মূলত পরিষ্কার, তাপমাত্রা ২১.১ °C
 
১১ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, রবিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ

নির্বাচনী হাওয়ায় পুঁজিবাজারে আশার আলো

প্রকাশিত : ২৯ মার্চ ২০১৫
  • সাপ্তাহিক বাজার পর্যালোচনা

অর্থনৈতিক রিপোর্টার ॥ অবশেষে পতনের ধারা থেকে বের হয়ে এসেছে দেশের পুঁজিবাজার। আগের কয়েক সপ্তাহের পতনের ধারাবাহিকতা থেকে বের হয়ে আসার নেপথ্যে ছিল সিটি নির্বাচনের হাওয়া। আগামী সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন এবং বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোটের হরতালের কর্মসূচি থেকে সরে আসার কারণে উভয় বাজারেই সূচক ও লেনদেনের গতি বেড়েছে। বিনিয়োগকারীদের মাঝেও আশার আলো ছড়িয়ে পড়েছে। দীর্ঘ দুই মাসের মাঝে সবচেয়ে সফল সপ্তাহ পার করেছে পুঁজিবাজার। বিনিয়োগকারীদের অংশগ্রহণ বাড়ার কারণে প্রধান বাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের সার্বিক লেনদেন বেড়েছে প্রায় ১৬ শতাংশ।

বাজারসংশ্লিষ্টদের মতে, সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনকে ঘিরে হরতালের মতো কর্মসূচী বাদ দেয়ায় পুুঁজিবাজারের পালে হাওয়া লেগেছে। এছাড়া আগামী বাজেটকে ঘিরে বাজার সংশ্লিষ্টদের বৈঠক এবং তোড়জোড়ে কিছুটা আশ্বস্ত হয়েছে বিনিয়োগকারীরা। এছাড়া দীর্ঘদিন ধরে টানা পতনের কারণে বিনিয়োগকারীদের একটি পক্ষের শেয়ার কেনার আদেশ বাড়িয়ে দেয়ার প্রভাবও বাজারে পড়েছে। সার্বিকভাবে বাজারে এই কারণেই ইতিবাচক প্রবণতা ফিরে এসেছে।

সাপ্তাহিক বাজার পর্যালোচনায় দেখা যাচ্ছে, নির্বাচনের হাওয়া লাগার কারণে গত সপ্তাহে সব ধরনের কোম্পানির দর বাড়ে। রবিবারে ডিএসইর লেনদেন সার্বিক সূচক বা ডিএসইএক্সের ৪ হাজার ৬৬৮ পয়েন্ট দিয়ে শুরু হয়। সপ্তাহ শেষে বৃহস্পতিবারে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪ হাজার ৫০৯ পয়েন্টে। অর্থাৎ সপ্তাহ শেষে সূচক বেড়েছে ৪১ পয়েন্ট বা ০.৯২ শতাংশ। আগের সপ্তাহে ডিএসই সূচকের পতন হয়েছিল ৮৯ পয়েন্ট। একইভাবে ডিএসইর অন্যান্য সূচকও কিছুটা বেড়েছে। ডিএসই-৩০ সূচক ২৭ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়ায় ১ হাজার ৭১৩ পয়েন্টে এবং শরিয়াহ সূচক ১৫ পয়েন্ট বেড়ে দাঁড়ায় ১ হাজার ৯৬ পয়েন্টে দাঁড়িয়েছে।

সপ্তাহজুড়ে লেনদেনে অংশ নেয়া অধিকাংশ কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের দর কমেছে। সেখানে হাতবদল হওয়া ৩২১টি কোম্পানি ও মিউচুয়াল ফান্ডের মধ্যে ১২৬টির দর বেড়েছে, কমেছে ১৭৪টির, অপরিবর্তিত রয়েছে ২০টির দর। আর ১টি ইস্যুর কোন লেনদেন হয়নি। আগের সপ্তাহে ডিএসইতে দৈনিক গড় লেনদেন হয়েছিল ২৫৫ কোটি টাকা, যা গত সপ্তাহে তা বেড়ে দাঁড়ায় ২৯৭ কোটি ৮৫ লাখ টাকা। আগের সপ্তাহের তুলনায় লেনদেন বাড়ার হার ১৭ দশমিক ১৬ শতাংশ। সপ্তাহ শেষে ডিএসই বাজার মূলধনের পরিমাণও বেড়েছে। সপ্তাহের শুরুতে ডিএসইর বাজার মূলধনের পরিমাণ ছিল ৩ লাখ ১০ হাজার কোটি টাকারও বেশি। আর সপ্তাহ শেষে তা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ১৩ হাজার কোটি টাকায়। সপ্তাহ শেষে বাজার মূলধন বাড়ার হার ১.০৩ শতাংশ।

সাপ্তাহিক লেনদেনের সেরা কোম্পানিগুলো হলো : এসিআই, লাফার্জ সুরমা, শাহজিবাজার কোম্পানি লিমিটেড, গ্রামীণ ফোন, এসিআই ফর্মুলেশন, শাশা ডেনিমস, ইফাদ অটোস, মবিল যমুনা বিডি, স্কয়ার ফার্মা ও ওয়ান ব্যাংক লিমিটেড। দরবৃদ্ধির সেরা কোম্পানিগুলো হলো : এ্যামবি ফার্মা, এসিআই ফর্মুলেশন, ফার্মা এইডস, জেএমআই সিরিঞ্জ, এসিআই, পপুলার লাইফ, কোহিনূর কেমিক্যাল, রেনউইক যজ্ঞেশ্বর, লিব্রা ইনফিউশন ও সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড।

প্রকাশিত : ২৯ মার্চ ২০১৫

২৯/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: