আংশিক মেঘলা, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৮ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বৃহস্পতিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

ময়মনসিংহে খাদ্যে বিষক্রিয়ায় চার জনের মৃত্যু

প্রকাশিত : ৩ এপ্রিল ২০১৫
  • গাজীপুরে শতাধিক অসুস্থ

জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ ময়মনসিংহে খাবারের বিষক্রিয়ায় শিশুসহ ৪ জন মারা গেছে। একই ঘটনায় হাসপাতালে ভর্তি ৪ জন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে। বৃহস্পতিবার সকালের নাস্তায় আটার রুটির সঙ্গে মিষ্টি আলু খাওয়ার পরপরই নিহতরা অসুস্থ হয়ে পড়ে। এ অবস্থায় হাসপাতালে ভর্তির পর তারা মারা যায়। এদিকে গাজীপুরে খাবার ও পানি খাওয়ার পর শতাধিক গার্মেন্ট কর্মী অসুস্থ হয়ে পড়েছে। অসুস্থদের বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে। খবর স্টাফ রিপোর্টার ও নিজস্ব সংবাদদাতার।

ময়মনসিংহ ॥ ত্রিশালের বাদামিয়া গ্রামে বৃহস্পতিবার সকালে খাদ্যে বিষক্রিয়ায় ২ শিশু ও ১ মহিলার ৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এ ঘটনায় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ১ শিশু ও ৩ মহিলাসহ আরও ৪ জন মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে। এদের মধ্যে ২ মহিলার অবস্থা আশঙ্কাজনক। হাসপাতাল ও পারিবারিক সূত্র জানায়, নিহতরা হচ্ছে ত্রিশাল উপজেলার ধানীখোলা গ্রামের মানিকের ৮ বছরের শিশুকন্যা দিলরুবা, একই গ্রামের শহীদুলের ১০ বছরের শিশুকন্যা বীথি এবং ত্রিশাল উপজেলার বাদামিয়া গ্রামের আবুল কালামের ১৬ বছরের মেয়ে নাজমা খাতুন এবং একই গ্রামের হাজেরা (৪৫)। গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় ময়মনসিংহ মেডিক্যালে ভর্তির পর তাদের মৃত্যু ঘটে। স্থানীয়রা জানায়, বৃহস্পতিবার সকালে আটার রুটির সঙ্গে মিষ্টি আলুর নাস্তা খাওয়ার পর পরই এ মহিলা ও শিশুরা বমির পর অসুস্থ হয়ে পড়লে এলাকাবাসী অচেতন অবস্থায় তাদের উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসে। হাসপাতালে চিকিৎসধীনরা হচ্ছেÑ ধানীখোলা গ্রামের আম্বিয়া খাতুন (৩০), বাদামিয়া গ্রামের আবুল কালামের মেয়ে আসমা (২৫) ও সালমা (৮) এবং আবুল কালামের পুত্রবধূ রেজাউলের স্ত্রী রুমা (১৭)। আম্বিয়া ও তার কন্যা বীথি ছাড়া পাঁচজনই আবুল কালাম পরিবারের সদস্য। অসুস্থ আম্বিয়া ধানীখোলা গ্রাম থেকে শিশুকন্যা বীথিকে নিয়ে বোনের বাড়িতে বেড়াতে এসেছিল।

বিষক্রিয়ায় মারা গেছে আম্বিয়ার ১০ বছরের শিশুকন্যা বীথি। স্থানীয় সূত্র জানায়, বৃহস্পতিবার সকালে স্থানীয় আলম ফকিরের পুত্র সাইফুলের দোকান থেকে কেনা আটা দিয়ে রুটি বানানোর পর মিষ্টি আলু দিয়ে সকালের নাস্তা করেছিল এ সব শিশু ও মহিলারা। যারা আটার রুটি খেয়েছিল তাদের সবাই মারা গেছে। গুরুতর অসুস্থ হয়েছে অনেকে। তবে যারা মিষ্টি আলু বেশি খেয়ে রুটি কম খেয়েছে তাদের অসুস্থতা কম। ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের শিশু বিভাগের প্রধান ডাঃ অধ্যাপক আজিজুল হক জানান, খাদ্যে বিষক্রিয়া থেকে এ ঘটনা ঘটতে পারে। বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার জন্য মৃত শিশুদের দেহ থেকে আলামত সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য ল্যাবে পাঠানো হয়েছে।

গাজীপুর ॥ খাবার ও পানি খেয়ে একটি পোশাক কারখানার শতাধিক শ্রমিক অসুস্থ হয়ে পড়েছে। অসুস্থদের বিভিন্ন ক্লিনিক ও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। জেলার জিরানী বাজারের পাশে দক্ষিণ পানিশাইল এলাকার তুরাগ গার্মেন্টে এ ঘটনা ঘটেছে। অসুস্থ শ্রমিকরা জানায়, বুধবার রাতের শিফটে কারখানার ভেতরে প্রায় দুই হাজার শ্রমিক কাজ শুরু করেন। রাত ১টার দিকে তাদের রাতের খাবার হিসেবে কলা, রুটি ও ডিম খেতে দেয় কর্র্তৃপক্ষ। টিফিনের খাবার খাওয়া শেষে কারখানার পানি খাওয়ার পর থেকেই শ্রমিকরা অসুস্থবোধ করতে থাকেন।

এর কিছুক্ষণের মধ্যেই পর্যায়ক্রমে কারখানার বেশকিছু শ্রমিক বমি ও মাথা ঘুরে ফ্লোরে পড়ে যায়। একে একে কারখানার শতাধিক শ্রমিক অসুস্থ হয়ে পড়লে তাদের উদ্ধার করে পাশের বিভিন্ন হাসপাতাল ও ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে। অসুস্থের সংখ্যা বাড়তে থাকায় অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে কারখানাটি ছুটি ঘোষণা করে কর্তৃপক্ষ।

প্রকাশিত : ৩ এপ্রিল ২০১৫

০৩/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: