মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১১ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

লিবিয়া উপকূলে ৭শ’ অভিবাসী নিয়ে নৌকাডুবি ২৮ জন উদ্ধার

প্রকাশিত : ২০ এপ্রিল ২০১৫, ০১:২৮ এ. এম.

জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ আফ্রিকা থেকে সাগরপথে অবৈধভাবে ইউরোপে আসার সময় ইঞ্জিনের নৌকা ডুবে গেলে আবারও বহু লোকের মৃত্যুর আশঙ্কা করা হচ্ছে। ভূমধ্যসাগরে অভিবাসী ভর্তি নৌকাডুবির এ ঘটনাটি ঘটেছে লিবিয়ার উপকূলের কাছে। নৌকাটিতে সাতশ’র মত যাত্রী ছিল। তবে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত মাত্র ২৮ জনকে জীবিত উদ্ধার করা গেছে। খবর বিবিসি অনলাইনের।

এ দুর্ঘটনার পর, গত সাড়ে তিন মাসে ইউরোপে আসতে গিয়ে সাগরে ডুবে নিহতের সংখ্যা দাঁড়ালো অন্তত দেড় হাজারে।

লিবিয়ার সমুদ্র উপকূল থেকে ১৭ মাইল দূরে শনিবার মধ্যরাতে আফ্রিকা থেকে সাতশ’র মতো অভিবাসী নিয়ে নৌকাটি ভূমধ্যসাগরে ডুবে যায়। তাদের গন্তব্য ছিল ইউরোপের দেশ ইতালী। নৌকাটি যেখানে ডুবেছে সেটি ইতালীর ল্যাম্পেডুসা দ্বীপের দক্ষিণে, ইতালীর উপকূল থেকে সমুদ্রের ১৩০ মাইল গভীরে।

বলা হচ্ছে, অভিবাসীদের বহনকারী নৌকাটি যখন সাগরে আরেকটি বাণিজ্যিক নৌকাকে অতিক্রম করছিল, তখন তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করতে যাত্রীরা একপাশে ছুটে গেলে ভারসাম্য হারিয়ে নৌকাটি ডুবে যায়।

সাংবাদিকরা বলেন, এ ধরনের ঘটনা নতুন কিছু নয়। এর আগে এমন কী উদ্ধার অভিযানের সময়েও এ ধরনের নৌকাডুবির ঘটনা ঘটেছে।

জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক সংস্থা এ ঘটনাটিকে ভূমধ্যসগারে আজ পর্যন্ত যত দুর্ঘটনা ঘটেছে তার মধ্যে সবচেয়ে মর্মান্তিক বলে উল্লেখ করেছে।

সংস্থাটির একজন মুখপাত্র ক্যারলোটা সামি বলছেন, বেঁচে যাওয়া একজন যাত্রী তাকে জানিয়েছেন যে, নৌকাটিতে কমপক্ষে সাতশ’ যাত্রী ছিল। এ পর্যন্ত হাতেগোনা মাত্র কয়েকজনকে উদ্ধার করা হয়েছে। উদ্ধার অভিযানের কাজে সমন্বয় করছে কোস্টগার্ড। মাল্টাও উদ্ধার কাজে সহযোগিতা করছে। তিনি আশা করছেন পানি যেহেতু খুব বেশি ঠাণ্ডা না, সে কারণে আরও কিছু মৃতদেহ উদ্ধার করা যেতে পারে। তবে যাই হোক না কেন, ভূমধ্যসাগরে এটা সবচেয়ে মর্মান্তিক ঘটনা। ডুবে যাওয়া লোকজনের খোঁজে ব্যাপক তল্লাশি চলছে।

উদ্ধার অভিযানে অংশ নিচ্ছে ২০টির মতো জাহাজ ও তিনটি হেলিকপ্টার। উপকূল রক্ষী, কাস্টমসের জাহাজ এমনকি মাছ ধরার ছোট ছোট নৌকাও উদ্ধার কাজে সহযোগিতা করছে।

ইতালীর উপকূল রক্ষীবাহিনীর মুখপাত্র বিবিসিকে বলেন, তারা এখন লোকজনকে খুঁজে বের করে তাদের উদ্ধারের ওপর জোর দিচ্ছেন। তবে তার আশঙ্কা যে এক সময় এটি শুধু মৃতদেহ উদ্ধারের অভিযানে রূপ নেবে।

সম্প্রতি এই সাগর অতিক্রম করে ইতালীতে লোকজনের পাড়ি দেয়ার ঘটনা বৃদ্ধি পেয়েছে। এবছরেই এভাবে ইউরোপ আসতে গিয়ে প্রাণ হারিয়েছে দেড় হাজারের মতো মানুষ।

মাত্র কয়েক দিন আগে লিবিয়ার উত্তর উপকূলে আরও একটি নৌকাডুবির ঘটনায় চারশ’র মতো মানুষের মৃত্যু হয়।

প্রকাশিত : ২০ এপ্রিল ২০১৫, ০১:২৮ এ. এম.

২০/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: