মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

সংরক্ষিত বনের গাছ লোপাট

প্রকাশিত : ২৯ এপ্রিল ২০১৫

গাছ প্রকৃতির অমূল্য দান। জীবনের জন্য ও পরিবেশ রক্ষায় গাছের গুরুত্ব অপরিসীম। এই বিষয়টি সবাই অবহিত হলেও দুর্বৃত্তরা দীর্ঘকাল ধরে বৃক্ষ নিধনের মাধ্যমে দেশের পরিবেশের জন্য মারাত্মক হুমকির সৃষ্টি করে চলছে। মাঝে-মধ্যেই গাছ নিধনের কথা পত্রপত্রিকায় আসছে। সম্প্রতি বান্দরবান বন বিভাগের দুটি ডিভিশনের সরকারীভাবে বনায়ন করা সংরক্ষিত বাগানের বহু মূল্যবান গাছ কেটে নিয়ে গেছে চোরাকারবারি চক্র। এখন সেখানে বনায়নের চিহ্ন না থাকলেও শোভা পাচ্ছে সংরক্ষিত বনের সাইনবোর্ড। রবিবার জনকণ্ঠে প্রকাশিত এই খবরে আরও জানা গেছে, বন বিভাগের এক শ্রেণীর কর্মকর্তা-কর্মচারীর যোগসাজশে গাছ লোপাটের কারণে নামে সংরক্ষিত বনাঞ্চল থাকলেও বাস্তবে সংরক্ষিত বনের কোন অস্তিত্ব নেই। ‘রক্ষক যদি ভক্ষক হয়’ তাহলে সংরক্ষিত বন থাকবে কিভাবে।

গাছবিহীন পৃথিবী এক মুহূর্তও কল্পনা করা যায় না। খাদ্য, বস্ত্র, বাসস্থান, চিকিৎসা, উৎসব, পার্বণ, শিল্প-সংস্কৃতি তথা যাপিত জীবন গাছ ছাড়া চলে না। একটি পূর্ণবয়স্ক গাছ বছরে যে পরিমাণ অক্সিজেন সরবরাহ করে তা কমপক্ষে ১০ জন পূর্ণবয়স্ক মানুষের বার্ষিক অক্সিজেনের চাহিদা মেটায়। কোন দেশের প্রাকৃতিক ও পরিবেশগত ভারসাম্যের জন্য মোট ভূখ-ের ২৫ শতাংশ বনভূমি থাকা দরকার, অথচ বাংলাদেশে এর পরিমাণ ৯ শতাংশের নিচে। এখানে গাছ নিধন চলে নির্বিচারে। উজাড় হচ্ছে বনভূমি। এই বাস্তবতায় পরিবেশ নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়াটাই স্বাভাবিক। ২০১৩ সাল থেকে জামায়াত-বিএনপি জোট রাজনৈতিক অবরোধ-হরতালে জ্বালাও-পোড়াও, ভাংচুর, মানুষ হত্যার পাশাপাশি সারাদেশে হাজার হাজার গাছ কেটে রাস্তা অবরোধের ঘটনা ঘটিয়েছিল। বিশেষ করে ৫ জানুয়ারির নির্বাচনপূর্ব সময়ে। পরিসংখ্যানে জানা গেছে, সে সময় রাজনৈতিক এই সহিংসতায় সারাদেশে প্রায় ৬০ হাজার গাছ নিধন হয়েছে, যা পরিবেশের জন্য মারাত্মক হুমকি।

বাংলাদেশে পরিবেশ অনেকাংশে গাছের ওপর নির্ভরশীল। এখানে গাছ নিধন ও পাচার অবশ্যই গুরুতর অপরাধ হিসেবে বিবেচনা করা উচিত। বান্দরবানের উক্ত ঘটনায় বন বিভাগের যেসব কর্মকর্তা-কর্মচারী এই ধরনের ঘৃণ্য অপরাধের সঙ্গে জড়িত তাদের অবশ্যই বিচারের কাঠগড়ায় দাঁড় করানো উচিত। অপরাধ প্রমাণিত হলে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দেয়া দরকার।

গাছ নিধনের বিরুদ্ধে সচেতন সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হওয়া দরকার। গাছ নিধন এবং পাচার যে অপরাধ এই বোধ নাশকতাবাদী ও গাছ নিধনকারীদের মধ্যে থাকে না। আমাদের নিজেদের স্বার্থেই দেশের প্রাকৃতিক সম্পদকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করতে হবে। গাছ নিধনে দেশে আইন আছে, আইনে অপরাধীর শাস্তির ব্যবস্থা আছে। আমরা মনে করি, এ ধরনের বৃক্ষ নিধনের ঘটনা আর যেন না ঘটে তা নিশ্চিত করতে হবে।

প্রকাশিত : ২৯ এপ্রিল ২০১৫

২৯/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: