মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

নাদালকে হারিয়ে জোকোভিচের প্রতিশোধ

প্রকাশিত : ২০ এপ্রিল ২০১৫

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ গত বছর ফরাসী ওপেনের ফাইনালে মুখোমুখি হয়েছিলেন রাফায়েল নাদাল ও নোভাক জোকোভিচ। কিন্তু ফাইনালে নাদালের কাছে হেরে যান জোকোভিচ। এবার সেই হারের যন্ত্রণা নিয়েই মন্টে কার্লো মাস্টার্সের সেমিফাইনালে নাদালের মুখোমুখি হন বিশ্ব টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ের নাম্বার ওয়ান তারকা। ২০০৫ সাল থেকে টানা আট বছর মন্টে কার্লো মাস্টার্সের চ্যাম্পিয়ন নাদালকে শনিবার ৬-৩ এবং ৬-৩ গেমে হারিয়ে সেই প্রতিশোধটাও নিয়ে নেন সার্বিয়ান তারকা জোকোভিচ।

রাফায়েল নাদালকে হারানোর মাধ্যমে জোকোভিচ নিজের জয়ের ধারা ১৬ ম্যাচ পর্যন্ত অব্যাহত রাখার রেকর্ড গড়লেন। ক্লে কোর্ট মাস্টার্সের এই টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় শিরোপার জন্য ফাইনালে তার প্রতিপক্ষ এখন ষষ্ঠ বাছাই টমাস বার্ডিচ। সেমিফাইনালে নাদাল ও জোকোভিচ উভয়ই দারুণ পারফর্মেন্স উপহার দিয়েছেন। বিশেষ করে নাদালের আত্মবিশ্বাসী ও আগ্রাসী টেনিসের কাছে জোকোভিচকে কিছুটা সময় অসহায় মনে হয়েছে। কিন্তু দীর্ঘদিনের কব্জির ইনজুরির পাশাপাশি অসুস্থতার কারণে বেশ কিছুদিন কোর্টের বাইরে থাকা নাদালের জন্য আন্তর্জাতিক অঙ্গন এখনও যে পুরোপুরি ফিট নয় তা হাড়ে হাড়ে জানিয়ে দিলেন সার্বিয়ান টেনিস তারকা নোভাক জোকোভিচ। টেনিস র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ তারকা জোকোভিচের ধারাবাহিকতার কাছে শেষ পর্যন্ত হার মানতে হলো বাঁহাতি স্প্যানিয়ার্ডকে। গত বছর প্যারিস মাস্টার্সের শিরোপা পর জোকোভিচ চলতি বছর পরপর দুটি টুর্নামেন্ট অর্থাৎ ইন্ডিয়ান ওয়েলস ও মিয়ামিতে শিরোপা ছিনিয়ে নিয়েছেন। প্রথম খেলোয়াড় হিসেবে এখন মৌসুমের তিন মাস্টার্স শিরোপা জয়ের হাতছানি তার সামনে।সেমিফাইনালে প্রথম সেটের সপ্তম গেমে নাদাল ব্রেক পয়েন্ট অর্জনের সুযোগ নষ্ট করেন। এমনকি বেশ কয়েকবার দারুণ কিছু শটে জোকোভিচকে বোকা বানানোর পরেও প্রথম সেটটি না পাওয়া নাদালের জন্য ছিল চরম হতাশার। ব্রেক পয়েন্ট পাওয়ার মুহূর্তটিতে আরেকটি দারুণ র‌্যালি উপভোগ করে সমর্থকরা। কিন্তু অসাধারণ এক লব শটে এবার পয়েন্ট ছিনিয়ে নেন জোকোভিচ। পরের গেমে নাদাল একটি সহজ ব্যাকহ্যান্ড নষ্ট করার সুবাদে ডাবল ব্রেক পয়েন্ট পান জোকেভিচ। প্রথমটি নাদাল রক্ষা করলেও পরেরটি আর শেষ রক্ষা হয়নি। দ্বিতীয় সেটে অবশ্য লড়াইটা শুরু থেকেই ছিল সমানে সমান। বিশেষ করে ম্যাচে টিকে থাকার জন্য নাদাল ছিলেন বেশ আত্মবিশ্বাসী। প্রথম সার্ভিস গেমে তিনি দুটি ব্রেক পয়েন্ট রক্ষা করেন। কিন্তু জোকোভিচের আগ্রাসী টেনিসের কাছে সপ্তম গেমে গিয়ে হাল ছাড়তে বাধ্য হন স্প্যানিশ তারকা। নবম গেমে গিয়ে আবারও ব্রেক পয়েন্ট ছিনিয়ে নিয়ে জোকোভিচ নাদালের বিপক্ষে ৪৩ বারের মোকাবেলায় ২০ জয় অর্জন করেন।

গত বছর জোকোভিচের বিপক্ষে ফ্রেঞ্চ ওপেনের ফাইনালে জয়ের পরে স্প্যানিশ তারকার বিশ্বের শীর্ষ খেলোয়াড়ের বিপক্ষে এটাই ছিল প্রথম ম্যাচ। এর আগে বার্ডিচ অপর সেমিফাইনালে ৬-১, ৬-৪ গেমে সহজেই গায়েল মনফিসকে পরাজিত করে প্রথমবারের মতো মন্টে কার্লোর ফাইনাল নিশ্চিত করেছেন। চেক শীর্ষ তারকার বিপক্ষে ১৪তম বাছাই মনফিসের সাত ম্যাচে এটা ষষ্ঠ পরাজয়। ১৫ বছরে কোন ফ্রেঞ্চ খেলোয়াড়ের সামনে মন্টে কার্লোর ফাইনালে যাওয়ার স্বপ্নও এর মাধ্যমে শেষ হয়ে যায় তার।

প্রকাশিত : ২০ এপ্রিল ২০১৫

২০/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

খেলার খবর



ব্রেকিং নিউজ: