আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৬ ডিসেম্বর ২০১৬, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, মঙ্গলবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

কাউন্সিলর প্রার্থী নিয়ে বিএনপি-জামায়াত বিরোধ তুঙ্গে

প্রকাশিত : ২৩ এপ্রিল ২০১৫
  • ঢাকার ২৬ ওয়ার্ডে বিএনপির প্রতিপক্ষ জামায়াত চট্টগ্রামেও ১৪ ওয়ার্ডে ছাড় দেবে না

বিভাষ বাড়ৈ ॥ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে বিএনপিপন্থী সংগঠন আদর্শ ঢাকা আন্দোলনের প্রকাশ করা ২০ দলীয় জোটের প্রার্থীদের বিষয়ে আপত্তি তুলেছে জামায়াত। ২০ দলীয় জোট সমর্থিত কাউন্সিলর হিসাবে তালিকা প্রকাশ করা হলেও জামায়াত বলছে, তালিকার কেউ তাদের প্রার্থী নয়। ঐ তালিকা প্রকাশ করার পরই প্রার্থীদের প্রত্যাখান করে দলের নেতাকর্মীদের অসন্তোষের কথা বিএনপি চেয়ারপার্সনসহ হাই কমান্ডকে জানিয়ে দিয়েছে জামায়াত-শিবির। তালিকা তৈরির সময়ে কোন যোগাযোহ করা হয়নি অভিযোগ তুলে জোট সমর্থিত মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের পক্ষে কাজ করার সিদ্ধান্ত থেকেও সরে আসার হুৃমকি দিয়েছেন জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীরা। বিএনপির শীর্ষ নেতারা বিষয়টি সুরাহা করার চেষ্টা করলেও জামায়াত-শিবির দাবি তুলেছে, যেসব ওয়ার্ডে তাদের কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছে সেসব ওয়ার্ড থেকে বিএনপির প্রার্থীদের সরে দাঁড়াতে হবে।

জানা গেছে, ঢাকার দুই সিটির ৯৩ ওয়ার্ডের ২৬টিতে বিএনপির প্রতিপক্ষ এখন জামায়াতে ইসলামী। সাধারণ ওয়ার্ডে ১৯ জন ও সংরক্ষিত মহিলা ওয়ার্ডে ৭ জন জামাত সমর্থিত প্রার্থী প্রতিদ্বন্দিতা করছেন। এ নিয়ে বিএনপি-জামাতের মধ্যে চলছে মতবিরোধ। কৌশলগত কারণে মেয়র পদে শেষ পর্যন্ত জোটের প্রধান দল বিএনপিকে জামায়াত-শিবির নেতাকর্মীরা কোনমতে ছাড় দিলেও কাউন্সিলর পদে কোন ছাড় দিতে নারাজ।

চট্টগ্রামেও ১৪টি ওয়ার্ডে চলছে মতবিরোধ। সিটি নির্বাচনে নিজেদের মতো করে প্রভাব থাকা এলাকাগুলোতে কাউন্সিলর পদের জন্য নেতারা কৌশলে কাজ করছে। মেয়র পদে বিএনপির প্রার্থীর পক্ষে সামনে থেকে কাজ করবেনা জামায়াত-শিবির নেতারা। জামায়াতের কেন্দ্রীয় মজলিসে শুরার দায়িত্বশীল একাধিক নেতা বলেছেন, জামায়াতের প্রধান দাবি যেসব ওয়ার্ডে তাদের কাউন্সিলর প্রার্থী রয়েছে সেসব ওয়ার্ড থেকে বিএনপির প্রার্থীদের সরে দাঁড়াতে হবে। আর এই বিষয়টি নিয়ে বিএনপির শীর্ষ পর্যায়ের কিছু নেতার সঙ্গে জামায়াত নেতাদের আলোচনা চলছে। শেষ পর্যন্ত নির্বাচন নিয়ে বিএনপির মনোভাব কী হবে তা নিয়ে তারা সন্দিহান। কারন বিভিন্ন কারণে শেষ পর্যন্ত নির্বাচন বয়কটের মতো সিদ্ধান্তও নিতে পারেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

জানা গেছে, নাশকতার দায়ে অভিযুক্তদের আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর গ্রেফতারের ঘোষণা, ফৌজদারি মামলা, ধরপাকড় ও প্রার্থিতা বাতিলের আশঙ্কায় এখন পর্যন্ত ঢাকা ও চট্টগ্রামে কাউন্সিলর পদপ্রার্থীদের তালিকা আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশ করছে না জামায়াত। এক্ষেত্রে অত্যন্ত গোপনীয়তা রক্ষার করার নির্দেশনা রয়েছে দলের ভেতরে। তবে তার পরেও শিবিরের বাঁেশর কেল্লাহসনহ জামায়াত-শিবির পরিচালিত বিভিন্ন মাধ্যমে চলছে নিজেদের র্প্র্থাীর পক্ষে প্রচারনা। কোন ক্ষেত্রেই জামায়াত-শিবির তাদের প্রার্থীকে ২০ দলের প্রার্থী বলছেনা। শোডাউন না করে নিভৃতে, চুপচাপ এবং প্রতিনিধিদের মাধ্যমে মনোনয়নপত্র উত্তোলন এবং দাখিল করেছিল দলটির সমর্থিত প্রার্থীরা। কথা হল ঢাকা দক্ষিণ ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে জামায়াত সমর্থিত প্রার্থী বোরহান উদ্দীনের সঙ্গে। এই ওয়ার্ড থেকে জামায়াতের আলোচিত ও প্রভাবশালী সাবেক কমিশনার আবদুর রবও মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন তার এক আইনজীবীর মাধ্যমে।

তবে তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা থাকায় তার স্ত্রী এবং দলীয় নেতা বোরহান উদ্দীনও মনোনয়ন সংগ্রহ ও জমা দিয়েছেন। বিএনপির ওপর ক্ষোভ প্রকাশ করে জামায়াতের চট্টগ্রামের এক নেতা, ঢাকার দুই সিটিতে মেয়রপ্রার্থী ঠিক করলো বিএনপি। বললো প্রার্থীরা ২০ দলের।

অথচ সেখানে আমাদের ডাকা হলো না। আমাদের মতামত নেয়া হলো না। আবার আদর্শ ঢাকা আন্দোলনের ব্যনার থেকে হঠা’ এমাজ উদ্দিন সাহেব জোট সমর্থিত প্রার্থী বলে যাদের তালিকা প্রকাশ করলেন তাতে সব বিএনপির নেতার নাম।

প্রকাশিত : ২৩ এপ্রিল ২০১৫

২৩/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: