মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

তিন সিটিতে মেয়র প্রার্থী ৫৪ ॥ মিন্টু-পিন্টুসহ আপীল করেছেন ৩ জন

প্রকাশিত : ৩ এপ্রিল ২০১৫
  • বাছাইয়ের শেষ দিনে মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়া ৩ মেয়র এবং ২২ কাউন্সিলর প্রার্থীর আপীল শুনানি হবে কাল শনিবার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ঢাকা, চট্টগ্রামের তিন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে প্রার্থীদের দাখিল করা মনোনয়পত্র যাচাই বাছাইয়ের কাজ শেষ হয়েছে। যাচাই বাছাই শেষে তিন সিটি কর্পোরেশনের মেয়র প্রার্থীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে মোট ৫৪ জনে। এর মধ্যে ঢাকা উত্তরে বৈধ মেয়র প্রার্থী সংখ্যা ১৯ জন। ঢাকা দক্ষিণে ২৩ জন এবং চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনে মেয়র প্রার্থীর সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১২ জনে।

এদিকে ঢাকা উত্তরের মেয়র পদে বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী আব্দুল আউয়াল মিন্টুর প্রার্থিতা বাতিল করা হলেও রিটার্নিং কর্মকর্তার এ সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আপীল করেছেন। এছাড়া ঢাকা দক্ষিণে বিএনপির নেতা নাসির উদ্দিন পিন্টুও তাঁর প্রার্থিতা বাতিলের বিরুদ্ধে আপীল করেছেন। এছাড়া ঢাকা দুই সিটি করপোরেশন প্রার্থিতা বাতিলের বিরুদ্ধে মেয়র পদে তিনজনসহ বাতিল হওয়া ২২ জন কাউন্সিলর প্রার্থীও তাদের মনোনয়পত্র ফিরে পেতে আপীল করেছেন।

বৃহস্পতিবার বিকেলে নিজ নিজ আইনজীবীর মাধ্যমে আব্দুল আউয়াল মিন্টু ও নাসির উদ্দিন আহমেদ পিন্টু প্রার্থিতা বাতিলের বিরুদ্ধে আপিল করেন। ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ঢাকা বিভাগীয় কমিশনারকে আপীল কর্তৃপক্ষ নিয়োগ করেছে নির্বাচন কমিশন। নিয়ম অনুযায়ী কোন প্রার্থীর প্রার্থিতা বাতিলের তিন দিনের মধ্যে প্রার্থিতা ফিরে পেতে আপীল করতে পারবেন। আগামীকাল শনিবার যেসব প্রার্থী আপীল করেছেন তাদের বিষয়ে বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে শুনানি অনুষ্ঠিত হবে। চূড়ান্ত বিচারের কেউ প্রার্থিতা ফিরে পেলে সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারবেন।

গত বুধবার প্রার্থিতা বাছাইয়ের প্রথম দিনে ঢাকা উত্তরের বিএনপি সমর্থিত একমাত্র প্রার্থী আব্দুল আওয়াল মিন্টুর মনোনয়নপত্র বাতিল করে দেন উত্তরের রিটার্নিং কর্মকর্তা মোঃ শাহ আলম। মিন্টুর দাখিল করা মনোনয়নপত্রে তাঁর সমর্থক আব্দুর রাজ্জাক সংশ্লিষ্ট এলাকার ভোটার না থাকায় তার মনোনয়পত্র বাতিল হয়ে যায়। আইন অনুযায়ী প্রার্থীর নিজের এবং তার প্রস্তাবক ও সমর্থকের সংশ্লিষ্ট এলাকায় ভোটার থাকা আবশ্যক। বিকেল ৪টার পরে মিন্টুর আইনজীবী এসাহনুর রহমান তাঁর প্রার্থিতার বৈধতা চেয়ে বিভাগীয় কমিশনারের কাছে আপীল করেন। মিন্টুর ছেলে তাফসির আউয়াল সাংবাদিকদের বলেন, বাবার পক্ষে আপীল আবেদন জমা দেয়া হয়েছে। শনিবার শুনানি হবে।

এদিকে দক্ষিণে মেয়র পদে বিএনপির নাসির উদ্দিন পিন্টু মনোনয়পত্র জমা দিলেও মামলা সংক্রান্ত তথ্য ঠিকমতো না থাকায় তাঁর মনোনয়নপত্র বাতিল করে দেন দক্ষিণের রিটার্নিং কর্মকর্তা মিহির সারোয়ার মোর্শেদ। বৃহস্পতিবার বিকেলে তাঁর আইনজীবী এ্যাডভোকেট আমিনুল ইসলামের মাধ্যমে ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার বরাবর আপীল করেছেন। এ সময় তাঁর সঙ্গে ছিলেন সুপ্রীমকোর্ট বারের সেক্রেটারি ও বিএনপি যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন। দক্ষিণে নির্দলীয় রেজাউল করিম চৌধুরীও তাঁর প্রার্থিতা ফিরে পেতে আপীল করেছেন। আয়কর রিটার্নের নথি জমা দিতে ব্যর্থ হওয়ায় তার মনোনয়পত্র বাতিল করে দেয়া হয়। বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ের কর্মকর্তা শহীদুল ইসলাম জানান, মেয়র পদে তিনজনসহ কাউন্সিলর পদের মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়া ২২ জন আপীল করেছেন। বিভাগীয় কমিশনার মোঃ জিল্লার রহমান আগামী ৪ এপ্রিল বিকাল সাড়ে ৪টার পর আপীল শুনানি করবেন।

গত ১৮ মার্চ ঢাকা ও চট্টগ্রামের তিন সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে জন্য তফসিল ঘোষণা করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী রকিব উদ্দিন আহমেদ। তফসিল অনুযায়ী তিন সিটিতে মনোনয়পত্র জমাদানের শেষ দিনে ঢাকার উত্তর সিটি কর্পোরেশনে মেয়র ২১ জন, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে ২৬ জন এবং চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে ১৩ জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দেন। এ ছাড়া ঢাকা উত্তরের সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৪৯৪ জন এবং সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ১৩৫ প্রার্থী তাঁদের মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। ঢাকা দক্ষিণে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৬৩২ জন, সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ১৫৩ জন প্রার্থী তাঁদের মনোনয়নপত্র দাখিল করে। এছাড়া চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২৮৮ জন এবং সংরক্ষিত কউন্সিলর পদে ৭১ জন প্রার্থী তাদের মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। কিন্তু বাছাইয়ে ঢাকা দুই সিটি কর্পোরেশন ৫ জন এবং চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের মেয়র পদে ১ জন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল করে দেয়া হয়েছে।

বাছাইয়ের শেষ দিনে ঢাকার উত্তরের বৈধ হওয়া ১৯ জন মেয়র প্রার্থীর মধ্যে রয়েছে আওয়ামী লীগ সমর্থিত আনিসুল হক, জাতীয় পার্টি সমর্থিত প্রার্থী বাহাউদ্দিন আহমেদ বাবুল, মিন্টুর ছেলে তাবিথ আউয়াল, সিপিবির আব্দুল্লাহ আল ক্কাফী রতন, জাসদ সমর্থিত প্রার্থী নাদের চৌধুরী, জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের সাবেক উপদেষ্টা ববি হাজ্জাজ, গণসংহতির মোঃ জোনায়েদ আব্দুর রহমান সাকি, সাবেক সাংসদ সারাহ বেগম কবরী, বিকল্পধারার মাহী বদরুদ্দোজা চৌধুরী, চৌধুরী ইরাদ আহম্মদ সিদ্দিকী, মোঃ শামছুল আলম চৌধুরী, এওয়াইএম কামরুল ইসলাম, কাজী মোঃ শহীদুল্লাহ, মোয়াজ্জেম হোসেন খান মজলিশ, মোঃ আনিসুজ্জামান খোকন, মোঃ জামান ভূইয়া, শেখ শহিদুজ্জামান, শেখ মোঃ ফজলে বারী মাসউদ ও মোস্তফা কামাল আজাদীর মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে বৈধ হওয়া ২৩ জন প্রার্থীর মধ্যে রয়েছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত সাঈদ খোকন, বিএনপি নেতা মির্জা আব্বাস, আব্দুস সালাম ও আসাদুজ্জামান রিপন, জাতীয় পার্টি সমর্থিত মোহাম্মদ সাইফুদ্দিন, মোঃ আকতারুজ্জামান ওরফে আয়াতুল্লাহ, মোঃ আব্দুল লালেক, জাজিদুর রহমান, আবু নাছের মোহাম্মদ মাসুদ হোসাইন, বাহরানে সুলতান বাহার, শাহীন খান, দিলীপ ভদ্র, শহীদুল ইসলাম, শফিউল্লাহ চৌধুরী, আব্দুর রহমান, বজলুর রশীদ ফিরোজ, রিয়াজউদ্দিন, মশিউর রহমান, ইমতিয়াজ আলম, সাবেক সাংসদ গোলাম মওলা রনি, আয়ুব হোসেন ও কাজী আবুল বাশারের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে।

চট্টগ্রাম ॥ এদিকে মনোনয়নপত্র বাছাইয়ের শেষ দিনে চট্টগ্রামে ১২ মেয়র প্রার্থী ও কাউন্সিলর পদে ৩১৮ জনের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষণা করেছে রিটার্নিং কর্র্মকর্তা। যাচাই বাছাই শেষে মেয়র পদে একজন এবং কাউন্সিলর পদে ৪১ জনের প্রার্থিতা বাতিল করে দেয়া হয়। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মনোনয়নপত্র বাছাই শেষে এ ঘোষণা দেন চসিক রিটার্নিং অফিসার মোঃ আবদুল বাতেন।

চট্টগ্রাম নগরীর মুসলিম ইনস্টিটিউট হলে মনোনয়নপত্র বাছাই সম্পন্ন হয়। এ সময় উপস্থিত ছিলেন নির্বাচনের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা, এনবিআর প্রতিনিধি, আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থার প্রতিনিধি ও প্রার্থীদের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যাংক প্রতিনিধিরা। দুদিনের বাছাইয়ে বাতিল হয়েছে মোট ৪২টি মনোনয়নপত্র। যাদের মনোনয়নপত্র বাতিল হয়েছে তারা চট্টগ্রামের বিভাগীয় কমিশনারের কাছে আপীল করার জন্য ৩ দিন সময় পাবেন।

রিটার্নিং অফিসার কার্যালয় সূত্রে জানানো হয়, মেয়র পদে একটি, সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর পদে ১০টি ও সাধারণ কাউন্সিলর পদে ৩১টি মনোনয়নপত্র বাতিল হয়। নির্বাচনে মোট মনোনয়নপত্র দাখিল হয়েছিল ৩৭২টি। যাচাই বাছাইয়ের পর বৈধ বিবেচিত হলো মোট ৩৩০টি মনোনয়নপত্র। ফলে বর্তমানে বৈধ মনোনয়নপত্রের সংখ্যা মেয়র পদে ১২, সংরক্ষিত নারী ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে ৬১ ও সাধারণ কাউন্সিলর পদে ২৫৭টি।

এদিকে, ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী নির্বাচনের ২১ দিন আগে ৭ এপ্রিল থেকে প্রার্থীদের গণসংযোগে বাধা নেই বলে জানানো হয়েছে নির্বাচন কমিশন থেকে। তবে প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ ১০ এপ্রিল হবে বিদায় মূলত পুরোদমে প্রচারণা শুরু হবে সেদিন বিকেল থেকেই।

মেয়র পদে যাঁদের মনোনয়নপত্র বৈধ ঘোষিত হয়েছে তাঁরা হলেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত নাগরিক কমিটির প্রার্থী আ জ ম নাছির উদ্দিন, বিএনপি সমর্থিত চট্টগ্রাম উন্নয়ন আন্দোলনের প্রার্থী এম মনজুর আলম, জাতীয় পার্টি সমর্থিত প্রার্থী সোলায়মান আলম শেঠ, ইসলামী ফ্রন্টের এমএ মতিন, ইসলামিক ফ্রন্টের হোসাইন মোহাম্মদ মজিবুল হক, বিএনএফ-এর অধ্যাপক আরিফ মঈনউদ্দিন, স্বতন্ত্র প্রার্থী সৈয়দ সাজ্জাদ জোহা, মোঃ আবুল কালাম আজাদ, মোঃ সফিউল আলম, মোঃ আলাউদ্দিন, সাইফুদ্দিন আহমেদ রবি ও ইসলামী আন্দোলনের ওয়ায়েজ হোসেন ভুঁইয়া।

তফসিলে ৯ এপ্রিল পর্যন্ত মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের সময় রেখেছে নির্বাচন কমিশন। আপিল নিষ্পত্তি শেষে মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের পর প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের নিয়ে ২৮ এপ্রিল ঢাকা ও চট্টগ্রামের তিন সিটিতে ভোট হবে।

প্রকাশিত : ৩ এপ্রিল ২০১৫

০৩/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন

প্রথম পাতা



ব্রেকিং নিউজ: