মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১১ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

‘নির্বাক’ দিয়ে ফিরছেন সুস্মিতা

প্রকাশিত : ২৩ এপ্রিল ২০১৫
  • নিবিড় লতিফুল বারী

টালিউড

জন্ম বাঙালী পরিবারে। বিচরণ বলিউডে। তবে অন্য আর দশজনের মতো হাওয়ায় গা ভাসিয়ে দিয়ে নয় বরং বেছে বেছে। নিজের মনের মতো না হলে করেননি কোন কাজই। ফলে গত ২০ বছরে ঝুলিতে যত ছবি থাকার কথা ততো ছবি নেই। এছাড়া আরও একটা বিষয় রয়ে গেছে। এখনও বাংলা সিনেমায় অভিনয় করা হয়ে ওঠেনি। পরিচালক সৃজিত মুখার্জীর কাছ থেকে যেই না স্ক্রিপ্ট শুনলেন আর দেরি নয়। ঠিক করলেন ক্যারিয়ারের প্রথম বাংলা সিনেমা শুরু হোক সৃজিতের হাত ধরেই। এতক্ষণ সুস্মিতা সেনের কথা হচ্ছিল। ওদিকে সৃজিত যখন দিল্লীর জহরলাল ইউনিভার্সিটির পিএইচডিটা হুট করে ছেড়ে দিয়ে সিনেমায় নামবেন বলে ঠিক করলেন, তখন শুরুর দিকটায় অঞ্জন দত্তের সহকারী পরিচালক হিসেবে কাজ করেছেন বেশ কিছুকাল। তো পরে সৃজিত নিজেই শুরু করলেন ফিল্ম বানানো ... এবং সবই সফল। একাধিকবার চেষ্টা করেছেন অঞ্জন দত্তকে কাস্ট করতে। বাইশে শ্রাবণে ফসকে গেছে, চতুষ্কোণে তো দু’জন ঝগড়া বাধিয়ে একদম শেষ মুহূর্তে অঞ্জন দত্ত বেড়িয়ে গেলেন। কিন্তু এবার আর মিস নয়। অঞ্জন দত্তকে ক্যামেরার সামনে রেখে মনিটরে সৃজিত বসলেন শেষ পর্যন্ত। সঙ্গে রইলেন যীশু সেনগুপ্ত ঋত্বিক চক্রবর্তী। নির্মিত হলো সৃজিত মুখার্জীর ডিপোমা ফিল্ম ‘নির্বাক’, যা টালিউডের বড় পর্দায় মুক্তি পেতে যাচ্ছে আগামী ১ মে। অবশ্য মে মাস মানেই সুস্মিতার জন্য সোনায় সোহাগা। কারণ ১৯৯৪-এ যেবার ‘মিস ইউনিভার্স’ খেতাব পেলেন সেটাও ছিল মে মাস। এবারও ব্যাটে বলে মিলে গেলেই হয়। তথাকথিত নাচগানভিত্তিক সিনেমা কখনই বানান না সৃজিত তবে তার ছবিতে থাকে আর্ট ও বাণিজ্যিক ধারার এক মিশেল যা দুই শ্রেণীর দর্শকদেরই হলে টানে। সে হিসেবে এবারের ছবিকে সেই ধারা থেকে আলাদা করে ডিপ্লোমা ফিল্ম বলছেন প্রযোজক শ্রীকান্ত মেহতা। কারণ হিসেবে জানাচ্ছেন এই ছবিতে জনপ্রিয়তার মূল স্রোত ব্যবহার করা হচ্ছে না- নেই কোন গান, সংলাপ খুব কম, কাহিনীর প্রবাহে ধীর গতি, ঠিক যেমন ফিল্ম স্কুলের ছাত্র তার প্রথম ছবি বানায়, তেমনই এক ছবি। এই ছবির অনুপ্রেরণা পেয়েছেন প্রযোজক সালভাদর দালির এক চিত্র প্রদর্শনী থেকে যেখানে একটা গাছের ছবি ছিল কিন্তু দূর থেকে মনে হচ্ছিল মানুষের মুখের অবয়ব। সেই থেকে চিন্তা করতে করতে এই ফরম্যাটে এ নিয়ে আসা, খানিকটা সুরিয়ালিজমের মিশেল। মূল ঘটনাপ্রবাহ চলে ৪টি আলাদা আলাদা প্রেমের গল্পের মাধ্যমে। একটা মানুষ, একটা গাছ, একটা কুকুর এবং একটি মৃতদেহ-আর এ চারটি গল্পেই সুস্মিতা সেন রয়েছেন। তবে ছবির নাম নির্বাক কেন? প্রতিটা গল্পেই একটা চরিত্র থাকে যে কথা বলতে পারে না মানে নির্বাক। আরেকটা বিষয় থাকছে ছবিতে। তা হলো প্রতিটা গল্পই শেষ হয় ট্র্যাজেডি দিয়ে। সুস্মিতা সেন এক টুইট বার্তায় উল্লেখ করছেন এটি তার হোমকামিং ছবি। আর জীবনের প্রথম বাংলা ছবি বলে কথা। তবে বলিউড থেকে আসা অভিনেত্রীদের মাঝে তিনিই প্রথম, যিনি কিনা নিজের ডাবিং নিজেই করছেন। এর আগে বাঙালী মেয়ে বিপাশা বসু পর্যন্ত অভিনয় করে গেছেন তবে ডাবিংটা নিজে করেননি। সুস্মিতার সমসাময়িক প্রতিদ্বন্দ্বীখ্যাত ঐশ্বরিয়া আরও আগে চোখের বালি দিয়ে বাংলা ছবিতে নাম লেখালেও ডাবিং তার করা নয়। সেখানে নিজের ছবির ডাবিং নিজেই করে সুস্মিতা অবশ্যই এগিয়ে থাকছেন।

এ ছবিতে অঞ্জন দত্ত ও সুস্মিতা ছাড়াও অভিনয় করছে যীশু সেনগুপ্ত ও ঋত্বিক চক্রবর্তী। সম্প্রতি ‘২৪ ঘন্টা’ চ্যানেলে দেয়া এক আলাপচারিতায় সৃজিত তার আর্টিস্টদের সম্পর্কে কথা জানাতে গিয়ে বললেন, ‘যীশু আমার কাছে একটা কাদামাটির মতো, ওকে দিয়ে আমি যা ইচ্ছা তাই বানাতে পারি’। আর ঋত্বিক চক্রবর্তীর ক্ষেত্রে সৃজিত জানাচ্ছেন তার অভিনয়ে মুগ্ধ হয়ে মাঝে মাঝে কাট বলতে ভুলে যেতেন তিনি। আর অঞ্জন দত্ত? সৃজিত অন ক্যামেরা স্বীকারোক্তি দিলেন, ‘নির্বাক’-এ অঞ্জন দত্ত যে অভিনয় করেছে সেটা ভারতবর্ষে আর কেউ করতে পারবে না। বাকিটুকু তোলা রইল বড় পর্দার জন্য।

প্রকাশিত : ২৩ এপ্রিল ২০১৫

২৩/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: