কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৩ ডিসেম্বর ২০১৬, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

বাবার ইলিশ প্রতীক নিয়েই ভোটযুদ্ধে সাঈদ খোকন

প্রকাশিত : ১২ এপ্রিল ২০১৫

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ভোটের রাজনীতিতে হার-জিত থাকবেই। সাধারণ মানুষের কাছে যিনি গ্রহণযোগ্য, জনপ্রিয় তিনিই পরবেন বিজয় মুকুট, এটাই স্বাভাবিক। বিএনপির স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য মির্জা আব্বাস ঢাকার সাবেক মেয়র ছিলেন। তবে তিনি ছিলেন খালেদা জিয়ার মনোনীত। বিএনপির এ নেতা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বর্তমান মেয়র প্রার্থী সাঈদ খোকনের বাবা মোহাম্মদ হানিফের কাছে হেরেছিলেন। প্রায় ২১ বছর পর বাবার কাছে হেরে যাওয়া প্রার্থী আব্বাসের সঙ্গে লড়ছেন পুত্র সাঈদ খোকন। প্রশ্ন হলো, বিজয় ধরে রাখতে পারবেন তো প্রজন্মের এই নেতা। ২০০২ সালে সর্বশেষ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন হয়েছিল। এতে বিজয়ী হয়ে বিএনপি নেতা সাদেক হোসেন খোকা প্রায় দুই মেয়াদ দায়িত্ব পালন করেন। দীর্ঘ ১৩ বছর পর অনুষ্ঠিত হচ্ছে ঢাকা সিটি কর্পোরেশন (ডিসিসি) উত্তর ও দক্ষিণের নির্বাচন। দক্ষিণে আওয়ামী লীগের সমর্থনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সাঈদ খোকন। অন্যদিকে, বিএনপির সমর্থন পেয়ে নির্বাচন করছেন মির্জা আব্বাস। যদিও তিনি বিভিন্ন মামলায় এখন পলাতক আছেন। প্রচারের জন্য বিএনপির পক্ষ থেকে তাকে গ্রেফতার না করার দাবি জানানো হচ্ছে। তবে পুলিশ বলছে, তাকে খোঁজা হচ্ছে। পেলেই গ্রেফতার।

রিটার্নিং কর্মকর্তার বরাদ্দ দেয়া প্রতীক থেকে খোকন পেয়েছেন ইলিশ মাছ। আব্বাস পেয়েছেন মগ প্রতীক। সাঈদ খোকনের বাবা মোহাম্মদ হানিফ ইলিশ মাছ প্রতীক নিয়ে আব্বাসকে একবার পরাজিত করেছিলেন। যে কারণে বাবার প্রতীকের সঙ্গে মিল রাখতেই খোকন ইলিশ মাছ প্রতীকটি দাবি করেছিলেন। কেননা, এবার ইলিশ মাছ প্রতীকটি ছিল না। এটি একাধিক প্রার্থী দাবি করলেও সমঝোতার মাধ্যমে খোকনই তা পেয়েছেন। ভাবছেন, এ প্রতীক নিয়েই বাবার মতো তিনিও মেয়র হবেন। সময়ই বলবে কতটুকু পারলেন তিনি।

নির্বাচন কমিশন (ইসি) থেকে প্রাপ্ত তথ্যমতে, ১৯৯১ সালে মাত্র দেড় বছরের জন্য ঢাকার মেয়র হিসেবে মনোনীত হয়েছিলেন মির্জা আব্বাস। সে সময় তিনি ১৯ মে ১৯৯১ থেকে ২৮ ডিসেম্বর ১৯৯৩ সাল পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন। বিএনপির মনোনীত মেয়র ছিলেন তিনি। এরপর ১৯৯৪ সালের নির্বাচনে মির্জা আব্বাস প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন আওয়ামী লীগ নেতা মোহাম্মদ হানিফের সঙ্গে। কিন্তু পরাজিত হন আব্বাস। ওই নির্বাচনে হানিফ ইলিশ মাছ প্রতীক নিয়ে জয়লাভ করেন। সে সময় ১২ মার্চ ১৯৯৪ থেকে চার এপ্রিল ২০০২ সাল পর্যন্ত ঢাকার নির্বাচিত মেয়র হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন হানিফ।

এদিকে, প্রতীক পাওয়ার পর পরই পুরোদমে নির্বাচনী প্রচার শুরু করে দিয়েছেন খোকন ও আব্বাস। এক্ষেত্রে খোকন বেশ খানিকটা এগিয়ে রয়েছেন। আব্বাস এখনও মাঠে নেই। তার পক্ষে স্ত্রী আফরোজা মাঠে নেমেছেন। তিনি বলেন, আব্বাসের মতো আমি শতভাগ প্রচার চালাতে পারব না। তবে ৭০ ভাগ কাজ এগিয়ে রাখতে পারব। আব্বাসকে জামিন দিয়ে প্রচারের সুযোগ নিশ্চিত করার আহ্বান জানান স্ত্রী আফরোজা।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন (ডিএসসিসি) নির্বাচনে এ দুই প্রার্থীর প্রচার প্রতীক বরাদ্দের আগে থেকেই জমে উঠেছে। প্রতীক পাওয়ার পর উৎসবমুখব পরিবেশে তারা প্রচারে অংশ নিচ্ছেন। এখন কেবল ভোটের অপেক্ষা। ডিএসসিসি নির্বাচনে মেয়র পদে মোট ২০ প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী রয়েছেন। আগামী ২৮ এপ্রিল হবে তাদের চূড়ান্ত ভোটযুদ্ধ। দক্ষিণ সিটির ৫৭ ওয়ার্ডে মোট ভোটার সংখ্যা ১৮ লাখ ৭০ হাজার ৭শ’ ৫৩। এদের মধ্যে পুরুষ ভোটার ১০ লাখ নয় হাজার ২শ’ ৮৬ আর মহিলা ভোটার আট লাখ ৬১ হাজার ৪শ’ ৬৭ জন।

প্রকাশিত : ১২ এপ্রিল ২০১৫

১২/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: