কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

নির্বাচন বিতর্কিত করার অপচেষ্টা চালাচ্ছেন খালেদা

প্রকাশিত : ২২ এপ্রিল ২০১৫
  • ইসিকে সতর্ক করেছিল আওয়ামী লীগ

স্টাফ রিপোর্টার ॥ নির্বাচনী প্রচারের নামে বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার অপতৎপরতার মাধ্যমে সিটি নির্বাচনের উৎসবমুখর পরিবেশ যাতে নষ্ট না হয়, সে বিষয়ে নির্বাচন কমিশনকে ব্যবস্থা গ্রহণের আহ্বান জানিয়েছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। দলটির অভিযোগ, নিশ্চিত পরাজয় জেনেই নির্বাচনকে বিতর্কিত করতে এ হামলার নাটক করা হয়েছে।

মঙ্গলবার ধানম-িস্থ আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের পক্ষ থেকে আয়োজিত সাংবাদিক সম্মেলনে এ অভিযোগ করেন কেন্দ্রীয় প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, প্রকৃতপক্ষে খালেদা জিয়া বিশৃঙ্খল পরিস্থিতি সৃষ্টির মাধ্যমে পানি ঘোলা করে সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে বিতর্কিত করার অপচেষ্টা চালাচ্ছেন। সোমবারের ঘটনা সেই অপচেষ্টারই অংশ। কারণ বিএনপি নেত্রী বুঝতে পেরেছেন সিটি নির্বাচনে তাঁর সমর্থিত প্রার্থীরা পরাজিত হবেন। খালেদা জিয়া ৯১ দিন গুলশান অফিসে নিজেকে নিজে অবরুদ্ধ করে রেখে যেমন নাটক সাজিয়েছিলেন, সোমবারের ঘটনাও ভিন্ন আরেকটি নাটক বৈ আর কিছু নয়।

তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশনকে আমরা বহু আগে থেকেই খালেদা জিয়ার এই অপতৎপরতা সম্পর্কে সভা-সমিতির মাধ্যমে সতর্ক করেছিলাম। তাই নির্বাচন কমিশনকে অনুরোধ জানাব সিটি নির্বাচনের উৎসবমুখর পরিবেশ যাতে খালেদা জিয়ার নির্বাচনী প্রচারের নামে নষ্ট না হয়, সে জন্য যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হোক।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, গত ৩ মাসের বেশি সময় ধরে খালেদা জিয়া হরতাল-অবরোধের নামে ঢাকাসহ পুরো দেশের মানুষকে অবরুদ্ধ করে রাখার অপচেষ্টা চালিয়েছেন। কয়েক হাজার মানুষ পেট্রোলবোমা ও বোমার আঘাতে আহত হয়েছে। দেশের জনগণ এই সমস্ত সন্ত্রাসী ও জনবিরোধী জঙ্গী কর্মকা-ের জন্য তাঁর উপর প্রচ-ভাবে বিক্ষুব্ধ। আর খালেদা জিয়া বলেছিলেন, সরকারের পতন ছাড়া ঘরে ফিরে যাবেন না। তিনি ৯১ দিন ধরে সহিংসতার মাধ্যমে সরকারের পতন ঘটাতে না পেরে এখন নতুন ষড়যন্ত্রে মেতে উঠেছেন।

তিনি বলেন, আমরা অনেক আগে থেকেই বলে আসছিলাম খালেদা জিয়া নির্বাচনী প্রচারে নামলে বিক্ষুব্ধ জনগণ তাঁকে প্রতিরোধ করতে পারে। এতে নির্বাচনী পরিবেশ নষ্ট হতে পারে। গত কয়েকদিন ধরে খালেদা জিয়া নির্বাচনী প্রচারের জন্য যেখানেই গেছেন, সেখানেই জনগণ তাঁর প্রতি বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে। তিনি বলেন, সোমবার খালেদা জিয়া পুলিশ কিংবা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে অবহিত না করেই নির্বাচনী প্রচারে বের হয়েছিলেন। কাওরান বাজারে গেলে সেখানে যখন জনগণ বিক্ষোভ প্রদর্শন করে, তখন খালেদা জিয়ার নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত সিএসএফ-এর সদস্যরা হঠাৎ গুলিবর্ষণ করে। এতেই সেখানে বিশৃঙ্খল পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। এছাড়া আমরা জানতে পেরেছি, বিএনপি কাওরান বাজার এলাকায় (২৬ নং ওয়ার্ড) যে কাউন্সিলর প্রার্থীকে বিএনপি সমর্থন জানিয়েছে, সেখানে আরও অনেকেই বিএনপির সমর্থন চেয়েছিল। তারা বিএনপির সমর্থন না পাওয়াতে বিক্ষুব্ধ হয়েছে। সোমবারের ঘটনায় তাদেরও সংশ্লিষ্টতা থাকতে পারে।

সাংবাদিক সম্মেলনে এ সময় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সদস্য সুজিত রায় নন্দী ও এনামুল হক শামীম উপস্থিত ছিলেন।

প্রকাশিত : ২২ এপ্রিল ২০১৫

২২/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: