মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

দগ্ধ রোগীদের কাল থেকে চিকিৎসা দেবে বিদেশী মেডিক্যাল টিম

প্রকাশিত : ৫ এপ্রিল ২০১৫
দগ্ধ রোগীদের কাল থেকে চিকিৎসা দেবে বিদেশী মেডিক্যাল টিম
  • জার্মানি হাঙ্গেরী ও হল্যান্ড থেকে এসেছেন চিকিৎসকরা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ রাজনৈতিক সহিংসতার আগুনে দগ্ধ রোগীদের চিকিৎসাসেবা দেবেন দশজনের বিদেশী মেডিক্যাল টিম। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে সম্পূর্ণ বিনা টাকায় এ চিকিৎসাসেবা দেয়া হবে। সোমবার থেকে শুরু হয়ে তা আগামী ১২ এপ্রিল পর্যন্ত চলবে। ইতোমধ্যে ২শ’ জন দগ্ধ রোগী প্রস্তুত রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। বিদেশী চিকিৎসকরা জার্মানী, হাঙ্গেরী ও নেদারল্যান্ড থেকে এসেছেন। ‘ফর বাংলাদেশ এ্যাসোসিয়েশন, জার্মানী’ নামক সংগঠনের মাধ্যমে তাঁরা বাংলাদেশে এসেছেন। তবে বাংলাদেশে অবস্থানকালে বিদেশী মেডিক্যাল টিমের সদস্যরা নিজেরাই নিজেদের থাকা-খাওয়াসহ সব ধরনের ব্যয় বহন করবেন। মানবতার তাগিদ থেকেই দগ্ধ রোগীদের চিকিৎসাসেবা দিতে তাঁরা বাংলাদেশে এসেছেন।

শনিবার ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের সম্মেলনকক্ষে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানানো হয়েছে। ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব বার্ন এ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি এবং ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের বার্ন এ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি বিভাগ যৌথভাবে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য ডাঃ হাবিবে মিল্লাত মুন্না, বার্ন এ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি বিষয়ে জাতীয় প্রধান সমন্বয়ক ডাঃ সামন্ত লাল সেন, বার্ন ইউনিটের প্রকল্প পরিচালক অধ্যাপক ডাঃ আবুল কালাম আজাদ, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোঃ মিজানুর রহমান মিজান প্রমুখ। বিদেশী মেডিক্যাল টিমের সদস্যদের মধ্যে রয়েছেন জার্মানির বিজিইউ হাসপাতালের বার্ন বিশেষজ্ঞ প্রফেসর হেঞ্জ হার্বার্ট হোমান, হাঙ্গেরির সিনিয়র প্লাস্টিক সার্জন ডাঃ গ্রেগ পাঠাকি, জার্মানির সেন্ট জোহান্স হাসপাতালের ডাঃ পিটার প্রিসলার, হাঙ্গেরির ডাঃ পিটার ভান্সকো, জার্মানির অগস্থা হাসপাতালের ডাঃ মার্ক ক্রেইমের, ডাঃ ইভা ভারগা, হল্যান্ডের ওপি, বার্ন প্রশিক্ষক গ্রিতা হেসেলিং ও মিস কারিলিনা হোয়েরনার এবং ফর বাংলাদেশ এ্যাসোসিয়েশনের প্রজেক্ট ম্যানেজার, সহকারী সার্জন ও প্রকৌশলী হাসনাত মিয়া।

ঢামেক বার্ন ইউনিটের সমন্বয়কারী ডাঃ সামন্ত লাল সেন বলেন, বাংলাদেশের চিকিৎসা সেক্টরও অনেক উন্নত হয়েছে। বার্ন এ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি চিকিৎসায় অনেক সুনাম কুড়িয়েছে। চিকিৎসাসেবা দেয়ার পাশাপাশি বিদেশী মেডিক্যাল টিমের সদস্যরা বার্ন ইউনিটের চিকিৎসক, নার্সসহ সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে তাদের অভিজ্ঞতা ভাগাভাগি করবেন। এতে অভিজ্ঞতা বিনিময় করার সুযোগ থাকবে। দগ্ধ রোগীদের চিকিৎসা দেয়ার ক্ষেত্রে এ দেশের এবং বিদেশী চিকিৎসকদের অভিজ্ঞতা ও দক্ষতার পার্থক্যসমূহও খুঁটিয়ে দেখা হবে। রোগীর পাশাপাশি আমরা সকলেই উপকৃত হব বলে মনে করছি।

সংসদ সদস্য অধ্যাপক হাবিবে মিল্লাত বলেন, বাংলাদেশে আন্দোলনের নামে রাজনৈতিক সহিংসতায় দগ্ধ হয়ে শতাধিক মানুষ মারা গেছেন। অনেকেই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এটা জেনে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বসবাসকারী বাংলাদেশীরা উদ্বেগ ও সমবেদনা জানিয়েছেন। তাদের উদ্যোগেই এসব চিকিৎসকরা ঢামেকে এসেছেন। তিনি আরও বলেন, বিদেশি এসব চিকিৎসক নিজ খরচে বাংলাদেশে এসেছেন। তাদের হোটেল খরচও তারাই বহন করছেন। মানবিকতার কথা চিন্তা করেই তারা দগ্ধদের পাশে এসে দাঁড়িয়েছেন। এটা কোনো রাজনৈতিক বিষয় নয়।

প্রকাশিত : ৫ এপ্রিল ২০১৫

০৫/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: