কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

দুই মেয়রপ্রার্থী কর্মী সমর্থকদের অংশগ্রহণে ॥ গণসংযোগ অব্যাহত

প্রকাশিত : ২০ এপ্রিল ২০১৫

স্টাফ রিপোর্টার, চট্টগ্রাম অফিস ॥ চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের গণসংযোগে তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের অংশগ্রহণ ক্রমেই বাড়ছে। প্রার্থীরা যেখানে যাচ্ছেন সেখানেই নামছে ভিড়। নগর উন্নয়নে আশ্বাস দেয়ার পাশাপাশি পাল্টাপাল্টি দোষারোপ ও সমালোচনাও বৃদ্ধি পাচ্ছে। রবিবারও নগরীর অলিগলিতে প্রার্থীদের সমর্থনে প্রচারে নামে শত শত গ্রুপ। অসংখ্য টিমে বিভক্ত হয়ে তারা যাচ্ছেন দোকানে দোকানে ও বাড়ি বাড়ি। চলছে প্রতিশ্রুতির ফুলঝুড়ি।

আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থী আ জ ম নাছির উদ্দিন রবিবার গণসংযোগ চালান নগরীর লালদীঘির পাড়, চাক্তাই, খাতুনগঞ্জ, রাজাখালি, আনসার ক্লাবসহ বিভিন্ন এলাকায়। তার সঙ্গে ছিলেন তৃণমূল পর্যায়ের শত শত কর্মী সমর্থক। ভিড়ের চাপ এতটাই পরিলক্ষিত হয় যে, তারপক্ষে সাধারণ ভোটারদের কাছাকাছি হওয়াও কঠিন হয়ে পড়ে। আশপাশের অনেক সমর্থকই শুভেচ্ছা জানান। গণসংযোগকালে তিনি ভোটারদের উদ্দেশে বলেন, হাতি প্রতীকে ভোট দিয়ে আমাকে নির্বাচিত করুন। আমি একটি নান্দনিক শহর উপহার দেব। অপরদিকে, বিএনপি সমর্থিত চট্টগ্রাম উন্নয়ন আন্দোলনের প্রার্থী এম মনজুর আলম রবিবার গণসংযোগ করেন বহদ্দারহাট, পাঁচলাইশ ও সংলগ্ন এলাকায়। তার সঙ্গে ছিলেন দলের কেন্দ্রীয় ও জেলা নেতারা। ভোটারদের প্রচারপত্র বিলিকালে তিনি বলেন, তার মেয়াদে চট্টগ্রাম নগরীতে যত উন্নয়ন কাজ হয়েছে অতীতে তা হয়নি। তিনি বলেন, পুনরায় মেয়র নির্বাচিত হলে কর্পোরেশনকে জনগণের আস্থার ঠিকানায় পরিণত করব।

আ জ ম নাছিরের গণসংযোগ ॥ আ জ ম নাছির উদ্দিনের রবিবারের গণসংযোগে তার সঙ্গে ছিলেন চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক নোমান আল মাহমুদ, আওয়ামী লীগ নেতা ও ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থী হাসান মাহমুদ হাসনী, চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগ নেতা তিমির বরণ চৌধুরী প্রমুখ। তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের গণসংযোগ অনেকটা মিছিলের রূপ ধারণ করে। নেতাকর্মী ও সমর্থক পরিবেষ্টিত অবস্থায় আ জ ম নাছির হাত উঁচিয়ে দোয়া ও আর্শীবাদ কামনা করেন। তিনি বলেন, শুধু একটিবার সুযোগ দিন। আমি নান্দনিক চট্টগ্রাম উপহার দেব। চট্টগ্রাম পরিণত হবে একটি সত্যিকারের মেগাসিটিতে। তিনি জলাবদ্ধতা নিরসনসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে বিএনপি সমর্থিত সাবেক মেয়র সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছেন বলে উল্লেখ করে বলেন, মেয়র নির্বাচিত হলে সরকারের সহায়তায় চট্টগ্রাম নগরীর চেহারা পাল্টে দেবেন। আ জ ম নাছিরের এ গণসংযোগে কিছুটা বিশৃঙ্খলাও সৃষ্টি হয়। বিশেষ করে একই ওয়ার্ড থেকে আওয়ামী লীগের সমর্থক দাবিদার দুই কাউন্সিলর প্রার্থী ফয়েজুল্লাহ বাহাদুর ও হাজী নুরুল হক ও তার সমর্থকরা যোগ দেয়ায় একপর্যায়ে ধাক্কাধাক্কি শুরু হয়ে যায়। তবে নেতাদের হস্তক্ষেপে শান্ত হয়।

মনজুর আলমের গণসংযোগ ॥ বিএনপি সমর্থিত মেয়র প্রার্থী এম মনজুর আলম রবিবার গণসংযোগ চালান নগরীর বহদ্দারহাট, পাঁচলাইশ, শুলকবহর, কাতালগঞ্জ ও বাদুড়তলা এলাকায়। এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন দলের কেন্দ্রীয় ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল নোমান, দক্ষিণ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক গাজী শাহজাহান জুয়েল, মহানগর জাসাসের সভাপতি কাজী আকবর, মহানগর যুবদলের সভাপতি কাজী বেলাল প্রমুখ। এদিন তার সমর্থনে কয়েকটি পথসভাও অনুষ্ঠিত হয়। এতে দলের কেন্দ্রীয় ও জেলা নেতারা ছাড়াও যুবদল, ছাত্রদল ও মহিলা দলসহ বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। দলের নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন। মেয়র প্রার্থী মনজুর আলমের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক আবদুল্লাহ আল নোমান বলেন, এ নির্বাচন সরকারের বিরুদ্ধে জাতীয়তাবাদী শক্তির চ্যালেঞ্জ। ২৮ এপ্রিল নিরব ব্যালট বিপ্লবের মাধ্যমে সরকারের প্রতিটি নির্যাতনের জবাব দেয়া হবে। তিনি বলেন, এ নির্বাচনের প্রতিটি ব্যালট হবে প্রতিবাদের ভাষা। মনজুর আলমের পরিচয় তার কর্মে। উন্নয়নই মনজুর আলমের একমাত্র চাওয়া পাওয়া। গত সাড়ে চার বছরে তিনি তার উন্নয়ন কর্মকা- দিয়ে নগরবাসীর মন জয় করেছেন। তিনি বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীর জন্য কমলালেবু প্রতীকে ভোট চেয়ে বলেন, ইতোমধ্যে জনসমর্থন দেখা যাচ্ছে। জনগণ মনজুর আলমকে বিপুল ভোটে বিজয়ী করবে।

মেয়র প্রার্থী মনজুর আলম বলেন, সাড়ে ৪ বছর মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালনকালে দলমতের উর্ধে উঠে নগরবাসীর সেবক হিসেবে কাজ করেছি। আগামীতেও মেয়র হিসেবে নয়, নির্বাচিত হলে জনগণের সেবক হিসেবে কাজ করে যাব। নগর ভবনকে নগরবাসীর আস্থার ঠিকানায় পরিণত করবো। শুলকবহর এলাকায় পথসভা শেষে মেয়র প্রার্র্র্থী মনজুর আলম ও আবদুল্লাহ আল নোমান নগরীর কাতালগঞ্জ, বাদুড়তলা, বড় গ্যারেজ, সুগন্ধা সড়ক, এশিয়ান হাউজিং, মির্জাপুল, সুগন্ধা ও নাছিরাবাদ হাউসিং সোসাইটি এলাকায় ব্যাপক গণসংযোগ করেন। মনজুর আলম বলেন, মেয়র নির্বাচিত হলে তিনি নগরীর জলাবদ্ধতা নিরসনে অসমাপ্ত কাজ শেষ করবেন।

প্রকাশিত : ২০ এপ্রিল ২০১৫

২০/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: