আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৮ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বৃহস্পতিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

নিষ্প্রভ সাইদ আজমল

প্রকাশিত : ১৮ এপ্রিল ২০১৫

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ বিশ্বকাপে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে কোয়ার্টার ফাইনালে পাকিস্তান পেসার ওয়াহাব রিয়াজ একটি স্পেলে কী বোলিংই না করেছিলেন। ৫ ওভারের প্রথম স্পেলটিতে ১৯ রান দিয়ে ২ উইকেটও নিয়ে নিয়েছিলেন! সেই স্পেলটি এখনও তরতাজা যেন। বাংলাদেশের বিপক্ষে অবশ্য সেই রকম কোন কিছুই করতে পারেননি ওয়াহাব। ৪ উইকেট নিয়েছেন ঠিক। কিন্তু রান দিয়েছেন ৫৯! গুরুত্বপূর্ণ চার ব্যাটসম্যানকেই আউট করেছেন। তামিম, মুশফিক, সাকিব ও সাব্বিরের উইকেট নিয়েছেন। কিন্তু তা খুব কাজে আসেনি। ওয়াহাব তো তাও বল হাতে কিছু করে দেখিয়েছেন। যাকে নিয়ে এত আশা-ভরসা। সেই স্পিনার আজমল তো মনে হচ্ছে ফুরিয়েই গেলেন! নীরব থাকলেন আজমল। ১০ ওভার বল করে ৭৪ রানও দিলেন!

বোলিং এ্যাকশন শুধরে আজমল এতটা ধারহীন বোলার হয়ে পড়বেন তা কল্পনাই করা যায় না। বাংলাদেশ-পাকিস্তান প্রথম ওয়ানডের আগে সাকিব আল হাসান বলেছিলেন, ‘সাঈদ আজমল নিঃসন্দেহে ভাল বোলার। কিন্তু এতদিন পর (৭ মাস পর) খেলছে। বোলিং এ্যাকশনও শুধরেছে। সেই রকম দ্যুতি কী আর ছড়াতে পারবেন?’ সাকিবের কথারই প্রমাণ মিলে গেল। সুনীল নারাইনে যেমন বোলিং এ্যাকশন শুধরে আইপিএলে মার খাচ্ছেন। আজমল দীর্ঘদিন পর আবার বল করতে নেমে বাংলাদেশের কাছে ধরা খেয়েছেন। তাও আবার পাকিস্তানের বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি রানই দিয়েছেন আজমল!

সিরিজে বাংলাদেশের চিন্তার বড় কারণ হতে পারতেন সাঈদ আজমল। কিন্তু বোলিং এ্যাকশন শুধরানো আজমল যে, আর আগের রূপে নেই। নেই সেই ধার, এ্যাকশন, সবই। বিশ্বকাপ মিস করা এই অফ স্পিনার শুক্রবার বাংলাদেশের বিপক্ষে ক্যারিয়ারের সবচেয়ে খরচে বোলিং করেছেন। মিরপুরে ১০ ওভার বোলিং করে আজমল দিয়েছেন ৭৪ রান। নেই কোন উইকেট। ১১২ ওয়ানডে ক্যারিয়ারে এর আগে সত্তরের বেশি রান দিয়েছেন আজমল একবার। সেটা ২০১৩ সালে। ডাবলিনে আয়ারল্যান্ডের বিরুদ্ধে ১০ ওভার বল করে ৭১ রান দিয়েছিলেন। কাকতলীয়ভাবে সেবারও আজমল কোন উইকেট পাননি।

৩৭ বছর বয়সী এই স্পিনারকে সাবলীল ভঙ্গিতেই খেলেছেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। ইনিংসের ১১তম ওভারে বোলিংয়ে আসেন আজমল। প্রথম স্পেলে ৪ ওভারে দিয়েছিলেন ৭ রান। দুর্দান্ত বোলিংই করেছেন। পঞ্চম ওভারেও দিয়েছেন মাত্র ৪ রান। ৫ ওভারে ১১ রান দেয়া আজমল তারপরই দেখেছেন মুশফিকদের বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ের রূপ। পরের ৫ ওভারে তিনি দেন ৬৩ রান। যেখানে ১৪, ১৮, ৫, ১৬, ১০ রান দিয়েছেন পাকিস্তানের এই অভিজ্ঞ স্পিনার।

বাংলাদেশের বিপক্ষে এর আগে ৭ ওয়ানডে খেলেছেন আজমল। কোনবারই এমনটি হয়নি। উইকেটশূন্য থাকেননি আজমল। ১২ উইকেট নেয়ার মধ্যে ২, ১ উইকেট ছিলই। এবার প্রথমবার এমনটি হলো। বাংলাদেশের বিপক্ষে উইকেটহীন থাকলেন আজমল। শুধু কী তাই। রানও দিলেন সর্বোচ্চ ৭৪!

প্রকাশিত : ১৮ এপ্রিল ২০১৫

১৮/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

খেলার খবর



ব্রেকিং নিউজ: