কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

আওয়ামী লীগ কাউন্সিলর প্রার্থী নিশ্চিত করতে পারছে না- সুবিধাজনক অবস্থানে বিএ

প্রকাশিত : ৮ এপ্রিল ২০১৫

হাসান নাসির, চট্টগ্রাম অফিস ॥ চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে জয়লাভ নির্ভর করছে প্রধানত তৃণমূল পর্যায়ে দলের নেতাকর্মী ও সমর্থকদের ঐক্যের ওপর। আর এই ঐক্য প্রতিষ্ঠায় সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো কাউন্সিলর পদে একক প্রার্থী নিশ্চিত করা। গুরুত্বপূর্ণ এ কাজটির জন্য আজ বুধবারই শেষ দিন। কারণ, আগামীকাল ৯ এপ্রিল বৃহস্পতিবার মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন। ফলে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি উভয় দলের শীর্ষ নেতারা একক প্রার্থী ঠিক করতে এখন গলদঘর্ম হচ্ছেন।

আওয়ামী লীগ সূত্রে জানা যায়, দলের মেয়র প্রার্থীর বিজয় এবং একই সঙ্গে চট্টগ্রামে দলের প্রভাব ধরে রাখতে ৪১টি সাধারণ ওয়ার্ড ও ১৪টি সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর ওয়ার্ডে তারা একক প্রার্থী দেয়ার প্রাণপণ চেষ্টা করছেন। অনেক ওয়ার্ডেই আওয়ামী লীগের দুই থেকে ছয়জন প্রার্থী পর্যন্ত রয়েছেন। মনোনয়নপত্র দাখিলের পর তারা এলাকায় গণসংযোগও শুরু করে দিয়েছেন। এমতাবস্থায় শীর্ষ নেতারা চাইছেন অপেক্ষাকৃত সবল প্রার্থীকে রেখে বাকিদের মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারে রাজি করাতে। তবে এর জন্য সময় অত্যন্ত কম।

চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক মেয়র এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী ইতোমধ্যেই জানিয়েছেন, দলকে বিজয়ী করতে ওয়ার্ড পর্যায়ে একক কাউন্সিলর প্রার্থী দেয়া হবে। সে লক্ষ্যে তৎপরতাও চালান তিনি। তবে এ তৎপরতা কতটা সফল হয়েছে তা পরিষ্কার হবে আগামীকাল। তিনি বিভেদ ভুলে সকলকে এক হওয়ার আহ্বানও জানান। এদিকে, একক কাউন্সিলর প্রার্থী ঠিক করার ঘোষণা থাকলেও বেশকিছু ওয়ার্ডে দলের সমর্থন প্রত্যাশী কাউন্সিলর প্রার্থীদের মধ্যে বিরোধ অত্যন্ত প্রকট। কারণ, আগে থেকেই তৃণমূলের অনেক নেতাই মহিউদ্দিন চৌধুরী ও আ জ ম নাছির অনুসারী হিসেবে বিভক্ত। নির্ভরযোগ্য বিভিন্ন সূত্রে জানানো হয়, মহিউদ্দিন চৌধুরী মেয়র পদে দলীয় সমর্থন না পেলেও তৃণমূলে প্রভাব ধরে রাখতে তার অনুসারী অনেক নেতাই কাউন্সিলর পদে নির্বাচন করতে অনড়। অপরদিকে, আ জ ম নাছির মেয়র পদে মনোনয়ন পাওয়ায় তাঁর সমর্থকরাও যেন আগের চেয়ে শক্ত অবস্থানে। ফলে ছাড় দেয়ার মানসিকতার ওপর নির্ভর করছে শেষ পর্যন্ত একক প্রার্থী দাঁড় করা সম্ভব হয় কিনা।

অপরদিকে, বিএনপি এ ক্ষেত্রে অনেকটা সুবিধাজনক অবস্থানে। কেননা, কাউন্সিলর পদে তাদের মনোনয়নপত্র দাখিলের সংখ্যা তুলনামূলকভাবে কম। তাছাড়া বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে অনেকেই মামলাসহ বিভিন্ন কারণে গা ঢাকা দিয়ে থাকায় বিরোধের সুযোগও কম। বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে না আসায় আসন্ন সিটি নির্বাচন বিএনপির জন্য একটি চ্যালেঞ্জও। ফলে কেন্দ্রীয় নেতা আবদুল্লাহ আল নোমান ও আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী তৎপর রয়েছেন সকল ওয়ার্ডে একক প্রার্থিতা নিশ্চিত করতে। বিএনপির বিভিন্ন সূত্রে নিশ্চিত করা হয়েছে যে, ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে তাদের একক প্রার্থী ঠিক করতে খুব একটা সমস্যা হবে না। তবে জামায়াতে ইসলামীর সঙ্গে প্রায় ১০টি ওয়ার্ডে বিএনপির সমঝোতা হয়েছে বলেও জানা যায়।

প্রকাশিত : ৮ এপ্রিল ২০১৫

০৮/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: