মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১০ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, শনিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

ঢাকার দুই সিটির একক মেয়র প্রার্থী ঘোষণা ৮ এপ্রিলের আগেই

প্রকাশিত : ৩১ মার্চ ২০১৫, ০১:০২ এ. এম.
  • আওয়ামী লীগের বৈঠকে সিদ্ধান্ত ॥ একক কাউন্সিলর প্রার্থী করতে হিমশিম খাচ্ছে দল

বিশেষ প্রতিনিধি ॥ প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষদিন অর্থাৎ আগামী ৮ এপ্রিলের আগেই আসন্ন ঢাকার দুই সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র পদে দল সমর্থিত একক প্রার্থী ঘোষণা করবে আওয়ামী লীগ। কাউন্সিলর পদে গড়ে প্রতিটি ওয়ার্ডে ৬ জন করে প্রার্থী আওয়ামী লীগের সমর্থন প্রত্যাশী হওয়ায় একক প্রার্থী নির্ধারণ করতে রীতিমতো হিমশিম খেতে হচ্ছে দলটির। তবে একক প্রার্থী ঠিক করার পাশাপাশি আজ মঙ্গলবার থেকেই চলবে ঘরোয়া মতবিনিময়। ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দল সমর্থিত প্রার্থীর পক্ষে কাজের তদারকি করবেন উত্তরে লে. কর্নেল (অব) ফারুক খান ও দক্ষিণে ড. আবদুর রাজ্জাক। দক্ষিণে এম এ আজিজ ও মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়াকে উত্তরে বিশেষভাবে নজর রাখতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

সোমবার ধানম-ির আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক বৈঠকে এমন সিদ্ধান্ত হয়। বৈঠক থেকে দলের বৃহত্তর স্বার্থে দল সমর্থিত প্রার্থীর পক্ষে একাট্টা হয়ে নির্বাচনী মাঠে নামার জন্য নেতাকর্র্মীর প্রতি আহ্বান জানানো হয়। পাশাপাশি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করে বলা হয়, দল মনোনীত প্রার্থীর বিরুদ্ধে কেউ প্রার্থী হলে তার বিরুদ্ধে কঠোর সাংগঠনিক ব্যবস্থা হবে। তিনি যে পর্যায়ের বা যত বড়ই নেতাই হোন না কেন।

বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের সভাপতিত্বে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম, প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক উপদেষ্টা এইচটি ইমাম, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটনমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, ত্রাণমন্ত্রী মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া, দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ, খাদ্যমন্ত্রী কামরুল ইসলাম, ড. আবদুর রাজ্জাক, আহমদ হোসেন, আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, এম এ আজিজ, এনামুল হক শামীম, সুজিত রায় নন্দী প্রমুখ। বৈঠকে যোগ দেন ঢাকা দক্ষিণের মেয়র প্রার্থী সাঈদ খোকনও। বৈঠক শেষে গণমাধ্যমে কোন কথা বলেননি নেতারা।

বৈঠক সূত্র জানায়, আজ মঙ্গলবার কলাবাগান থানার দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে দক্ষিণের প্রার্থী সাঈদ খোকনকে ঘরোয়া মতবিনিময় সভা করার পরামর্শ দেয়া হয়েছে। পর্যায়ক্রমে বিভিন্ন থানা-ওয়ার্ডের নেতাকর্মীর সঙ্গে মতবিনিময় করতে হবে। তবে কোনমতেই যাতে নির্বাচন আচরণবিধি লঙ্ঘিত না করা হয় সে ব্যাপারে সবাইকে সতর্ক দৃষ্টি রাখতে বলা হয়। এছাড়া আগামী ৮ এপ্রিলের মধ্যে একক কাউন্সিলর প্রার্থী নিশ্চিত করতে স্থানীয় নেতাদের নির্দেশ দিয়েছেন দলটির হাইকমান্ড। দুই-একদিনের মধ্যে খসড়া তালিকা তৈরি করে দায়িত্বপ্রাপ্ত নেতারা দলীয় সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে জমা দেবেন। প্রধানমন্ত্রী এ তালিকা চূড়ান্ত অনুমোদন দেবেন।

তবে এর মধ্যে সম্ভাব্য কাউন্সিলর প্রার্থীদের নিয়ে আরেক দফা বৈঠক হতে পারে। একই সঙ্গে কাউন্সিলর প্রার্থীদের কোন্দলে যাতে মেয়র প্রার্থীদের নির্বাচন ক্ষতিগ্রস্ত হয় সে বিষয়ে সবাইকে সতর্ক করা হয়েছে। বৈঠক সূত্র জানায়, নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে সর্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখতে একটি এবং আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের জন্য একটি; মোট দুটি শক্তিশালী কমিটি গঠন করা হয়েছে।

জানা গেছে, আওয়ামী লীগ সমর্থিত মেয়র প্রার্থীকে সমর্থন দেয়ার জন্য পর্যায়ক্রমে সমমনা বিভিন্ন সাংস্কৃতিক, পেশাজীবী ও মুক্তিযোদ্ধা সংগঠনের সঙ্গে মতবিনিময় করার নির্দেশ দেয়া হচ্ছে। মেয়র প্রার্থীদের উদ্দেশে নেতারা বলেন, এমনভাবে নির্বাচনী প্রচার চালাতে হবে যেন মনে না হয় ক্ষমতাসীন দল সমর্থিত প্রার্থীরা প্রভাব বিস্তার করছে। সবাইকে সঙ্গে নিয়েই নির্বাচনী মাঠে চলতে হবে। একইসঙ্গে বৈঠকে দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে কেউ প্রার্র্থী হলে তার বিরুদ্ধে কঠোর সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণের হুঁশিয়ারিও উচ্চারণ করা হয়।

প্রকাশিত : ৩১ মার্চ ২০১৫, ০১:০২ এ. এম.

৩১/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: