কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৫ ডিসেম্বর ২০১৬, ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, সোমবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

কামারুজ্জামানের রিভিউর নিষ্পত্তি আজ

প্রকাশিত : ৫ এপ্রিল ২০১৫
  • যুদ্ধাপরাধী বিচার
  • আইনজীবীরা জেলে দেখা করেছেন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের দায়ে জামায়াত নেতা মোহাম্মদ কামারুজ্জামানকে ট্রাইব্যুনালের দেয়া মৃত্যুদ- বহাল রেখে সুপ্রীমকোর্টের দেয়া রায় পুনর্বিবেচনার (রিভিউ) আবেদন শুনানির আগে ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে গিয়ে তার সঙ্গে দেখা করেছেন আইনজীবীরা। আইনজীবী শিশির মনির, এহসান এ সিদ্দিক, মশিউল আলম, মতিউর রহমান আকন্দ ও মুজাহিদুল ইসলাম শাহীন শনিবার সকাল ১১টা ৭ মিনিটে কারাগারে প্রবেশ করেন। কামারুজ্জামানের সঙ্গে আধা ঘণ্টা কথা বলার পর বেরিয়ে আসেন তারা।

এরপর শিশির মনির কারাফটকে সাংবাদিকদের বলেন, আমরা আধা ঘণ্টা ধরে বিভিন্ন আইনী বিষয়ে তার সঙ্গে পরামর্শ করেছি। তিনি আমাদের জানিয়েছেন, তিনি শারীরিকভাবে সুস্থ-স্বাভাবিক আছেন। মানসিকভাবে দৃঢ় মনোবল সম্পন্ন আছেন। রিভিউ আবেদন নিষ্পত্তির পর কামারুজ্জামানের সঙ্গে ফের দেখা করে পরবর্তী পদক্ষেপ ঠিক করা হবে বলে জানান তার আইনজীবী শিশির মনির।

তিনি বলেন, নিষ্পত্তির পর উনি আইজীবীদের সঙ্গে পরামর্শ করবেন এবং পরবর্তী আইনী পদক্ষেপ সম্পর্কে আমাদের জানাবেন।

কামারুজ্জামান রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা ভিক্ষা চাইবেন কি না জানতে চাইলে শিশির বলেন, উনি (কামারুজ্জামান) বলেছেন, রাষ্ট্রপতির কাছে ক্ষমা চাওয়া বা না চাওয়ার বিষয়টি এখনও আসেনি। রবিবার রিভিউ আবেদনের নিষ্পত্তি হবে, এর একটি রায় হবে। রায়টি উনি শুনবেন এবং আইনজীবীদের সঙ্গে পরবর্তী পদক্ষেপ নিয়ে পরামর্শ করবেন। এদিকে, আজ রবিবার কামারুজ্জামানের রিভিউ আবেদনটির শুনানি হবে সুপ্রীমকোর্টের আপীল বিভাগের ১ নম্বর বেঞ্চে। শুনানির জন্য আবেদনটি রাখা হয়েছে কার্যতালিকার ৬ নম্বরে। এর আগে গত বুধবার প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এসকে) সিনহার নেতৃত্বে চার বিচারপতির আপীল বেঞ্চ শুনানির এই দিন ঠিক করে দেন।

গত বছরের ৩ নবেম্বর আপীল বিভাগের এই বেঞ্চই আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালের দেয়া ফাঁসির রায় বহাল রাখেন। ২০১৩ সালের ৯ মে আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল কামারুজ্জামানকে সর্বোচ্চ সাজার আদেশ দেন। একাত্তরে ময়মনসিংহের আল বদর নেতা কামারুজ্জামানের ফাঁসির রায় এসেছে শেরপুরের নালিতাবাড়ি উপজেলার সোহাগপুরে ১২০ জন পুরুষকে ধরে নিয়ে হত্যার দায়ে। জামায়াতে ইসলামীর আজকের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মোহাম্মদ কামারুজ্জামান হলেন দ্বিতীয় ব্যক্তি, যার সর্বোচ্চ সাজার রায় কার্যকরের আগে রিভিউয়ের পর্যায়ে এসেছে।

আপীলের রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি প্রকাশের পর গত ১৯ ফেব্রুয়ারি তার মৃত্যু পরোয়ানায় সই করেন ট্রাইব্যুনাল-২ এর তিন বিচারক। এরপর মৃত্যু পরোয়ানা পাঠিয়ে দেয়া হয় কারাগারে, কামারুজ্জামানকে তা পড়ে শোনানো হয়। মৃত্যু পরোয়ানা জারির চতুর্দশ দিনে গত ৫ মার্চ আপীল বিভাগের সংশ্লিষ্ট শাখায় এই রিভিউ আবেদন জমা দেন কামারুজ্জামানের আইনজীবী জয়নাল আবেদিন তুহিন। ৪৫ পৃষ্ঠার এই আবেদনে ৪৪টি যুক্তি দেখিয়ে কামারুজ্জামানের খালাস চাওয়া হয়। গত ৮ মার্চ আপীল বিভাগের চেম্বার বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিকী রিভিউ আবেদনটি শুনানির দিন ধার্য করার জন্য আপীল বিভাগের নিয়মিত বেঞ্চে পাঠিয়ে দেন।

প্রকাশিত : ৫ এপ্রিল ২০১৫

০৫/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

শেষের পাতা



ব্রেকিং নিউজ: