মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১১ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

লক্ষ্মীপুরে দুই বাহিনীর গোলাগুলিতে এক সন্ত্রাসী নিহত

প্রকাশিত : ৯ এপ্রিল ২০১৫
  • রূপগঞ্জ ও ডিমলায় সংঘর্ষে আহত ৪

জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ লক্ষ্মীপুরে অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জের ধরে দুই সন্ত্রাসী বাহিনীর গোলাগুলিতে তালিকাভুক্ত সন্ত্রাসী নিহত হয়েছে। এছাড়া রূপগঞ্জে সন্ত্রাসীদের সঙ্গে গ্রামবাসীর সংঘর্ষে ৩০ জন আহত ও নীলফামারীর ডিমলায় খেলা নিয়ে সংঘর্ষে ১০ ব্যক্তি আহত হয়েছে। খবর স্টাফ রিপোর্টার ও নিজস্ব সংবাদদাতাদেরÑ

লক্ষ্মীপুর ॥ অভ্যন্তরীণ কোন্দলের জের ধরে ও আধিপত্যা বিস্তারকে কেন্দ্র করে সদর উপজেলার উত্তর জয়পুর ইউনিয়নের গণেশশ্যামপুর এলাকায় জসিম উদ্দিন ও হানিফ মমা বাহিনীর মধ্যে গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। এ সময় পুলিশের তালিকাভূক্ত সন্ত্রাসী হানিফ মমা নিহত হয়েছে। গুলিবিদ্ধ হয়েছে সন্ত্রাসী বেলজিয়াম সুমনসহ দুইজন। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার রাতে। নিহত হানিফ মমা একই উপজেলার গণেশশ্যামপুর গ্রামের সেলামত উল্যার ছেলে বলে জানিয়েছে পুলিশ। যুবদল নেতারা তাকে স্থানীয় যুবদল কর্মী বলে দাবি করেছে।

পুলিশ জানায়, মঙ্গলবার রাতে গণেশশ্যামপুর এলাকায় আধিপত্যা বিস্তার, ভাগবাটোয়ারাকে কেন্দ্র করে জসিম উদ্দিন ও হানিফ মমা বাহিনীর সন্ত্রাসীদের মধ্যে গোলাগুলির ঘটনা ঘটেছে। এ সময় হানিফ মমা ঘটনাস্থলে গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয়েছে। অপর দুই সন্ত্রাসী বেলজিয়াম সুমনসহ দুইজন গুলিবিদ্ধ হয়।

রূপগঞ্জ ॥ থানায় অভিযোগ দায়ের করার জের ধরে গ্রামবাসীর সঙ্গে সন্ত্রাসীদের দফায়-দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ সময় সন্ত্রাসীরা কয়েকটি বাড়িতে হামলা ও ভাংচুর চালায়। সংঘর্ষে উভয়পক্ষের কমপক্ষে ৩০ জন আহত হয়েছে বলে জানা গেছে। বুধবার দুপুর সোয়া ১২টায় উপজেলা দাউদপুর ইউনিয়নের শিমুলিয়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

এলাকাবাসী, প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, শিমুলিয়া এলাকার সন্ত্রাসী লায়েস মিয়া, শরীফ মিয়া, তোফাজ্জল মিয়া, সোহেল মিয়া, হালিম মিয়া স্থানীয় বালু ব্যবসায়ী আব্দুর রউফ মালুমের কাছে এক লাখ টাকা দাবি করে আসছিল। দাবিকৃত চাঁদার টাকা না দেয়ায় গত মঙ্গলবার বিকেলে আব্দুর রউফ মালিকের ওপর সন্ত্রাসী লায়েছ মিয়া তার সন্ত্রাসী বাহিনী দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে অর্তকিত হামলা চালায়।

এ খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে এলাকাবাসী লায়েছ মিয়াকে জিজ্ঞাসা করতে যায়। এতে লায়েছ মিয়া ও তার বাহিনী ক্ষিপ্ত হয়ে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে এলাকাবাসীর ওপর হামলা চালায়। এ সময় এলাকাবাসীও একত্রিত হয়ে সন্ত্রাসীদের ধাওয়া করে। একপর্যায়ে গ্রামবাসীর সঙ্গে সন্ত্রাসীদের ধাওয়া পাল্টাধাওয়া ও দফায় দফায় সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সন্ত্রাসীরা কয়েকটি বাড়িতে হামলা ও ভাংচুর চালায়।

নীলফামারী ॥ প্রীতি ফুটবল খেলার বাজির টাকাকে কেন্দ্র করে নীলফামারীর ডিমলা উপজেলার খালিশা চাপানীতে দুটি ফুটবল দলের সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে ১০ জন আহত হয়েছে। মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ সময় আহতদের মধ্যে ৩ জনকে ডিমলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বাকিদের প্রাথমিক চিকিৎসার পর ছেড়ে দেয়া হয়েছে। এ নিয়ে সেখানে উত্তেজনা বিরাজ করছে।

প্রকাশিত : ৯ এপ্রিল ২০১৫

০৯/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

দেশের খবর



ব্রেকিং নিউজ: