মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

হিংসা ও অবিশ্বাসের রাজনীতি বিএনপি পরিহার করতে চায়

প্রকাশিত : ১২ এপ্রিল ২০১৫
  • সিটি নির্বাচনের প্রচারে অংশ নেয়ার সুযোগ দাবি রিপনের

স্টাফ রিপোর্টার ॥ গণতন্ত্রকে নতুনভাবে এগিয়ে নিতে বিএনপি হিংসা ও অবিশ্বাসের রাজনীতি পরিহার করতে চায় বলে মন্তব্য করে ঐক্যবদ্ধ বাংলাদেশ গড়তে সরকারের সহযোগিতা চেয়েছেন বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ড. আসাদুজ্জামান রিপন। শনিবার দুপুরে নয়াপল্টন বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ৫ জানুয়ারির একতরফা নির্বাচনে দেশের ক্ষুণ্ন হওয়া ভাবমূর্তি পুনরুদ্ধার ও গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে শক্তিশালী করতে সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে সামনে রেখে বিএনপি নেতাকর্মীদের মামলা থেকে জামিন দিয়ে উৎসবমুখর পরিবেশে সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের প্রচারে অংশ নেয়ার সুযোগ করে দেয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।

সরকার দেশে একটি শ্বাসরুদ্ধকর অবস্থা তৈরি করে রেখেছিল দাবি করে তিনি বলেন, আমরা দীর্ঘ ১০২ দিন পর আমাদের পার্টি অফিসে সংবাদ সম্মেলন করছি। গত বছরের ২৯ ডিসেম্বর সর্বশেষ আমরা সংবাদ সম্মেলন করেছিলাম।

তিনি বলেন, দেশের প্রধান রাজনৈতিক দলের কার্যালয় বন্ধ করে দেয়া গণতান্ত্রিক সরকারের শাসনামলে কল্পনাতেও আসে না। বর্তমান সরকার গণতন্ত্রের লেবাসে একটি ফ্যাসিস্ট সরকার। এ কারণে তারা দেশের বৃহত রাজনৈতিক দলের কার্যালয় বন্ধ করে দেয়। এছাড়া তিন মাস ধরে বিএনপি চেয়ারপার্সনকে অবরুদ্ধ করে রাখা, দলীয় প্রধান কার্যালয়ে পুলিশের তালা দেয়া, নেতাকর্মীদের গণগ্রেফতার ও নির্যাতনসহ বিভিন্ন বিষয় সংবাদকর্মীদের সামনে তুলে ধরেন। তিনি বলেন, বিএনপির হাজার হাজার নেতাকর্মীকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। যুগ্ম মহাসচিব সালাহউদ্দিনসহ অসংখ্য নেতাকর্মীকে গুম করে রাখা হয়েছে। আমরা অবিলম্বে তাদের ফিরিয়ে দেয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।

রিপন বলেন, গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে এগিয়ে নিতে রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে কার্যকর বোঝাপড়া প্রয়োজন। তাই সরকারকে প্রতিহিংসার রাজনীতি থেকে বের হয়ে আসার আহ্বান জানাই। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, জনগণ যাকে ইচ্ছে তাকে ভোট দেবে। এতে সরকারের কোন অসুবিধা নেই। আমরা প্রধানমন্ত্রীর এ বক্তব্যে আস্থা ও বিশ্বাস রাখতে চাই। সেজন্য সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হওয়ার জন্য আমাদের দলের কারারুদ্ধ দলের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, যুগ্ম মহাসচিব মোহাম্মদ শাহজাহান, রুহুল কবির রিজভী, সহ-তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিবসহ সব নেতাদের মুক্তি দিতে হবে। এছাড়া ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থী মির্জা আব্বাসকে জামিন দেয়ারও দাবি জানান তিনি। তিনি বলেন, সিটি নির্বাচন সামনে রেখে চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের আনাগোনা বাড়ছে। স্বচ্ছ ও নিরপেক্ষ নির্বাচন নিশ্চিত করতে এসব সন্ত্রাসীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। তিনি বলেন, বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীদের স্বাভাবিক প্রচারে অংশ নিতে দেয়া হচ্ছে না। যাদের নামে মামলা আছে তারা যেন জামিন নিয়ে নির্বাচনী প্রচারণার কাজে অংশ নিতে পারেন এবং ভোটারদের কাছে নির্বিঘেœ ভোট চাইতে যেতে পারেন সে ব্যবস্থা সরকারকেই করে দিতে হবে।

রিপন বলেন, দীর্ঘদিন ধরে রাজধানীর মানুষ নাগরিক সুবিধা থেকে বঞ্চিত। তাই আমরা সিটি নির্বাচনে অংশ নিয়েছি। বিএনপি সব সময় প্রতিযোগিতা ও অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন করতে পছন্দ করে। কিন্তু সরকার অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন করতে ভয় পায়। ঢাকা ও চট্টগাম সিটিতে বিএনপির প্রার্থীরা আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীদের সমান সুবিধা পাচ্ছেন না।

সিটি নির্বাচনে বিএনপি জিতলে তিন মাসের মধ্যে জাতীয় নির্বাচনÑ এমাজউদ্দীন ॥ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ভিসি ও ‘আদর্শ ঢাকা আন্দোলনের’ আহ্বায়ক ড. এমাজউদ্দীন আহমেদ বলেছেন, সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন অবাধ, নিরপেক্ষ ও সুষ্ঠু হলে বিএনপি জিতবে। আর বিএনপি জিতলে তিন মাসের মধ্যে সরকার জাতীয় নির্বাচন দিতে বাধ্য হবে। শনিবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাব প্রাঙ্গণে ‘আমার দেশ পরিবার’ আয়োজিত এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ভোটারদের ভেবেচিন্তে ভোট দিতে হবে।

বিএনপি চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা শওকত মাহমুদ বলেন, মাহমুদুর রহমানের মুক্তির জন্য আন্দোলন না করলে সরকার পরিবর্তন হলে মিডিয়া মালিকদের একই পরিণতি ভোগ করতে হবে। আজকে যারা সরকারের সঙ্গে আঁতাত করে বিভিন্ন মিডিয়ার মালিক হয়েছেন, তাদেরও মাহমুদুর রহমানের মুক্তির জন্য আন্দোলন করা উচিত। অন্যথায় সরকার পরির্বতন হলে তাদেরও মাহমুদুর রহমানের মতো পরিণতি ভোগ করতে হবে।

বেলাল আহমেদকে মুক্তি দিয়ে পুনরায় গ্রেফতারের নিন্দা ॥ শুক্রবার কারাগার থেকে জামিনে মুক্তি দেয়ার পর কাশিমপুর কারাগার ফটক থেকে বিএনপির নির্বাহী কমিটির সদস্য বেলাল আহমেদকে পুনরায় গ্রেফতারের ঘটনায় নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে বিএনপি। শনিবার দলের সহ-দফতর সম্পাদক আসাদুল করিম শাহীন স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এ ঘটনায় নিন্দা জানানো হয়।

প্রকাশিত : ১২ এপ্রিল ২০১৫

১২/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: