রৌদ্রজ্জ্বল, তাপমাত্রা ২৩.৯ °C
 
৮ ডিসেম্বর ২০১৬, ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩, বৃহস্পতিবার, ঢাকা, বাংলাদেশ
শীর্ষ সংবাদ

কো-পাইলট ইচ্ছা করেই বিমানটি ধ্বংস করেন!

প্রকাশিত : ২৭ মার্চ ২০১৫, ১২:৫৯ এ. এম.

জনকণ্ঠ ডেস্ক ॥ ফ্রান্সের আল্পস পর্বতমালায় মঙ্গলবার বিধ্বস্ত হওয়া জার্মান বিমানের কো-পাইলট ইচ্ছে করেই বিমানটি বিধ্বস্ত করতে চেয়েছিলেন। এমন ধারণাই করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন ফ্রান্সের কর্মকর্তারা। খবর বিবিসি অনলাইনের।

বিমানটির ব্লাকবাক্সের ভয়েস রেকর্ডারের তথ্য তুলে ধরে ফ্রান্সে মার্সাই শহরের কৌঁসুলি বিরিস হোবা বলেন, কো-পাইলট ককপিটে একাই ছিলেন। বিমানের ককপিট থেকে পাইলট বেরিয়ে যাওয়ার পর কো-পাইলট ইচ্ছাকৃতভাবেই বিমান নিচের দিকে নামাতে থাকেন। তিনি পাইলটকে ভেতরেও ঢুকতে দেননি। পাইলটকে বাইরে রেখে কো-পাইলট একটি সুইচ টিপে বিমানের পতন ঘটান। টেলিভিশনে সরাসরি সম্প্রচারিত এক সংবাদ সম্মেলনে একথা জানান ওই কৌঁসুলি। তিনি বলেন, পাইলট ভেতরে ঢোকার আপ্রাণ চেষ্টা করেছিলেন। ককপিটে তখন ছিল পিনপতন নিস্তব্ধতা। ২৮ বছর বয়সী কো-পাইলট আন্দ্রিয়াজ লুবিজ বিমান ধ্বংস হওয়ার আগ পর্যন্ত জীবিত ছিলেন।

সাংবাদিকদের কৌঁসুলি হোবা বলেন, আমরা পাইলটকে বিমানের নিয়ন্ত্রণ নেয়ার জন্য কো-পাইলটকে অনুরোধ জানাতে শুনেছি। আর ঠিক সে সময়ই একটি আসন পেছনের দিকে সরানো এবং দরজা বন্ধ করার শব্দ পাওয়া গেছে। ওই সময় কো-পাইলট নিজে বিমানটি নিয়ন্ত্রণ করছিলেন। তিনি একা ছিলেন। আর তখনই কো-পাইলট বিমানটিকে নিচে নামানোর জন্য ফ্লাইট মনিটরিং সিস্টেমের সুইচ টেপেন। উচ্চতা নিয়ন্ত্রণের এ কাজটি কেবলমাত্র ইচ্ছাকৃতই করা যেতে পারে।

তিনি আরও বলেন, এ ঘটনার সবচেয়ে যৌক্তিক ব্যাখ্যা হতে পারে এটি যে, কো-পাইলট স্বেচ্ছায়ই ক্যাপ্টেনকে ঢুকতে না দেয়ার জন্য দরজা বন্ধ করে রেখেছিলেন। বিমানকে নিচে নামানোর জন্য সুইচও টিপেছিলেন। কি কারণে তিনি এটা করেছেন তা আমরা এখনও জানি না। তবে মনে হয় বিমানটি ধ্বংস করে দিতে চেয়েছিলেন তিনি। বিমান নিয়ন্ত্রণ কক্ষ থেকে বারবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও কোন সঙ্কেত মেলেনি জানিয়ে কৌঁসুলি বলেন, কো-পাইলটের সঙ্গে উগ্রবাদী বা সন্ত্রাসীদের কোন যোগসাজশ আছে কিনা তা তারা জানেন না। তবে জার্মান কর্তৃপক্ষ কো-পাইলট সম্পর্কে পরবর্তীতে আরও তথ্য জানাবে।

মঙ্গলবার ফ্রান্সের আল্পস পর্বতে জার্মান এয়ারবাস এ৩২০ বিমানটি ১৫০ জন আরোহী নিয়ে বিধ্বস্ত হয়। স্পেনের বার্সেলোনা থেকে যাত্রা করে জার্মানীর ডুসেল ডর্ফ যাওয়ার পথে ফ্রান্সের আল্পস পর্বতে বিধ্বস্ত হয় বিমানটি। বিমানের বেশিরভাগ যাত্রী জার্মানী ও স্পেনের হলেও ফ্রান্সেরও ১২ জন ছিলেন। আর যুক্তরাজ্যের ছিলেন অন্ততপক্ষে তিনজন।

প্রকাশিত : ২৭ মার্চ ২০১৫, ১২:৫৯ এ. এম.

২৭/০৩/২০১৫ তারিখের খবরের জন্য এখানে ক্লিক করুন


ব্রেকিং নিউজ: