মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১১ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

কামারাজ্জুমানের প্রাণ ভিক্ষার সিদ্ধান্ত এখনো হয় নি

প্রকাশিত : ৯ এপ্রিল ২০১৫, ১২:৪৯ পি. এম.

মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত জামায়াত নেতা মুহাম্মদ কামারাজ্জুমান তার প্রাণ ভিক্ষা চাওয়ার ব্যাপারে এখনো কোনো সিদ্ধান্ত নেননি বলে জানিয়েছেন তার আইনজীবীরা। বৃহস্পতিবার দুপুরে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারগারে কামারাজ্জুমানের সঙ্গে সাক্ষাত শেষে এ কথা জানান তারা।

কামারজ্জুমানের আইনজীবী শিশির মনির বলেন, মৃত্যুদণ্ডের রায় কার্যকর করা বিষয়ে বিভিন্ন দেশের আইন ও নিয়ম-কানুনের কথা তাকে জানানো হয়েছে। তিনি মনোযোগ দিয়ে সব শুনেছেন। তবে প্রাণ ভিক্ষার জন্য আবেদন করবেন কি না এখনো সিদ্ধান্ত নেন নি।

এর আগে সকাল পৌনে ১১টার দিকে আইনজীবী শিশির মনির, এহসান এ সিদ্দিক, মজিবুর রহমান, মতিউর রহমান আকন্দ ও মুজাহিদুল ইসলাম শাহীন একযোগে কারাগারে প্রবেশ করেন।

কামারুজ্জামানের রিভিউ আবেদন খারিজের রায় বুধবার বিকালে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল হয়ে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে পৌঁছালে তাকে তা পড়ে শোনানো হয়। এর মধ্য দিয়ে রাষ্ট্রপতির কাছে তার প্রাণভিক্ষার আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। বুধবার সন্ধা ৬ টা থেকে পরবর্তী ৭ দিনের মধ্যেই এ প্রক্রিয়া শেষ হওয়ার নিয়ম।

নিয়ম অনুযায়ী একজন ফাঁসির আসামি রাষ্ট্রপতির কাছে প্রাণভিক্ষার আবেদন করতে পারেন; তবে সেজন্য তাকে অপরাধ স্বীকার করতে হয়। আবেদন পেলে রাষ্ট্রপতি তা বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত দেন। তবে রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ আজ বিকেল সাড়ে তিনটায় কিশোরগঞ্জ সফরে যাচ্ছেন। এর মধ্যেই প্রাণ ভিক্ষার আবেদন পাঠানো হবে কিনা সে বিষয়ে নির্দিষ্ট করে কিছু বলতে পারেন নি তার আইনজীবীরা।

ওই আবেদনের নিষ্পত্তি হয়ে গেলে অথবা আসামি প্রাণভিক্ষার আবেদন না করলে সরকার কারা কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে দণ্ড কার্যকরের ব্যবস্থা নেয়।

২০১৩ সালের ১২ ডিসেম্বর যুদ্ধাপরাধ মামলার প্রথম আসামি হিসেবে কাদের মোল্লার ফাঁসি কার্যকরের ক্ষেত্রেও এ প্রক্রিয়া অনুসরণ করা হয়েছিল। তবে সে সময় কাদের মোল্লা প্রাণভিক্ষার আবেদন করেননি বলে সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়।

একাত্তরে হত্যা, গণহত্যা ও নির্যাতনের দায়ে ২০১৩ সালের ৯ মে ময়মনসিংহের আল বদর কমান্ডার কামারুজ্জামানকে মৃত্যুদণ্ড দেয় আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। ওই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করলে সেখানেও তার সর্বোচ্চ শাস্তি বহাল থাকে।

সর্বোচ্চ আদালতের রায় পুনর্বিবেনার (রিভিউ) জন্য কামারুজ্জামানের আবেদন গত সোমবার খারিজ করে দেয় প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বাধীন চার সদস্যের আপিল বেঞ্চ।

বুধবার দুপুরে রায়ে বিচারপতিদের সইয়ের পর তা কারাগারে পাঠানো হয়।

এর আগে রিভিউ খারিজের দিনই কারা কর্তৃপক্ষের চিঠির প্রেক্ষিতে কারাগারে গিয়ে কামারুজ্জামানের সঙ্গে দেখা করেন তার পরিবারের সদস্যরা।

প্রকাশিত : ৯ এপ্রিল ২০১৫, ১২:৪৯ পি. এম.

০৯/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: