এই লুক। কিন্তু সে বেশ পছন্দ করেছে বলে আপাতত স্বস্তি অক্ষয়ের। তবে পর্দায় অক্ষয়ের সঙ্গে অভিনয় করে বেশ খুশি শ্রুতি হাসান। কারণ বলিউডে মাত্র শুরুর দিকটায় আছেন তিনি, আর এমন সময় কো স্টার হিসেবে যদি অক্ষয় কুমার থাকেন তাহলে শিখে পড়ে এগুনোর কাজটা অনেকখানি হয়ে যায়। এমনটাই আশাবাদ শ্রুতির। পরিচালক কৃশ বেশ আশাবাদী এ ছবি নিয়ে কারণ রিমেক ছবি বানানো অনেকে হালকাভাবে নিলেও এটাকে বেশ চ্যালেঞ্জিং মনে করেন তিনি। আর আগের দর্শকদের রিমেক ভার্সন দিয়ে আর বেশি তৃপ্ত করার একটা বিষয় রয়েই যায়। তবে অক্ষয় কুমারের কো অপারেশন তাকে বলিউডে আরও কাজ করতে আগ্রহী করে তুলছে। সঞ্জয় লীলা বানশালী, ভায়াকম ১৮ এবং সাবিনা খানের যৌথ প্রোডাকশনের এ ছবিতে সঙ্গীতের দায়িত্বে আছে চিরস্তা ভাট, ইয়ো ইয়ো হানি সিং। আর ছবির গল্প লিখেছেন এ আর মুরুগাদোজ যিনি কিনা ছিলেন মূল ছবির পরিচালক। দেখা যাক, গাব্বারের মিশন এ যাত্রায় সফল হয় কিনা।

প্রকাশিত : ৩০ এপ্রিল ২০১৫

৩০/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: