রৌদ্রজ্জ্বল, তাপমাত্রা ২৩.৯ °C
 
৯ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শুক্রবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

দুই বছর ধরে স্ত্রী নির্যাতন, পিডিবি কর্মচারী গ্রেফতার

প্রকাশিত : ৫ এপ্রিল ২০১৫
  • চোখ বেঁধে স্বামী আর তার বোন মিলে নির্যাতন করে

নিজস্ব সংবাদদাতা, বান্দরবান, ৪ এপ্রিল ॥ বান্দরবান পার্বত্য জেলায় বিদ্যুত উন্নয়ন বোর্ড পিডিবির এক কর্মচারী দুই বছর ধরে স্ত্রীকে আটকে রেখে নির্যাতন করছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুক্রবার সন্ধ্যায় পুলিশ নির্যাতিত নাইমা আফরোজ লাকীকে উদ্ধার এবং তার স্বামীকে গ্রেফতার করে।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ২০১১সালের ১৪ এপ্রিল কুমিল্লার দেবীদ্বার থানার মেয়ে নাইমার বিয়ে হয় বান্দরবানের পিডিবিতে কর্মরত লাইন হেলপার সাগর চৌধুরীর সঙ্গে। বিয়ের পর থেকে সবসময় শ্বশুরবাড়ি থেকে যৌতুক দাবি করছে সাগর। আর যৌতুক না দেয়ার কারণে গত দুই বছর আগে নাইমাকে ঢাকা থেকে এনে বান্দরবানের পিডিবির নিউগুলশানের কোয়ার্টারের বাসায় তালাবদ্ধ করে রেখে প্রতিদিন নির্যাতন চালায়।

আরও জানা গেছে, দুই বছর ধরে নাইমার পরিবারের সঙ্গে কোন যোগাযোগ না থাকায় শুক্রবার সন্ধ্যায় নাইমার মা লুৎফা বেগম মেয়েকে দেখতে এসে বাসায় প্রবেশ করতে না পেরে পুলিশকে খবর দেয়। এ সময় পুলিশের একটি দল অসুস্থ অবস্থায় নাইমাকে উদ্ধার করে বান্দরবান সদর হাসপাতালে ভর্তি করে।

নাইমার মা লুৎফা বেগম জানান, ঢাকার বেগম বদরুন্নেচ্ছা মহিলা কলেজের চতুর্থ বর্ষের মেধাবী ছাত্রী নাইমাকে সুখী করতেই সরকারী কর্মচারী সাগর চৌধুরীর সঙ্গে বিয়ে দেন তিনি। বিয়ের পরে নগদ ২ লাখ টাকা, ফ্রিজ, মোটর সাইকেল, স্বর্ণালঙ্কারের জন্য মেয়েকে চাপ দিতো সাগর কিন্তু তা দিতে না পারায় মেয়ের এই হাল করেছে।

পিডিবির নিউগুলশানের কোয়ার্টারের নাইমার প্রতিবেশী আয়েশা বেগম বলেন, তারা দুই বছরের বেশি সময় ধরে এখানে থাকলেও নাইমা বাসা থেকে বের হতো না, কারও সঙ্গে মিশত না। তিনি আরও বলেন, কোয়ার্টারের সবার কাছে তারা অসামাজিক মানুষ হিসাবে পরিচিত।

সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন নাইমা আফরোজ লাকী বলেন, চোখ কাপড় দিয়ে বেঁধে সাগর আর তার বোন মিলে আমাকে প্রতিনিয়ত নির্যাতন করেছে, প্রতিরাতে ঘুমাতে পারতাম না।

স্ত্রী নির্যাতনের অভিযোগে পিডিবির কর্মচারী সাগর গ্রেফতার হওয়ার ঘটনার পর বান্দরবানের পিডিবির কর্মচারীদের মধ্যে তোলপাড় শুরু হয়েছে। তাদের অনেকে মনে করেন, ঘটনার অভিযুক্তের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি হওয়া প্রয়োজন।

বান্দরবান সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ অং সুই প্রু মারমা বলেন, নাইমার শরীরের চারটি জখম আছে, আঘাত সিম্পল হার্ট।

প্রকাশিত : ৫ এপ্রিল ২০১৫

০৫/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

দেশের খবর



ব্রেকিং নিউজ: