মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

ইতিহাস ও তথ্য সংরক্ষণ

প্রকাশিত : ৬ এপ্রিল ২০১৫

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের দেয়া কয়েকটি ঐতিহাসিক ভাষণের (৭ মার্চসহ) ওপর লেখা বই, ছবিসহ পোস্টার এবং মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মূল্যবান কিছু গ্রন্থ মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরে (মাউশি) অবহেলা-অব্যবস্থাপনার কারণে নষ্ট হয়ে গেছে। এ সংবাদটি অত্যন্ত দুঃখজনক। প্রসঙ্গত, অনেকেই স্মরণ করতে পারবেন এক স্বৈরশাসক ক্ষমতা দখলের পরপরই পূর্ববর্তী পাঁচ বছরের রাষ্ট্রীয় ডকুমেন্ট পুড়িয়ে ফেলার গোপন নির্দেশ দিয়েছিলেন। দেশের ইতিহাস সংরক্ষণের অবস্থা কতটা করুণ তার প্রমাণ মেলে এই ঘটনা থেকে। সম্প্রতি মাউশির যে ঘটনা শোনা গেল সেটাও ইতিহাস সংরক্ষণের ব্যাপারে দায়িত্বহীনতারই প্রমাণ মেলে। মুক্তিযুদ্ধকালে পাকিস্তানী হানাদার বাহিনী এবং তাদের এ দেশীয় সহযোগীরা যে ব্যাপক গণহত্যা চালায়, তার অসংখ্য দলিল রয়ে গেছে। বিদেশী সাংবাদিক প্রবেশ নিষিদ্ধ করে, দেশীয় সাংবাদিকদের হত্যা করে এবং ৯ মাসের যুদ্ধকালে অসংখ্য দলিল, তথ্য-উপাত্ত ধ্বংস করার পরও সেই প্রমাণাদি মুছে ফেলা যায়নি। সেসব দলিল সন্ধান করতে গিয়ে বেশ কিছু দলিলপত্র অবহেলায় পড়ে থাকা এবং নষ্ট হয়ে যাওয়ার বিষয়টি সামনে চলে এসেছিল। জাতি অবহিত হয়েছিল যে, ন্যাশনাল আর্কাইভের মতো গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানে যে মূল্যবান দলিলপত্র রয়েছে সেখানেই বেশ কিছু দলিল আবর্জনার স্তূপে পড়ে ছিল। ঢাকার আগারগাঁওয়ের ন্যাশনাল আর্কাইভসে অবহেলায় পড়ে থাকা চার বস্তা দলিলপত্র উদ্ধার করেন যুদ্ধাপরাধীদের অভিযোগ তদন্তে গঠিত সংস্থার কর্মকর্তারা।

সভ্যতার জন্য, জাতির জন্য ও ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য ইতিহাস সংরক্ষণ জরুরী। একটি দেশের গুরুত্বপূর্ণ ভিত্তি হলো সে দেশের আর্কাইভ সংরক্ষণ। কোন দেশের আর্থ-সামাজিক অবস্থা তাদের সংগ্রহশালা থেকে বুঝতে পারা যায়। শুধু রাষ্ট্রীয় পর্যায়ে নয়, প্রতিটি প্রতিষ্ঠানের গঠনগত তাৎপর্য তাদের আর্কাইভ সংরক্ষণের মধ্য দিয়ে গড়ে ওঠে। উন্নত দেশগুলোতে সরকারী উদ্যোগে প্রতিষ্ঠিত আর্কাইভের প্রতি সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেয়া হয়। সেদিক থেকে আমরা অনেক পিছিয়ে আছি। আমাদের জাতীয় আর্কাইভে রাষ্ট্রীয় দলিলপত্র সংরক্ষণের ব্যবস্থা উন্নত দেশগুলোর মতো নয়। সংরক্ষিত সম্পদগুলো স্থান সঙ্কুলান ও সঠিক রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে অনেকটা অব্যবস্থার মধ্যে যেন পড়ে আছে।

আর্কাইভে সংরক্ষণের ব্যাপারে আরও গুরুত্ব দেয়া দরকার। তাই সরকারকে দেশের আর্কাইভ ও রেকর্ড ব্যবস্থাপনা সমৃদ্ধির জন্য পদক্ষেপ নিতে হবে। এই ক্ষেত্রে ব্যক্তিগতভাবে যাঁরা কাজ করে যাচ্ছেন, তাঁদের উৎসাহ দিয়ে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেয়া দরকার।

প্রকাশিত : ৬ এপ্রিল ২০১৫

০৬/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: