কুয়াশাচ্ছন্ন, তাপমাত্রা ২২.২ °C
 
৪ ডিসেম্বর ২০১৬, ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

সুইফটময় আইহার্ট রেডিও মিউজিক এ্যাওয়ার্ড

প্রকাশিত : ২ এপ্রিল ২০১৫
  • আরিফুর সবুজ

মিউজিক

২৯ মার্চের রাতটা উপস্থিত সবাই বহুদিন মনে রাখবে। লস এঞ্জেলেসের শ্রাইন অডিটরিয়ামের আলোর ঝলকের সঙ্গে বিশ্বতারকাদের নান্দনিক উপস্থিতি সময়টাকে বেঁধেছিল আনন্দঘন পরিবেশে দ্বিতীয় আইহার্ট রেডিও মিউজিক এ্যাওয়ার্ড প্রাঙ্গণে। নাচ, গান আর অভিনয়ের ফাঁকে ফাঁকে মিলেছে তারকাদের কাজের স্বীকৃতি। আর এই তালিকায় তিনটি ক্যাটাগরিতে পুরস্কার জিতে আসরের রানী হয়েছেন টেইলর সুইফট।

আয়োজনের প্রথম অংশে পারফর্মেন্স পর্বে দর্শকদের তুমুল হাততালির শব্দে উপস্থাপকের কথা বোঝাই যাচ্ছিল না। উপস্থাপকের দিকে কারও নজর নেই। সবার নজর দুই পপ তারকার দিকে। একই মঞ্চে তারা। একজনের হাতে মাইক্রোফোন। আরেকজনের হাতে গিটার। ত্রিশ বছর ধরে পুরো বিশ্বকে মাতিয়ে রাখা ম্যাডোনা আর হাল আমলের সবচেয়ে জনপ্রিয় সঙ্গীত তারকা টেইলর সুইফট যদি একই মঞ্চে গান গাওয়ার জন্য ওঠেন, তখন দর্শকরা অন্যসব কিছু ভুলে যাবেন, সেটাই স্বাভাবিক। অডিটরিয়ামের উপস্থিত দর্শকদেরও তাই হয়েছিল। ম্যাডোনা গাইলেন তার ‘গোস্ট টাউন’ গানটি আর গিটারে নিপুণ সুর তোলেন সুইফট। সে গানের ঝংকারেই কিনা আলোয় ঝলমলে মঞ্চ হয়ে উঠেছিল আরও আলোকিত। মঞ্চটি তৈরি করা হয়েছিল আইহার্ট রেডিও মিউজিক এ্যাওয়ার্ডের জন্য। সেখানে এই দুই প্রজন্মের পপ তারকা তাদের গান আর রূপ দিয়ে মাতিয়ে দিয়েছেন পুরো অনুষ্ঠানটি। ম্যাডোনা ও সুইফট মঞ্চ মাতালেও অন্যরাও কিন্তু কম যাননি। ইগি আজেলিয়া ও জেনিফার হাডসন তাদের ডুয়েট গান ‘ট্রাবল’ পরিবেশন করেন। গানটি ছিল জেলের থিমের ওপর। আজেলিয়া বন্দীর পোশাক এবং হাডসন পুলিশের পোশাক পরে গানের তালে অভিনয় করে দর্শকদের মাতিয়ে তোলেন। এরপর মঞ্চে ওঠেন নিক জোনস ও তাঁর দল। সবার হাতে ও ঘাড়ে চেন বাধা। এমন সাজে তারা পরিবেশন করেন তাদের সম্প্রতি সুপারহিট ‘চেনস’ গানটি। এরপর মঞ্চে আসেন জেমি ফক্স ব্রুস জেনার, সুজে নাইট, মারভিন গেসহ আরও কয়েকজন সেলিব্রেটিকে নিয়ে ঠাট্টা মসকরা করে পুরো অডিটরিয়ামে বইয়ে দিয়েছিলেন হাসির রোল। ব্রাউনকে সঙ্গে নিয়ে গান গেয়ে মঞ্চ ত্যাগ করেন। রিহান্না তার নতুন সিঙ্গেলের ‘বেটার হ্যাভ মাই মানি’ গানটি গেয়ে দর্শকদের মনকে নাচিয়ে দেন। তিন ঘণ্টার এই অনুষ্ঠানে মেগান ট্রেইনর, ফ্লোরিডা জর্জিয়া লাইন, স্নুপ ডগ, জেসন ডেরুলো এবং কেলি ক্লার্কসনও পারফর্ম করেন। পারফর্ম অনুষ্ঠানটি শেষ হয় টেইলর সুইফটের ‘পিচেস এ্যান্ড ক্রিম’ গানটির মধ্য দিয়ে।

জাঁকজমকপূর্ণ তিন ঘণ্টার অনুষ্ঠানটি নামীদামী তারকাদের মিলনমেলায় পরিণত হয়েছিল। গানের পারফর্ম করা শিল্পী ছাড়াও আয়োজনে উপস্থিত ছিলেন জেমি ফক্স, ক্রিস ব্রাউন, স্যাম স্মিথ, জাস্টিন টিম্বারলেক, রায়ান সিক্রেস্ট, ¯œুপ ডগ, টম ফোর্ড, হেইলি স্টেইনফেল্ড, ব্রিটনি কার, জেসন আলডেনসহ আরও অনেক তারকা ।

পারফর্ম শেষে শুরু হয় পুরস্কার ঘোষণার পালা। উপস্থাপক ক্যাটাগরি আর পুরস্কারের ঘোষণা করার সঙ্গে সঙ্গে ক্যামেরাগুলো চলে যাচ্ছিল বিজয়ীদের দিকে। এ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানের রাতটি সুইফটেরই ছিল। তিন তিনটি পুরস্কার তার ঝুলিতে। সেরা আর্টিস্ট, সেরা গান (শেইক ইট অফ) এবং সেরা লিরিকস (ব্ল্যাঙ্ক স্পেস) এই তিন পুরস্কার পাওয়ায় অনেকে তো অনুষ্ঠানটির নামই দিয়ে দিয়েছেন আইহার্ট টেইলর সুইফট এ্যাওর্য়াড। নজর কাড়া সেই সঙ্গে যৌন আবেদনময়ী সুন্দরী সুইফট যখন লাল গালিচা মাড়িয়ে পুরস্কার নিতে মঞ্চে উঠেছিলেন, তখন পুরো অডিটরিয়াম হাততালির শব্দে কাঁপাছিল। সুইফট পুরস্কার হাতে নিয়ে সর্বাগ্রে ধন্যবাদ জানিয়েছেন তার চুয়ান্ন মিলিয়ন ভক্তদের। জাস্টিন টিম্বারলেক পেয়েছেন সেরা নতুন প্রবর্তক পুরস্কার। পুরস্কার নিতে গিয়ে জাস্টিন তার মা এবং স্ত্রী জেসিকা বেইলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। স্কুলের সবাই জাস্টিনকে একটা সময় কিম্ভূতকিমাকার বলে ভাবলেও মা আর স্ত্রীর অনুপ্রেরণা জাস্টিনকে এতদূর নিয়ে এসেছে বলে অনুষ্ঠানে জানান জাস্টিন।

এছাড়াও সেরা নতুন শিল্লীর পুরস্কার পেয়েছেন স্যাম স্মিথ, কান্ট্রি সঙ অব দ্য ইয়ার পায় জেসন আলডিনের ‘বার্নিং ইট ডাউন’ গানটি, হিপহপ সঙ অব দ্য ইয়ার পায় জেরেমিথ ফিচারিং-এর ‘ডোন্ট টেল এএম’, ড্যান্স সঙ অব দ্য ইয়ার পায় কালভিন হেরিসের ‘সামার’ গানটি।

আইহার্ট রেডিও মিউজিক এ্যাওর্য়াড প্রথম আসর বসেছিল ২০১৪ সালে। যদিও এই ফেস্ট্যিভাল শুরু হয়েছিল ২০১১ সালে। মিউজিকের ক্ষেত্রে এই এ্যাওয়ার্ডটিকে খুবই গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করা হয়।

প্রকাশিত : ২ এপ্রিল ২০১৫

০২/০৪/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: